• বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ড সফর
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    সাউদির কাছ থেকে 'বাবল বল' শিখবেন রাহী

    নিউজিল্যান্ডে এখন বাংলাদেশ দলের এখন এমন অবস্থা, ইতিবাচক কিছু খুঁজে পাওয়াটাই এখন মুশকিল। ব্যাটিংয়ে তামিম আর মাহমুদউল্লাহ তাও একটু চেষ্টা করছেন, কিন্তু বোলিংয়ে অবস্থা আরও তথৈবচ। এক আবু জায়েদ রাহীই শুধু যা একটু চেষ্টা করছেন। ওয়েলিংটনে তিন উইকেট পেয়েছেন, তবে ভাগ্য ভালো হলে অন্তত আরও এক দুইটি পেতেই পারতেন। রাহী বললেন, বল নিয়ে টিম সাউদির সঙ্গে কাজ করবেন।

    ওয়েলিংটনে প্রথম স্পেলেই দারুণ বল করেছিলেন রাহী, টেলরকে অন্তত দুবার তুলে নিতে পারতেন এক ওভারেই। শেষ পর্যন্ত জীবন পেয়ে সেই টেলর পেয়েছেন সেঞ্চুরি। তবে রাহীর বোলিংয়ে উন্নতির ছাপ দেখা গেছে, নিজেও তা মানছেন, ‘এখনও একটা ম্যাচ বাকি আছে। আমার নিজের প্রতি বিশ্বাস জন্মেছে যে এখন বল সুইং করাতে পারি। আসলে আন্তর্জাতিক ব্যাটসম্যানদের বল খেলতে একটু কষ্ট করতে হচ্ছে। নিজের মধ্যে বিশ্বাসটি বৃদ্ধি পাচ্ছে। আসলে আমাদের নিজেদের পারফরম্যান্স থেকেও ফলাফলটি বেশি গুরুত্বপূর্ণ। দল যদি ফলাফল পেতো আরও বেশি ভালো লাগতো।'

    কিন্তু এভাবে ক্যাচ মিস না হওয়ায় কি একটু বেশি আক্ষেপ আছে? রাহী অবশ্য বড় করে দেখছেন না ব্যাপারটা, ‘ক্যাচ সবারই মিস হয়, সেটা স্বাভাবিক। হয়তো বা যে দুটি ক্যাচ মিস হয়ে গিয়েছে সেটা কপালে ছিলো না। এভাবেই আসলে নিয়েছি ব্যাপারটা। ’

     

     

    নিজের বোলিং নিয়ে ঠিক কী কাজ করছেন? রাহী বাবল বলের কথাটাই বললেন আলাদা করে, ‘ওয়ালশের সাথে আজকে কথা বলেছিলাম। এই জায়গায় কিছুটা উন্নতি হচ্ছে। কারণ এই জায়গায় সুইং আরেকটু বেশি পাচ্ছি বাংলাদেশ থেকে। আমার মনে হয় একটু উন্নতি হচ্ছে। আর বাবল বল যেটিকে বলে যেটি সাউদি প্রায় করে-সেটি নিয়েও হালকা কাজ করছি। বলটি অনেক ক্রস সিমের মতো। বলটাতে অনেকটা আউটসুইংয়ের মতো গ্রিপ থাকে। বলটা পড়ে একটু ইনসুইং করে। এটা শেখার চেষ্টা করবো। ম্যাচের শেষে আমি বলেছি যে সাউদির সাথে একটু বসবো।’

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন