• জাতীয় ক্রিকেট লিগ ২০১৮/১৯
  • " />

     

    • জাতীয় ক্রিকেট লিগ ২০১৮/১৯

    লিটনের রেকর্ড ডাবলে ঘুরে দাঁড়ালো রংপুর

    প্রথম স্তর
    রংপুর-রাজশাহী, রাজশাহী
    টস- রাজশাহী (ফিল্ডিং) 
    ৩য় দিনশেষে
    রংপুর ১ম ইনিংস ১৫১ অল-আউট (নাঈম ৬০, শুভ ২৯, মোহর ৩/৩৭, ফরহাদ ৩/৩৯) ও ২য় ইনিংস* ৩১৯/২ (লিটন ২০৩, মাহমুদুল ৭২*) 
    রাজশাহী ১ম ইনিংস ৫৮৯/৪ ডিক্লে. (মিজানুর ১৬৫, শান্ত ১৭৩, জুনাইদ ১০০*, মাহমুদুল ১/৮১) 


    লিটন দাসের রেকর্ড ডাবল সেঞ্চুরিতে দ্বিতীয় ইনিংসে রাজশাহীর বিপক্ষে ঘুরে দাঁড়িয়েছে রংপুর। ৪৩৮ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে রংপুর এখন পিছিয়ে মাত্র ১১৯ রানে, বাকি আছে ৮ উইকেট। 

    আগের দিনের সঙ্গে এদিন আরও ১৭০ রান যোগ করে ইনিংস ঘোষণা করেছিল রাজশাহী। ফরহাদ হোসেনের ৬২, জহুরুল ইসলামের ৫৫ রানের ইনিংস সঙ্গ দিয়েছে সেঞ্চুরিয়ান জুনাইদ সিদ্দিককে। তার সেঞ্চুরির পরই ইনিংস ঘোষণা করেছে রাজশাহী। 

    জাহিদ জাভেদকে সঙ্গে নিয়ে এরপরই প্রতি-আক্রমণ শুরু করেছেন লিটন। ৪৪ বলে করেছেন ফিফটি, সেঞ্চুরি পূরণ করেছেন ৮১ বলে। পরের ফিফটি করেছেন ২৭ বলে। ১৫০ থেকে ২০০ রানে যেতে লিটন বল খেলেছেন ৩২টি। 

    তাইজুল ইসলামের বলে ক্যাচ দেওয়ার আগে লিটন চার মেরেছেন ৩২টি, ছয় মেরেছেন ৪টি। ১৪০ বলে ডাবল সেঞ্চুরি করে তিনি ভেঙেছেন তার রেকর্ডই। এর আগে তিনি ভেঙেছিলেন মোসাদ্দেক হোসেনের রেকর্ড। প্রথম শ্রেণিতে লিটনের এটি তৃতীয় ডাবল।  

    দলীয় ৯৮ রানে ৩৫ রান করে ফিরেছিলেন জাহিদ, এরপর লিটনকে সঙ্গ দিয়েছেন মাহমুদুল হাসান। তিনি অপরাজিত ৮১ বলে ৭২ রানে। ৪৯ ওভারে রংপুর রান তুলেছে ৬.৫১ হারে! 

     

     

     

    প্রথম স্তর
    বরিশাল-খুলনা, খুলনা 
    টস- খুলনা (ফিল্ডিং) 
    ২য় দিনশেষে 
    বরিশাল ১ম ইনিংস ২৯৯ (নুরুজ্জামান ৭৪, নাফীস ৪১, আল-আমিন ৩/৬৭, রাজ্জাক ৩/১২১)
    খুলনা ১ম ইনিংস* ৩৪৯/৭ (মিঠুন ৭২, জিয়াউর ১১২, আফিফ ৮১*,  রাব্বি ২/৪৪, সোহাগ ২/১০০)


    বৃষ্টির কারণে খুলনায় খেলা বন্ধ হয়ে গেছে দুপুর একটার দিকেই। তার আগে নিজেদের এগিয়ে নিয়েছেন খুলনার ব্যাটসম্যানরা। জিয়াউর রহমানের সেঞ্চুরি ও আফিফ হোসেনের অপরাজিত ৮১ রানে প্রথম ইনিংসে ৫০ রানে এগিয়ে গেছে তারা। 

    আগের দিন ৪৬ রানে অপরাজিত থাকা জিয়াউর আজ সেঞ্চুরি পূর্ণ করেছেন ২৩১ বলে। আফিফের সঙ্গে তার জুটি ১৫৫ রানের, আগেরদিন ৬ উইকেট হারানো খুলনা আজ হারিয়েছে শুধু জিয়ার উইকেটই।