• বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ড সফর
  • " />

     

    • বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ড সফর

    নিউজিল্যান্ডের দিনে তামিমের সেঞ্চুরি, ওয়াগনারের পাঁচ উইকেট

    বাংলাদেশ ১ম ইনিংস ২৩৪ 
    নিউজিল্যান্ড ১ম ইনিংস ৮৬/০*

    শুন্যতে ফিরতে পারতেন টম ল্যাথাম, এবাদতের বলে স্লিপে সৌম্য ক্যাচ ছাড়ায় সেটা হয়নি। শুরুতে বেশ কিছু মুভমেন্ট জাগিয়েছিল সম্ভাবনা, বিশেষ করে এবাদত ও আবু জায়েদের বোলিংয়ে। তবে সেসব কাটিয়ে উঠেছেন রাভাল ও ল্যাথাম। রাভাল পেয়েছেন ফিফটি, ল্যাথাম অপরাজিত ৩৫ রানে। তামিমের সেঞ্চুরি, ওয়াগনারের পাঁচ উইকেটের দিনটা নিউজিল্যান্ডেরই, যারা এখন সব উইকেট নিয়ে পিছিয়ে ১৪৮ রানে।


     বাংলাদেশ ২৩৪ অল-আউট, দারুণ শুরুতে সম্ভাবনা জাগালেও শর্ট বলে সেটার অপমৃত্যু ঘটেছে বাংলাদেশ ইনিংসের। চা-বিরতির পর তারা গুটিয়ে গেছে ১৭ রানেই। সাউদির শর্ট বল থেকে পালাতে পারেননি আবু জায়েদ, খালেদ শিকার দারুণ ইয়র্কারের, যিনিও প্রত্যাশা করছিলেন শর্ট বলের। লিটনও ফিরেছেন ওই শর্ট বলেই, তার উইকেট দিয়ে পাঁচ উইকেট পূর্ণ হয়েছে ওয়াগনারের।



    চা-বিরতি, বাংলাদেশ ২১৭/৭, ওয়াগনারের শর্ট অফ আ লেংথ বল ঠিকঠাক সামলাতে পারেননি মিরাজ, শর্ট লেগে পরিণত হয়েছেন নিকোলসের দারুণ ক্যাচে। দ্বিতীয় সেশনে বাংলাদেশ হারিয়েছে ৫ উইকেট, ৮৫ রানে।


    বাংলাদেশ ২০৭/৬ শর্ট বল, শর্ট বল, শর্ট বল। নেইল ওয়াগনারের ‘শর্ট পিচ’ তত্ত্ব সফল আবার। মাহমুদউল্লাহর পুল শটের ব্যর্থ চেষ্টা ধরা পড়েছে লং লেগে। বাংলাদেশ অধিনায়ক ফিরেছেন ২২ রান করে। দারুণ সকালটা হারিয়ে যেতে বসেছে বাংলাদেশের, বিষণ্ণ দুপুরে।


    বাংলাদেশ ১৮৫/৫ তামিমের দারুণ এক ইনিংসের শেষটা হয়েছে একটু আলগাভাবেই। ডি গ্র্যান্ডহোমের অফস্টাম্পের বাইরে শর্ট লেংথের ধীরগতির বলে ব্যাট চালিয়ে গালিতে ধরা পড়েছেন তিনি। তার আগে করেছেন ১২৮ বলে ১২৬ রান। মাহমুদউল্লাহর সঙ্গী লিটন দাস, যিনি এ টেস্টে খেলছেন উইকেটকিপার হিসেবে। 


    বাংলাদেশ ১৭৪/৪ শর্ট বলে উইকেট আরেকটি। এবার সৌম্য সরকার শিকার টিম সাউদির। সৌম্য খেলবেন না ছেড়ে দিবেন- এটা ঠিক করতে গিয়ে তার গ্লাভস ছুঁয়ে ক্যাচ গেছে ওয়াটলিংয়ের হাতে। শর্ট বলে অবশ্য আক্রমণ করে যাচ্ছেন তামিম ইকবাল, টিম সাউদিকে ছয়ের পর মেরেছেন দুই চার। তামিমের সঙ্গী এখন মাহমুদউল্লাহ।


    বাংলাদেশ ১৪৭/৩ ওয়াগনারের শর্ট বল সফল আরেকবার। মিঠুন পুল করতে চেয়েছিলেন, বল উঠেছে আকাশে। মিডউইকেটে পেছন দিক ছুটে ক্যাচ নিয়েছেন টম ল্যাথাম। তামিমের সঙ্গে মিঠুনের জুটি টিকল ২৬ রান পর্যন্ত। 


     

    বাংলাদেশ ১৪৫/২, নেইল ওয়াগনারকে পুল করে চার মেরে ক্যারিয়ারের নবম টেস্ট সেঞ্চুরি পূর্ণ করেছেন তামিম ইকবাল। খেলেছেন মাত্র ১০০ বলে। মেরেছেন ১৮টি বাউন্ডারি, নিউজিল্যান্ডের বোলিং আক্রমণে আঘাত করেছেন যেন তার চেয়েও বেশি। সাউদির শর্ট বল ডাক করতে গিয়ে ব্যাটের পেছনে লেগে একটা ক্যাচ উঠেছিল লাঞ্চের পর, সেটা পড়েছে নো-ম্যানস-ল্যান্ডে।


     

    লাঞ্চ, প্রথম দিন, বাংলাদেশ ১২২/২ সাদমানের সঙ্গে শেষদিকে মুমিনুলের উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ, তবে প্রথম দিন লাঞ্চে যাওয়ার কথা তাদের খুশি হয়েই। এর মূল কৃতিত্ব তামিম ইকবালের, সাদমানের সঙ্গে ৫৭ রানের পর মুমিনুলের সঙ্গে ৫৪ রানের জুটি গড়েছেন তিনি। অপরাজিত আছেন ৮৬ রানে, খেলেছেন রানের চেয়ে এক বল কম। চারজন পেসারের সঙ্গে স্পিনারকেও এনেছে নিউজিল্যান্ড।  


    বাংলাদেশ ১২১/২ ওয়াগনার শর্ট বল করছিলেন শুরু থেকেই, মুমিনুল আপার-কাটে একটা ছয়ও মেরেছিলেন। তবে সেই শর্ট বলেই শেষটা হলো তার, রাউন্ড দ্য উইকেট থেকে করা শর্ট বলটা ছেড়ে দিতে গিয়েও পারলেন না মুমিনুল, গ্লাভসে লেগে ওয়াটলিংয়ের হাতে ধরা পড়লেন লাঞ্চের ঠিক আগে। 



    বাংলাদেশ ১০১/১ সেডন পার্কে টসে জিতে ফিল্ডিং নেওয়ার নিউজিল্যান্ডের সিদ্ধান্তটা আক্ষেপে পরিণত করছেন তামিম ইকবাল। দেড় ঘন্টার মাঝে চারজন পেসারকেই এনেছেন উইলিয়ামসন, তবে সুবিধা করতে পারেননি কেউই। তামিম আছেন ড্রাইভিং মুডেই। তামিম গেছেন সত্তরের ঘরে, ১০০ পেরিয়ে গেছে বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ডের মরার ওপর খাঁড়ার ঘা হয়ে এসেছে তামিমের ক্যাচ মিস, ৬৫ রানে নিজের বলে সেটা ফেলেছেন ডি গ্র্যান্ডহোম।


    বাংলাদেশ ৭৯/১, ১৩ ওভার শুরু থেকেই আক্রমণামত্মক ছিলেন তামিম, সাদমানের উইকেটও টলাতে পারেনি তাকে। ২৬তম ফিফটিটা তামিম ছুঁয়েছেন বোল্টকে টানা তিন চার মেরে, মাত্র ৩৭ বলে। সে ওভারে তামিম মেরেছেন আরও একটি চার। চার চারের দুইটি কাভার ড্রাইভে, একটি স্কয়ার লেগে, আরেকটি পয়েন্টের ওপর দিয়ে। তামিম যেন আছেন অন্যরকম মুডে!


    বাংলাদেশ ৫৭/১ চিরন্তন এক ফাস্ট বোলিংয়ের কৌশলে ধরা পড়েছেন সাদমান। শর্ট বলের পরে ফুললেংথের ট্রিটমেন্টে। অবশ্য সেই ফুললেংথের সঙ্গে ছিল সুইং-ও। আগের বলে ট্রেন্ট বোল্টকে দারুণ আধিপত্যে পয়েন্ট দিয়ে চার মেরেছিলেন শর্ট অফ আ লেংথ বল থেকে, এর আগেও খেলেছিলেন এমন এক শট। তবে শট খেলার মানসিকতায় নড়বড়ে হয়ে গেল তার রক্ষণ, বোল্টের ফুললেংথ থেকে হালকা মুভমেন্ট করা বল মিস করে স্টাম্প হারালেন, ২৪ রান করে। 


    বাংলাদেশ ৩৪/০, ৭ ওভার,  শুরুটা ইতিবাচক করেছেন দুই ওপেনার- তামিম ইকবাল ও সাদমান ইসলাম। ২য় ওভারে টিম সাউদিকে দুই চার মেরেছেন তামিম, সাউদির তৃতীয় ওভারেও এসেছে দুই বাউন্ডারি। প্রথম ৩ ওভারে এই পেসার গুণেছেন ২৬ রান। বোল্টের বলে এসেছে একটি বাউন্ডারি, পুল করে সেটা মেরেছেন সাদমান। সেডন পার্কের উইকেটে এখনও সে অর্থে কোনও দানব জেগে ওঠেনি বাংলাদেশের জন্য। 


    হ্যামিল্টনে শোক

    চকবাজারে অগ্নিকান্ডে নিহতদের ও ক্রিকেট কোচ সৈয়দ আলতাফ হোসেনের স্মরণে কালো আর্মব্যান্ড পরে নামছে বাংলাদেশ। 


    বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে টসে জিতে ফিল্ডিং নিয়েছেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। টসে জিতলে তারাও এমনই করতেন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। 

    বাংলাদেশ দলে নেই পেসার মোস্তাফিজুর রহমান। নিজেদের সর্বশেষ টেস্টে উইন্ডিজের বিপক্ষে কোনও স্বীকৃত পেসার ছাড়াই নেমেছিল বাংলাদেশ, মোস্তাফিজ শেষ খেলেছিলেন সে সিরিজের প্রথম টেস্টে। হ্যামিল্টনে অভিষেক হচ্ছে এবাদত হোসেনের, বাংলাদেশের ৯৫তম টেস্ট ক্রিকেটার হচ্ছেন তিনি। তিনি ছাড়া বাকি দুই পেসার আবু জায়েদ ও খালেদ আহমেদ। একমাত্র স্পেশালিস্ট স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ। 

    এ টেস্টে বাংলাদেশ পাচ্ছে না তাদের নিয়মিত অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে, চোটের কারণে স্কোয়াডেই নেই তিনি। এ টেস্ট থেকে ছিটকে গেছেন মুশফিকুর রহিমও। 

    এর আগে দেশের মাটিতে টানা তিন টেস্ট জিতেছে বাংলাদেশ। তবে নিউজিল্যান্ডের আলাদা কন্ডিশনে সেটা কতোখানি অনুপ্রেরণা হতে পারে, প্রশ্ন সেটাই।