• " />

     

    ফুটবলকে বিদায় বললেন পিরলো

     

    নির্ধারিত সময়ে তখন মাত্র এক মিনিট বাকি। নিউইয়র্ক সিটি ফুটবল ক্লাবের বেঞ্চ থেকে মাঠে নামার জন্য সাইডলাইনে দাঁড়ালেন। মাঠে উপস্থিত কয়েক হাজার দর্শকের তুমুল করতালিতে ভরে উঠলো পুরো স্টেডিয়াম। ম্যাচের বাকি সময়ে কয়েকবার বল পায়ে পেলেন আন্দ্রে পিরলো। শেষ বাঁশি বাজার পর পিরলো দিলেন ফুটবলপ্রেমীদের মন ভারী করে দেওয়া এক ঘোষণা। সব ধরনের ফুটবল থেকে অবসরের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সাবেক এই বিশ্বকাপজয়ী ইতালিয়ান ফুটবলার।

     

    অবসরের ইঙ্গিতটা কয়েক মাস আগেই দিয়েছিলেন। গত জুনেই ৩৮ বছর বয়সী পিরলো জানিয়েছিলেন, শরীরকে এখন বিশ্রাম দিতে চান। খুব দ্রুতই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার কোথাও বলেছিলেন। জুভেন্টাস ছেড়ে দুই বছর আগে মেজর লিগ সকারে পাড়ি জমানো পিরলো মেজর সকার লিগের মৌসুমের শেষ ম্যাচে বুটজোড়া তুলে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েই নিলেন।

     

     

     

    ম্যাচ শেষে সতীর্থ ও প্রতিপক্ষের ফুটবলারদের সাথে আলিঙ্গন করার পর পিরলো বলছেন, বিদায় বলার সঠিক সময়টা এখনি, “শেষবারের মতো মেজর লিগ সকারে মাঠে নামলাম। একই সাথে সব ধরনের ফুটবল থেকে অবসরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমাকে এতগুলো বছর সমর্থন জুগিয়েছেন সবাই, আমি সবার কাছেই কৃতজ্ঞ।”

     

    বয়সের কারণেই এরকম সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে, জানালেন পিরলো, “আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন শরীর আগের মতো নেই। এই বয়সে আসলে এটাই স্বাভাবিক। দারুণ একটা ক্যারিয়ার ছিল, কোনো আফসোস নেই। জাতীয় দল, যে ক্লাবে খেলেছি সেখানকার সবাইকে ধন্যবাদ দিতে চাই। সবাই আমার হৃদয়ে আজীবন থাকবে।” তাঁর বিদায়ের কষ্টতা ছুঁয়ে গেছে সাবেক সতীর্থদেরও। ইতালি ও ক্লাবের সতীর্থদের প্রায় সবাই ভবিষ্যতের জন্য শুভকামনা জানিয়েছেন পিরলোকে।

     

    ইতালির হয়ে জিতেছেন বিশ্বকাপ। এসি মিলান-জুভেন্টাসের হয়ে জিতেছেন ক্লাব ফুটবলের বহু শিরোপা। মাঠ থেকে বের হওয়ার সময় কিছুক্ষণ স্থির হয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন, হয়ত ভেসে উঠছিল ২২ বছরের দীর্ঘ ক্যারিয়ারের সেই সব মুহূর্ত। লুকোতে চাইলেও ক্যামেরা ঠিকই ধরেছে তাঁর ছলছল চোখ। পিরলোর বিদায়ের মাধ্যমেই শেষ হলো ইতালিয়ান ফুটবলের এক বর্ণিল অধ্যায়ের।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন