• ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯
  • " />

     

    আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে ক্ষোভ জানানো রয় এড়ালেন নিষেধাজ্ঞা

    দ্বিতীয় সেমিফাইনালে আম্পায়ারের ওপর ক্ষোভ ঝেড়ে ম্যাচ ফির ৩০ শতাংশ জরিমানা ও দুইটি ডিমেরিট পয়েন্টের শাস্তি পেয়েছেন ইংল্যান্ড ওপেনার জেসন রয়। ম্যাচে নিষেধাজ্ঞার মতো বড় কোনও শাস্তি হয়নি তার। প্যাট কামিন্সের বলে তাকে আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা ভুল আউট দেওয়ার পর বেশ ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ছিল রয়ের, সিরিয়াস কোনও শাস্তি হবে বলেও ধারণা করা হচ্ছিল।

    ৮৫ রানে ব্যাটিং করছিলেন রয়, এগুচ্ছিলেন সেঞ্চুরির পথেই। তবে কামিন্সের বাউন্সারে হুক করতে গিয়ে মিস করেছিলেন, অস্ট্রেলিয়ানদের আবেদনে সাড়া দিয়েছিলেন ধর্মসেনা। যদিও ধর্মসেনাকে দ্বিধাগ্রস্থ দেখাচ্ছিল, মাঝে আঙুল তুলতে দ্বিধাও করছিলেন। শেষ পর্যন্ত দিয়েছেন আউট। বিস্মিত রয় রিভিউ নিতে চেয়েছিলেন, তবে ইংল্যান্ডের রিভিউ এর আগেই খুইয়ে বসেছিলেন জনি বেইরস্টো। 

    দুই হাত তুলে রয় ওয়াইড হতে পারতো, এমন অঙ্গভঙ্গি করেছিলেন আম্পায়ার ধর্মসেনার দিকে। স্টাম্প মাইকে তার ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়াও শোনা গেছে। ক্রিজ ছাড়তে চাচ্ছিলেন না, ছেড়ে গেলেও তাকে দেখাচ্ছিল বেশ অখুশী। স্কয়ার লেগে দাঁড়িয়ে থাকা আম্পায়ার মারাইস এরাসমাস এসে তাকে কিছু বুঝাচ্ছিলেন, তাকে বুঝানোর তালিকায় যোগ দিয়েছিলেন জো রুটও। তবে যাওয়ার আগে ধর্মসেনার সঙ্গেও বাক্যবিনিময় হয়েছিল তার। ড্রেসিংরুমে গিয়েও গ্লাভস ছুঁড়ে মেরেছিলেন। 

    ম্যাচ নিষেধাজ্ঞার মতো বড় শাস্তির প্রসঙ্গও উঠেছিল তাই। তবে আইসিসি জানিয়েছে, কোড অফ কন্ডাক্টের ২.৮ ধারা ভঙ্গের দায়ে ৩০ শতাংশ জরিমানা ও দুইটি ডিমেরিট পয়েন্ট পাবেন তিনি। দুই বছরের মাঝে আরও দুইটি ডিমেরিট পয়েন্ট পেলে একটি সাসপেনশন পয়েন্ট পাবেন রয়, সেক্ষেত্রে একটি টেস্ট বা দুইটি ওয়ানডে বা দুইটি টি-টোয়েন্টিতে নিষিদ্ধ হবেন তিনি, সূচিতে যা ফরম্যাট আগে থাকবে, সেটিতেই পাবেন প্রথম নিষেধাজ্ঞা। 

    আইসিসি জানিয়েছে, শাস্তি মেনে নিয়েছেন বলে আনুষ্ঠানিক শুনানির প্রয়োজন পড়বে না। দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ধর্মসেনা-এরাসমাস ছাড়াও টিভি আম্পায়ার হিসেবে ছিলেন ক্রিস গ্যাফানি, চতুর্থ আম্পায়ার হিসেবে ছিলেন আলিম দার, ম্যাচ রেফারি ছিলেন রঞ্জন মাদুগালে। 

    এ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে উড়িয়ে দিয়ে ২৭ বছর পর বিশ্বকাপ ফাইনালে গেছে ইংল্যান্ড। শুরুতে অস্ট্রেলিয়াকে ২২৩ রানে বেঁধে ফেলার পর রয়-বেইরস্টোর ব্যাটিংয়ে দারুণ শুরু পেয়েছিল ইংল্যান্ড। এ পর্যন্ত টুর্নামেন্টে ৬ ইনিংসে ৪২৬ রান করেছেন তিনি। মাঝের চোট কাটিয়ে ফিরেছেন, নিষেধাজ্ঞার মতো কারণে ফাইনাল মিস করলে সেটা ইংল্যান্ডের জন্য হতো বিশাল এক ধাক্কাই। 

    আপাতত সেটা পাচ্ছে না ইংল্যান্ড।