• বাংলাদেশের শ্রীলংকা সফর
  • " />

     

    • বাংলাদেশের শ্রীলংকা সফর

    অবসরের প্রশ্নে ধোনিকে মনে করিয়ে দিলেন মাশরাফি

    অনুতাপ বা মন খারাপের ব্যাপারটা বললেন অনেক বারই। ঘুরে ফিরে অবসরের প্রশ্নও এলো, সেখানেও একটা ধোঁয়াশার পর্দা রেখে দিলেন। একটু তীর্যকভাবেই বললেন, শ্রীলংকা সফরে শেষ বারের মতো যাচ্ছেন, এটা নিশ্চিত। তবে নিজের অবসরের ভাবনা নিয়ে এত প্রশ্ন আর এত ঔৎসুক্যও স্বাভাবিকভাবেই নিচ্ছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা, এসবই জানিয়েছেন সংবাদ সম্মেলনে।

    শ্রীলংকার উদ্দেশে আগামীকাল শনিবার রওনা দেবে দল। তার আগে আজ ছিল রওনা দেওয়ার আগে অধিনায়কের বিদায়ী সংবাদ সম্মেলন। অবধারিতভাবে অবসরের প্রসঙ্গ উঠল, শ্রীলংকা সফরটাই শেষবারের মতো দেশের বাইরে কি না সেই প্রশ্নও হলো। মাশরাফিও সরাসরি কিছু বললেন না, ‘আমারটা আমি এখনো ওভাবে বলতে পারছি না। কারণ চিন্তা করিনি এখনো কিছু। খেলতে যাচ্ছি, ওখানে খেলারই চিন্তা করছি। আর এরপর অনেক দিন খেলাও নেই, এটাও একটা ব্যাপার। সেরকম কিছু হলে আসার পর চিন্তা করব। শ্রীলংকায় এটা আমাদের শেষ ট্যুর এটা বলতে পারি। যেহেতু আর খেলা নাই। আসার পরে হয়তো একটু সময় পাব, সময় নিয়ে চিন্তা করে... যেটা বললাম আপনাদের কাছে হয়তো বা একটু লেখালিখি করলেই শেষ, আমার কাছে হয়তো বা তা না। তো দেখা যাক।’

    কিন্তু অবসর নিয়ে চারদিকে এত গুঞ্জন, এত জিজ্ঞাসা- এই ব্যাপারটা কতটা স্বস্তিকর মাশরাফির জন্য। এসব কিছু পেশাদারিভাবে নিচ্ছেন বলেই দাবি মাশরাফির, ‘  সত্যি বললে আমি বিব্রতও হইনি আর এটা নিয়ে হতাশও না এটি নিয়ে। কারণ প্রত্যেকেই প্রত্যেকের কাজটাই করবে এটাই স্বাভাবিক। আমার সবকিছু বিবেচনা আপনারা করবেন। আপনাদের দিক থেকে সবকিছু বিবেচনা করবেন। তাই আপনাদের কাছে প্রশ্ন আসছে। মহেন্দ্র সিং ধোনির কথাই বলি। তাঁর ধারে কাছেরও প্লেয়ার নই আমি। তাঁর আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে ১০ হাজার রান। প্রতিটি প্রেস কনফারেন্সেই তাঁকে এই প্রশ্ন করা হয়। আমার কাছে মনে হয় এটাকে প্রফেশনালি দেখা উচিৎ। আমি এভাবেই দেখি। আমার জায়গাটা সবসময় পরিষ্কার। একজন খেলোয়াড় হিসেবে বিশ্বকাপে আমি নিজের সেরাটা পারফর্ম করতে পারিনি। ক্যাপ্টেন হিসেবেও সেরাটা দিতে পারিনি। সবার প্রত্যাশা ছিল দল সেমিফাইনালে যাবে। আমরা সেখানেও ব্যর্থ। প্রশ্নগুলো আসতেই পারে। আমি এভাবেই দেখছি আসলে। এর বেশি ভাবার সুযোগও নেই।’

    নিজের ব্যর্থতার কথা এর পর আবারও বলেছেন। মোস্তাফিজ, সাইফ উদ্দিন সফল হলেও নিজে যে পারেননি, সেটাও বলেছেন। তবে একই সঙ্গে এটাও বলেছেন, এমন অবস্থা থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর মনের জোর ও ক্ষমতা তার আছে। শ্রীলংকা সফর হবে সেটির বড় পরীক্ষা।