• ক্রিকেট

সৌম্যর সমস্যা মানসিক নয়, টেকনিক্যাল : সালাউদ্দিন

বাংলাদেশের অনেক ক্রিকেটারেরই সরাসরি “গুরু” তিনি। মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের দ্বারস্থ ক্রিকেটাররা প্রায়ই হন, সেটা জাতীয় দলে ঢোকার পরও। সালাউদ্দিন এবার মুখ খুললেন জাতীয় দলের বাঁহাতি ওপেনার সৌম্য সরকারকে নিয়ে। বেশ কিছুদিন ধরেই ফর্ম ফিরে পেতে লড়াই করতে হচ্ছে তাকে, সর্বশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের টি-টোয়েন্টি সিরিজেও দলের ‘চাহিদা মোতাবেক’ নিয়ে যাওয়া হয়েছিল তাকে। সৌম্য প্রতিদান দিতে পারেননি, করেছেন ০, ১৪ ও ৫ রান। সালাউদ্দিনের কাছে মনে হচ্ছে, সৌম্যর ব্যাপারটা টেকনিক্যাল, মানসিক নয়। 

“আমার কাছে মনে হয় সৌম্যর কিছু টেকনিক্যাল সমস্যা আছে। আমার মনে হয় না তার কোন মানসিক সমস্যা আছে। তার খেলার ধরন একেকদিন একেক রকম হত, যদি তার মানসিক সমস্যা থাকত। যেহেতু সে বিশেষ কিছু বলে বারবার আউট হচ্ছে, সেহেতু এখানে কিছু টেকনিক্যাল সমস্যা আছে, আর কিছু না”, বলছেন সালাউদ্দিন।

তবে এটা তেমন বড় সমস্যা বলেও মনে করেন তিনি, “আর এটা ঠিক করা খুব বেশি সমস্যা হবে না। আর ইদানিং খেলা নিয়ে সে অনেক বেশি চিন্তা করে। কিভাবে এইসব ব্যাপারে উন্নতি করা যায় সেটা নিয়ে ভাবছে। আমার মনে হয় এটা খুব দ্রুতই সমাধান করা যাবে এবং সে খুব ভাল ভাবেই ফিরবে।”

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে প্রথম টি-টোয়েন্টি অফস্পিনার অ্যাশলি নার্সের স্কিড করা বলে ব্যাকফুটে গিয়ে খেলার “পাপ” করেছিলেন সৌম্য। পরের দুই ম্যাচেই তুলে মারতে গিয়ে ধরা খেয়েছে বাউন্ডারিতে। সৌম্যর আউটের ধরনেই তার সমস্যাটা বুঝতে পারছেন সালাউদ্দিন, “প্রায় সময় দেখা যায় নতুন বলে বের হয়ে যাওয়া বলে স্লিপে আউট হচ্ছে। অফস্পিনে মাঝে মাঝে আউট হচ্ছে। এই দুইটা বলেই বেশীরভাগ আউট হচ্ছে। মিড উইকেট ও লং অনেও আউট হতে দেখা যায়। আপনি তার পুরো খেলাটা বিশ্লেষণ করলে দেখবেন, এই কয়টাই আউট হয় সে। 

“এটা আসলে টেকনিক্যাল সমস্যা, সে কোন দিকে মারতে যাচ্ছে সেটা নিশ্চিত না। এগুলো ধরতে পারা সহজ। তার আউটের ধরন দেখলে বুঝা যায়, এগুলো ঠিক করার খুব কঠিন কিছু না। টেকনিক্যাল সমস্যা গুলো একটু ঠিক করলেই সে আরও ভাল ব্যাটসম্যানে পরিণত হবে।”

অফ-ফর্মে থাকা ব্যাটসম্যানের ক্ষেত্রে একটা চিরায়ত ব্যাপারও আছে, অফ-ফর্ম নিয়ে বেশি চিন্তা করা। কিভাবে আউট হলেন, ফর্মে থাকলে এমন শট খেলতেন না, বরং উল্টোটা করতেন- এমন চিন্তাভাবনার জালে আরও বেশি জড়িয়ে যান তারা। তবে সৌম্য এতোকিছু ভাবছেন না বলেও জানালেন তিনি, “অতিরিক্ত চিন্তা অবশ্যই হিতে-বিপরীত হতে পারে। অতিরিক্ত চেষ্টাও অনেকের জন্য হিতে-বিপরীত হতে পারে। কিন্তু আমার মনে হয় সে একটা নির্দিষ্ট বিষয় নিয়ে চিন্তা করছে, সেটা তার জন্য অনেক ফল বয়ে আনবে।”