• বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকা
  • " />

     

    'ক্যাসিনোতে ওরা খেলতে যায়নি'

    তাসকিন আহমেদ, নাসির হোসেন ও শফিউল ইসলাম- তিন ক্রিকেটারের ক্যাসিনো থেকে দেরি করে ফেরা নিয়ে এর মধ্যেই তোলপাড়। বিসিবির অন্তর্বর্তীকালীন সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনকেও এ নিয়ে প্রশ্নের উত্তর দিতে হলো। নাজমুল হাসান ওই তিন জনের পক্ষেই ব্যাট ধরলেন। তবে জানালেন, দেরি করার কারণে তদন্ত করা হবে।

    দক্ষিণ আফ্রিকা সফরটা এমনিতেই বাংলাদেশ দলের জন্য যাচ্ছে দুঃস্বপ্নের মতো। ইস্ট লন্ডনে শেষ ম্যাচে ২০০ রানে ওয়ানডেতে ধবলধোলাইও হয়েছে। ওই ম্যাচ শেষে তিন ক্রিকেটার নাসির,তাসকিন ও শফিউল যান স্থানীয় একটা ক্যাসিনোতে। সেখান থেকে তাদের ফিরতে দেরি হয়েছে, তবে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুও তা জানতেন না।

    আজ মিরপুরে নাজমুল হাসান জানালেন, ওই তিনজন ক্যাসিনোতে গিয়ে জুয়া বা এই জাতীয় কিছু খেলেননি, ‘নিউজ হওয়ার মতো ব্যাপার হয়েছে কারণ ওরা ক্যাসিনোতে গেছে। কিন্তু ক্যাসিনোতে মানুষ যায় খেলতে, ওরা খেলতে যায়নি। সবাই বলছে ওরা খেলেনি। ওখানে নাকি অন্যান্য জিনিস খাওয়া দাওয়া সবই ছিল। মলের মতো তো ওখানে কয়েকটা মেশিন বসানো থাকে। সেই জন্য হতে পারে। টিম ম্যানেজারের লিখিত রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত এ ব্যাপারে কথা বলতে চাই না। একটা খেলোয়াড় হলে কিছু করা যেত। তিনটা খেলোয়াড় যেহেতু এখনই কিছু বলছি না। অবশ্যই এটা তদন্ত করে দেখা হবে এবং ব্যবস্থা নেওয়া হবে।আমরা লিখিত রিপোর্ট এখনও পাইনি। যে খবরটা পেয়েছি আজ বোর্ডে এসেই।’

    তবে স্বীকার করলেন, দেরি করে ফিরলে সেটার বিরুদ্ধে তদন্ত করা হবে, ‘খেলোয়াড়রা রাত ১০টার পর বাইরে থাকতে পারে না। টিম হোটেলের সামনেই একটা শপিং মল আছে। ওখানটায় নাকি খেতে গিয়েছিল ওরা।  যাওয়ার পর ডি ভিলিয়ার্স ও রাবাদার সঙ্গে দেখা হয় ওদের। ওখানে গল্প করে, ওদের সঙ্গেই ওরা ক্যাসিনো গিয়েছে। খেলতে যায়নি বা খেলেনি ওরা। ১০টার মধ্যে ফেরার কথা, ১০টা ৩৪ এ হোটেলে পৌঁছেছে ওরা। তারপরও যেহেতু এখন সিরিজ চলছে  এবং  টিম ম্যানেজারের রিপোর্ট পাব। রিপোর্ট দেখার পরে যা করার তাই করব।’

    মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় টিম মিটিং করবে সাকিব আল হাসানের টি-টুয়েন্টি দল। স্কাইপির মাধ্যমে মিটিংয়ে যোগ দেবেন নাজমুল হাসান।

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন