• অ্যাশেজ ২০১৯
  • " />

     

    অ্যাশেজ হারের পরেও অধিনায়কত্ব ছাড়বেন না রুট

    দীর্ঘ ১৮ বছর পর ইংল্যান্ডের মাটিতে অ্যাশেজ জিতে বাড়ি ফিরবে অস্ট্রেলিয়া। ঘরের মাঠে অ্যাশেজ খোয়ানোর পর ইংল্যান্ড অধিনায়ক জো রুটের পদত্যাগ করা নিয়ে তাই অনুমেয়ভাবেই কথা উঠেছে। ওল্ড ট্রাফোর্ডে দলের লেজের প্রতিরোধের পরেও শেষ পর্যন্ত হার বাঁচাতে পারেনি রুটের দল। ম্যাচের পর রুট বলছেন, সমালোচনা শুনলেও দলের নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়াবেন না তিনি। 

    অধিনায়ক হিসেবে টানা দুই অ্যাশেজ সিরিজে জয়ের মুখ দেখা হলো না রুটের। সমর্থক ও সাবেকদের সমালোচনার মুখেও নেতৃত্ব ছাড়তে রাজি নন রুট, ‘আমি অবশ্যই অধিনায়কের দায়িত্বটা পালন করে যাবো। আমাকে দারুণ একটা দলের নেতৃত্বের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আমি কঠোর পরিশ্রম করে সেটাকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে চাই। অ্যাশেজ সিরিজ হারা সবসময়ই হতাশার। কিন্তু এই হার থেকেও অনেক কিছু নেওয়ার আছে। শেষ দিনে যেভাবে সবাই লড়াই করেছে, সেটা অবশ্যই প্রশংসার যোগ্য। আমি তাদের নিয়ে গর্বিত।’ 

    এই সিরিজে রুটের ব্যাটেও ছিল না হাসি। চার ম্যাচ পর তার গড় ৩০.৮৭। এরই মাঝে তিনটি ‘ডাক’ মেরেছেন তিনি, যার মাঝে দুটিই গোল্ডেন ডাক। এক সিরিজে কোনো ইংলিশ অধিনায়কের এতো শূন্য রানের ইনিংস নেই। রুট যেখানে বর্ণহীন, অস্ট্রেলিয়ার স্টিভ স্মিথ পুরো সিরিজজুড়েই আলো ছড়িয়েছেন। 

     

     

    রুট মানছেন, স্মিথই দুই দলের পার্থক্যটা গড়ে দিয়েছেন, ‘স্মিথকে সরিয়ে রাখলে দুই দলের খুব একটা পার্থক্য নেই। তার বিপক্ষে বল করাটা খুব কঠিন। আমরা তাকে আউট করার উপায় খুঁজে পাইনি, এটাই আমাদের ভুগিয়েছে। পুরো সিরিজেই বোলাররা দাপট দেখিয়েছে। দুই দলেই অনেক অভিজ্ঞ ক্রিকেটার আছেন যারা পারফর্ম করেনি। আমাদের দলটা অনেক দিক দিয়েই অনভিজ্ঞ। আমাদের অনেক কিছুই দ্রুত শিখতে হবে। আমরা যতটা ভালো খেলতে চেয়েছিলাম ততোটা ভালো খেলতে পারিনি। এটা হতে দেওয়া যাবে না।’

     

    শেষ ম্যাচের ফলাফল অ্যাশেজ নির্ধারণে আর প্রভাব না ফেললেও টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের কথা মাথায় রেখেই ওভালে জয় চান রুট, ‘অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সব ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা গ্রীষ্মটা জয় দিয়েই শেষ করতে চাই। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের কথাও মাথায় রাখতে হবে। আমি জানি অ্যাশেজ আর ফিরছে না। তাও ওই ম্যাচের পয়েন্টটা গুরুত্বপূর্ণ।’