• ভারত-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ
  • " />

     

    • ভারত-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ

    কোহলির সেঞ্চুরি ছাপিয়ে শেষ হাসি খাওয়াজাদের

    তৃতীয় ওয়ানডে, রাঁচি
    অস্ট্রেলিয়া ৩১৩/৫, ৫০ ওভার (খাওয়াজা ১০৪, ফিঞ্চ ৯৩, কুলদিপ ৩/৬৪)
    ভারত ২৮১ অল-আউট, ৪৮.২ ওভার (কোহলি ১২৩, রিচার্ডসন ৩/৩৭, কামিন্স ৩/৩৭, জ্যাম্পা ৩/৭০)


    বিরাট কোহলির আরেকটি সেঞ্চুরি। এবার ব্যর্থ। অ্যারন ফিঞ্চের ফর্মে ফেরা, উসমান খাওয়াজার প্রথম ওয়ানডে সেঞ্চুরি। বা তারও আগে ভারত ক্রিকেটারদের বিশেষ ক্যাপ পরে নামা। অথবা তারও আগে নেওয়া ভারতের টসের সিদ্ধান্তটা পরে গিয়ে বুমেরাং হয়ে যাওয়া। রাঁচির ওয়ানডে ঘটনাবহুল। যেসব ঘটনার শেষে ফলটা বিপক্ষে ভারতের। সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে ভারতকে ৩২ রানে হারিয়ে সিরিজে ব্যবধান ২-১ এ নামিয়ে এনেছে অস্ট্রেলিয়া। 

    পুলওয়ামা আক্রমণে হতাহতদের স্মরণে ভারত এদিন নেমেছিল ‘সামরিক’ ডিজাইনের বিশেষ ক্যাপ পরে। টসে জিতে নিয়েছিল ফিল্ডিং, ম্যাচের পরেরভাগে শিশিরের কথা মাথায় রেখে। তবে শুরুতে দারুণ ব্যাটিং কন্ডিশনটা দারুণভাবে কাজে লাগিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার দুই ওপেনার- উসমান খাওয়াজা ও অ্যারন ফিঞ্চ। ৩২তম ওভারে গিয়ে ভেঙেছে ১৯৩ রানের জুটি, সেটাও আবার বিতর্কিতভাবে। 

    কুলদিপ যাদবের স্টক-ডেলিভারিটা মিডল স্টাম্পে পড়ে সোজা হয়ে গিয়ে লেগেছিল আড়াআড়ি খেলতে যাওয়া ফিঞ্চের প্যাডে। তবে বল ট্র্যাকিংয়ে সে পিচিং দেখানো হয়েছে লেগস্টাম্পে, যেটা গিয়ে ভেঙেছে স্টাম্প। ফিঞ্চের রিভিউ তাই ব্যর্থ হয়েছে, ঠিক জায়গায় বলের পিচিং হলে বল স্টাম্প মিস করে যেতো কিনা- প্রশ্ন সেটাই। ফিঞ্চ ফিরেছেন ৯৩ রানেই, ৯৯ বলে ১০ চার ও ৩ ছয়ে। নয় ইনিংস পর ফিফটি ছুঁলেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক। 

     

     

     

    খাওয়াজা অবশ্য ঠিকই পেয়েছেন সেঞ্চুরি। মোহাম্মদ শামির বলে ক্যাচ দেওয়ার আগে ১১ চার ও ১ ছয়ে ১১৩ বলে করেছেন ১০৪ রান। এরপর গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের ৩১ বলে ৪৭ রানের ঝড়ো ইনিংসের সঙ্গে মার্কাস স্টোইনিসের ২৬ বলে ৩১ ও অ্যালেক্স ক্যারির ১৭ বলে ২১ রানের ইনিংসে ৩১৫ পর্যন্ত গেছে অস্ট্রেলিয়া। কুলদিপ ৩ উইকেট নিতে খরচ করেছেন ৬৪ রান। 

    রানতাড়ায় শুরুতে ভাল চাপেই পড়েছিল ভারত, ২৭ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে। কোহলি ও ধোনির জুটি এরপর আশা জুগিয়েছে, অ্যাডাম জ্যাম্পা দিয়েছেন ব্রেকথ্রু। কোহলি আশা হয়ে ছিলেন এরপরও। তবে তার ৪১তম সেঞ্চুরি শেষ পর্যন্ত ভারতকে পার করাতে পারেনি, তিনিও বোল্ড হয়েছেন জ্যাম্পার বলে। তার আগে করেছেন ৯৫ বলে ১৬ চার ও ১ ছয়ে ১২৩ রান। কেদার যাদব, বিজয় শঙ্কর ও রবীন্দ্র জাদেজা ইনিংস শুরু করলেও শেষটা করতে পারেননি মনমতো। ভারতও আটকে গেছে ২৮১ রানেই। কামিন্স, রিচার্ডসন ও জ্যাম্পা- প্রত্যেকেই নিয়েছেন তিনটি করে উইকেট। 

     

     

    ৪১ সেঞ্চুরির মাঝে পরে ব্যাটিং করে এটি কোহলির ২৫তম। তবে হারা ম্যাচে এটি পরিণত হলো চার নম্বরে, যে রেকর্ডটা নিশ্চয়ই চাননি তিনি!