• লা লিগা
  • " />

     

    কান্নাভেজা চোখেই স্পেনকে বিদায় বললেন পিকে?

     

    কাতালুনিয়ার স্বাধীনতা প্রসঙ্গে বরাবরই সোচ্চার তিনি। এ নিয়ে জেরার্ড পিকেকে কম ‘দুয়ো’ শুনতে হয়নি স্পেন ভক্তদের কাছে। কাতালুনিয়ার স্বাধীন হলে কোথায় খেলবে বার্সেলোনা, সেটা এখন মিলিয়ন ডলারের প্রশ্ন। গতকাল লাস পালমাসের বিপক্ষে ম্যাচের পর পিকে অশ্রুভেজা চোখে বলেছেন, স্পেনের ফুটবল ফেডারেশন যদি চায় তাহলে জাতীয় দল থেকে সরে দাঁড়াবেন তিনি।

    ২০১৮ বিশ্বকাপের পরে অবসর নেবেন এটা আগেই ঘোষণা দিয়েছেন। তবে চলমান স্পেন-কাতালান দ্বন্দ্বের কারণে আগেই অবসর নিতে পারেন পিকে, “যদি ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের কোনো পরিচালক কিংবা অন্য কেউ মনে করে আমি স্পেনের ফুটবল ফেডারেশনের জন্য সমস্যা, তাহলে আগামী বিশ্বকাপের আগেই সরে দাঁড়াবো। জাতীয় দলের হয়ে খেলাটা সবসময়ই আমার জন্য গর্বের বিষয় ছিল।”

    কাতালুনিয়ার গণভোটের আগের দিন সহিংসতার কারণে কাল লাস পালমাসের বিপক্ষে ফাঁকা ন্যু ক্যাম্পেই খেলেছে বার্সা। পিকে বলছেন, এটা তার জীবনের সবচেয়ে কঠিন মুহূর্তের একটি ছিল, “পেশাদার ফুটবলার হিসেবে এটা আমার জীবনের সবচেয়ে খারাপ অভিজ্ঞতা ছিল। ম্যাচটা হওয়ার কথা ছিল। শেষ পর্যন্ত অনেক আলোচনার পর আমরা খেলতে নেমেছি। আমি কাতালান জনগণকে নিয়ে গর্বিত। তারা সবসময়ই আমাদের সমর্থন জুগিয়েছে।”

    ফুটবলারদের মত বার্সা কোচ ভালভের্দেও এই অস্বস্তিকর পরিস্থিতির দ্রুত অবসান চাইছেন, “ম্যাচ খেলার সিদ্ধান্ত সবার জন্যই সুখকর ব্যাপার ছিল। আমরা জানতাম ক্লাব কর্তৃপক্ষ ম্যাচটা স্থগিত করতে চেয়েছিল। আশা করি সব ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয়ে আসবে। তবে আমি তো রাজনীতিবিদ নই!”

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন