• ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯
  • " />

     

    বিশ্বকাপে বেলা শেষের গান

     

    একে একে নিভিছে দেউটি। বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব শেষ হয়ে আসছে। অনেকেই বিদায় বলে ফেলেছেন এর মধ্যে। কেউ কেউ বিশ্বকাপকে, আবার কেউ কেউ ওয়ানডেকেই। সেমিফাইনালে হয়তো খেলবেন কেউ কেউ। এরপর শেষ হয়ে যাবে সব। ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় মঞ্চে আর দেখা যাবে না এদের।

    কেউ কেউ যেমন এর মধ্যে শুধু বিশ্বকাপকেই বিদায় বলেছেন। মাশরাফি বিন মুর্তজা নিশ্চিতভাবেই বলে দিয়েছেন এটা তার শেষ বিশ্বকাপ, ক্রিস গেইলও তাই। গেইল অবশ্য ওয়ানডে থেকেই বিদায় নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন, পরে সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছেন।

    আবার কেউ যেমন ওয়ানডে থেকেই বিদায়ের ঘোষণাই দিয়ে দিয়েছেন। ইমরান তাহির, জেপি ডুমিনি যেমন কাল জয় দিয়ে শেষ করেছেন ওয়ানডে ক্যারিয়ার, আগের দিন শোয়েব মালিককেও শেষ ওয়ানডেতে জয় উপহার দিয়েছে পাকিস্তান।

    কেউ আছেন যারা এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় বলেননি বিশ্বকাপকে। লাসিথ মালিঙ্গার জন্য ওয়ানডে থেকে বিদায় বলাই হয়তো সময়ের ব্যাপার। শোনা যাচ্ছে, দেশের মাটিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজেই বিদায় বলতে পারেন। ডেল স্টেইনের তো শুরু হতে না হতেই শেষ হয়ে গেল বিশ্বকাপ। বয়স হয়ে গেছে ৩৬, ওয়ানডেতেই সম্ভবত আর দেখা নাও যেতে পারে তাকে। চোটের সঙ্গে কম দিন আর লড়াই করছেন না।  ওয়াহাব রিয়াজও বলেননি কিছু, তবে ৩৪ বছর বয়সে একজন পেসারের পরের বিশ্বকাপ খেলাটাও  অনেক কঠিন। ফাফ ডু প্লেসিও কাল আভাস দিয়েছেন, আর বছর খানেক পর দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে রঙিন পোশাকে দেখা নাও যেতে পারে তাকে।

    আবার কেউ আছেন, যারা কেউ পরের বিশ্বকাপ হয়তো খেলেও ফেলতে পারেন। রস টেলরের বয়স এখন ৩৫, বিশ্বকাপটা ভালো না গেলেও তার আগে ছিলেন ফর্মে। চার বছর পরের আসরে থাকাটা অবশ্য অনেকই কঠিন। হাশিম আমলার বয়সও একই, ফর্মও নেই পক্ষে। শেষের ডাক শুনতে পাচ্ছেন তিনিও। ধোনির বয়স হয়ে গেছে ৩৮, নিশ্চিতভাবেই থাকছেন না পরের বিশ্বকাপে। বিদায়ী একাদশের মধ্যে তারই বিশ্বকাপটা শিরোপা জিতে শেষ করার সম্ভবত সবচেয়ে ভালো সুযোগ।