• " />

     

    মুরালির বিরুদ্ধে অভিযোগ শ্রীলংকা বোর্ডের

    তাঁর অস্ট্রেলিয়া-স্মৃতি খুব সুখকর হওয়ার কথা নয়। দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী জন হাওয়ার্ড স্বয়ং তাঁকে ডেকেছিলেন 'চাকার'! এরও আগে দুই অস্ট্রেলিয়ান আম্পায়ার রস এমারসন আর ড্যারেল হেয়ার তাঁর বল 'নো' ডেকেছিলেন, প্রতিবাদে শ্রীলংকার গোটা দলই মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে গিয়েছিল। সেই অস্ট্রেলিয়ার হয়ে কিনা মুরালিধরনকে ছক কষতে হচ্ছে নিজ দেশকে হারানোর! এই এক কাণ্ডেই লংকান ক্রিকেট বোর্ডসহ দেশের বহু মানুষের কাছে 'বিশ্বাসঘাতক' বনে গেছেন মুরালি। এবার অনুশীলনের সময় নিয়ে বিতণ্ডায় জড়িয়েছেন শ্রীলংকা দলের ম্যানেজারের সাথে, দুর্ব্যবহার করেছেন পুরনো সহকর্মী আর মাঠকর্মীদের সাথেও। ব্যাপারটা এতোটাই তিক্ততার পর্যায়ে চলে গেছে শ্রীলংকার ক্রিকেট বোর্ড মুরালির বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগও করেছে অস্ট্রেলিয়া দলের কাছে।
     

    দুই মাসের লম্বা সফরে অস্ট্রেলিয়া দল এখন শ্রীলংকায়। ৩ টেস্টের সিরিজের প্রথমটি শুরুর প্রাক্কালেই এমন ঘটনা। শ্রীলংকার বোর্ড প্রেসিডেন্ট থিলাঙ্গা সামান্থিপালার ভাষ্যমতে, শনিবার পাল্লেকেলে স্টেডিয়ামে নির্ধারিত সময়ের বেশী অনুশীলন করা নিয়ে মুরালিধরনের সাথে বিতণ্ডা বাঁধে মাঠকর্মীদের। এসময় মুরালি তাঁদের সাথে খারাপ ব্যবহার করে জোরপূর্বক অনুশীলন চালিয়ে যান বলে অভিযোগ তাঁর। এরপর এ নিয়ে শ্রীলংকা দলের ম্যানেজারের সাথেও উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয় মুরালির।

     

    এমন ঘটনায় মর্মাহত মি. সামান্থিপালা, "একেবারেই অগ্রহণযোগ্য আচরণ। বিষয়টি অস্ট্রেলিয়া দলের নজরে আনা হয়েছে। এটা আমরা আশা করি নি।"

     

    টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসে সবচেয়ে বেশী (৮০০) উইকেটের মালিক মুরালিধরনকে শ্রীলংকায় কিংবদন্তীর চোখেই দেখা হয়। তবে অস্ট্রেলিয়ার দলের পরামর্শক হিসেবে কাজ করাটা, তাও আবার নিজ দেশের বিপক্ষে- বিষয়টা মোটেও ভালোভাবে দেখা হচ্ছে না দেশটিতে।

     

    অস্ট্রেলিয়ার সাথে পুর্ব তিক্ততার বিষয়টি বিবেচনায় তিনি কিভাবে সে দেশের হয়ে কাজ করছেন তা বোধগম্য নয় শ্রীলংকার বোর্ড প্রেসিডেন্টের, "পেশাদারভাবে চিন্তা করলে সে যে কোনো বিদেশী দলকেই প্রশিক্ষণ দেবার অধিকার রাখে। কিন্তু দুঃখজনক হচ্ছে সে এমন একটা দলের হয়ে কাজ করছে যারা তাঁকে ক্রিকেট থেকেই নির্বাসিত করে দেয়ার চেষ্টা চালিয়েছিল।"

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন