• ত্রিদেশীয় সিরিজ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    'বাংলাদেশের দিকেই তাকিয়ে থাকবে জিম্বাবুয়ে'

    শ্রীলংকার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচ জিতে ফাইনালের পথে একধাপ এগিয়ে গিয়েছিল তারা। পরের তিন ম্যাচে হেরে এখন অনেকটাই অনিশ্চিত জিম্বাবুয়ের ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে খেলা। ফাইনালে উঠতে হলে ২৫ জানুয়ারি বাংলাদেশের কাছে হারতেই হবে শ্রীলংকার, এরপর রানরেটের হিসাব নিকাশটাও থাকবে। জিম্বাবুয়ের কাইল জার্ভিস বলছেন, তারা চেয়ে থাকবেন সাকিব-তামিমদের দিকেই।

    ২১৬ রানের মাঝে বাংলাদেশকে বেধে ফেলেছিল জিম্বাবুয়ে। তবে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় মাত্র ১২৫ রানেই গুটিয়ে গেছে তারা। শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের বড় জয়ই পারে তাদের ফাইনালে নিয়ে যেতে। সেই ম্যাচের জন্য বাংলাদেশকে ‘শুভকামনাও’ জানিয়ে রাখলেন জার্ভিস, ‘শেষ পর্যন্ত রানরেটেই নির্ধারিত হবে কারা ফাইনাল খেলবে। আশা করি বাংলাদেশ এই ব্যাপারে আমাদের সাহায্য করবে! অন্যের হাতে নিজের ভাগ্য ছেড়ে দেওয়া উচিত হয়নি। নিজেদেরই আজকে ফাইনাল নিশ্চিত করা দরকার ছিল। বাংলাদেশকে পরের ম্যাচের জন্য শুভকামনা।’

    পরাজয়ের জন্য ব্যাটসম্যানদের দুষছেন জার্ভিস, ‘যেভাবে তামিম-সাকিব ব্যাট করেছে, আমাদের দুই-তিনজনেরও এরকম করার প্রয়োজন ছিল। নিজেদের ব্যাটিংয়ে আমরা হতাশ। কোনোভাবেই ১২৫ রানে অলআউট হওয়ার কথা ছিল না। আমি ব্যক্তিগতভাবে খুব হতাশ। ২১৭ রানের লক্ষ্য আহামরি কিছু ছিল না। আমরা ভালো অবস্থানে ছিলাম। শুরুতেই তিন উইকেট হারিয়ে একবার যে চাপে পড়েছি, সেখান থেকে আর ঘুরে দাঁড়াতে পারিনি। বাংলাদেশের বোলাররাও দারুণ বোলিং করেছে।’

    মার্চেই ২০১৯ বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব। নিজেদেরকে ধীরে ধীরে সেটার জন্যই প্রস্তুত করতে চান জার্ভিস, ‘গত অক্টোবরে চুক্তি স্বাক্ষর করার পর এই প্রথম ৪টি ওয়ানডে খেললাম। এটা আমাদের ভবিষ্যতের জন্য কাজে দেবে। সামনেই আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৫ ম্যাচের সিরিজ আছে, বাছাইপর্বের ম্যাচও আছে। দল হিসেবে আমরা উন্নতি করছি। শ্রীলংকার বিপক্ষে জয়ের পর থেকেই এটা হয়ে আসছে। আমরা সব ম্যাচ থেকে ইতিবাচক দিকটাই বের করে আনার চেষ্টা করছি।’  

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন