• আইপিএল ২০১৯
  • " />

     

    • আইপিএল ২০১৯

    বিসিসিআইকে 'ব্ল্যাকমেইল' করছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া?

    উইমেনস আইপিএলে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটারদের ছাড়পত্র না দিয়ে বিসিসিআইকে ‘ব্ল্যাকমেইল’ করছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া- এমন মন্তব্য করেছেন বিসিসিআইয়ের এক কর্মকর্তা। আগামী মাসে আইপিএলে মেয়েদের তিনটি দলের চারটি ম্যাচ হবে, যেখানে বাংলাদেশের জাহানারা আলমসহ আছেন ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটাররা। অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকার কোনও ক্রিকেটার নেই, পাকিস্তানের সঙ্গে সিরিজ থাকবে বলে খেলতে পারছেন না দক্ষিণ আফ্রিকানরা। 

    আইপিএলে অস্ট্রেলিয়া থেকে সম্ভাব্য ক্রিকেটারদের মধ্যে ছিলেন এলিস পেরি, ম্যাগ ল্যানিং, অ্যালিসিয়া হিলিরা। তবে মে মাসের ৬ থেকে ১১ তারিখ হতে যাওয়া টুর্নামেন্টে তাদের অনুমতি দেয়নি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। এর পেছনে আগামী বছর ছেলেদের একটি ওয়ানডে সিরিজের সময়সূচি নিয়ে ঝামেলা বলেই জানিয়েছে টাইমস অফ ইন্ডিয়াইএসপিএনক্রিকইনফো। 

    এখনকার এফটিপি অনুযায়ী, ২০২০ সালের ১২, ১৫ ও ১৭ জানুয়ারি তিনটি ওয়ানডে খেলতে ভারত আসার কথা অস্ট্রেলিয়ার। তবে সে সময় তাদের দেশের ক্রিকেট মৌসুম, সে সিরিজ খেলতে আসলে কয়েক দশক পর কোনও ওয়ানডে সিরিজ ছাড়াই অস্ট্রেলিয়ান গ্রীষ্ম পার করতে হবে তাদের। এ কারণেই ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান নির্বাহী কেভিন রবার্টস বিসিসিআইয়ের প্রধান নির্বাহী রাহুল জোহরিকে সিরিজটি স্থগিত করে মার্চে নিয়ে যেতে অনুরোধ করেছিলেন। 

    তবে সেই মার্চে ভারতে ওয়ানডে সিরিজ খেলতে আসবে দক্ষিণ আফ্রিকা। আবার আইপিএলের আগে ১৫ দিনের একটা বিরতি ক্রিকেটারদের দিতে চায় বলেও অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে সে সিরিজ মার্চে আয়োজন করা সম্ভব নয় বলে সিএকে জানিয়েছে বিসিসিআই। আর এফটিপি নির্ধারণের সময় সবার সমঝোতাতেই এটি হয়েছিল বলে আর পরিবর্তন করা সম্ভব নয় বলেও দাবি তাদের। 

    তবে সে সিরিজ নিয়ে চলা সমস্যার সমাধান না হলে উইমেনস আইপিএলে ক্রিকেটারদের পাঠানো নিয়ে আলোচনা হবে না বলে এক ই-মেইলে বলেছেন সিএর অন্তর্বর্তীকালীন হাই পারফরম্যান্স হেড বেলিন্ডা ক্লার্ক। বিসিসিআইয়ের অনুরোধের জবাবে তিনি লিখেছেন, “উইমেনস আইপিএলের পরিকল্পিত অগ্রগতি নিয়ে বিস্তারতি জানানোর জন্য ধন্যবাদ। আমরা এই অনুরোধ রাখার মতো সমর্থ তখনই হবো, যখন ২০২০ সালে এফটিপি অনুযায়ী সিরিজটি নিয়ে সমস্যাটির সমাধান রাহুল ও কেভিন করবেন। আমি যেটা বুঝতে পারছি, এটা নিয়ে এখন কাজ চলছে।” 

     

     

    এই মেইলের জবাবে বিসিসিআই সিএকে একাধিকবার অস্ট্রেলিয়ার মেয়ে ক্রিকেটারদের এ টুর্নামেন্টে পাঠানোর অনুরোধ করলেও জবাব দেওয়া হয়নি কোনও। পরে অস্ট্রেলিয়ানদের ছাড়াই ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে তিনটি দল। এ নিয়ে বিসিসিআইয়ের এক কর্মকর্তা টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে বলেছেন, “যদি বেলিন্ডার মেইলের বিষয়টা দেখেন, এটা পরিস্কার যে তারা ব্ল্যাকমেইলের কৌশল সাজাচ্ছে। মেয়েদেরকে ছাড়পত্র দেওয়া কিভাবে ছেলেদের সিরিজের সঙ্গে সম্পর্কিত হতে পারে! এটা এফটিপিতেই সমঝোতা হয়েছিল, এখন তারা পিছিয়ে যাচ্ছে।”