• চ্যাম্পিয়নস লিগ
  • " />

     

    ইন্টারের বিপক্ষেও অনিশ্চিত মেসি

    ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে এই মৌসুমে প্রথমবার একাদশে ছিলেন লিওনেল মেসি। ইনজুরি থেকে ফেরার এক সপ্তাহের মাঝে আবারও চোট পেয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন বার্সা অধিনায়ক। ম্যাচ শেষে বার্সা কোচ এরনেস্তো ভালভার্দে জানিয়েছিলেন, মেসির ইনজুরি গুরুতর নয়, ঝুঁকি নিতে চাননি বলেই তাকে প্রথমার্ধের সময় বদলি করা হয়েছিল। তবে পরবর্তীতে পরীক্ষার পর জানা গেছে, কুঁচকির ইনজুরির কারণে আরও বেশ কিছুদিন মাঠের বাইরে থাকতে হতে পারে মেসিকে। 

    বরুশিয়া ডর্টমুন্ড ও গ্রানাডার বিপক্ষে বদলি হিসেবে নেমেছিলেন মেসি। ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে প্রথম একাদশে থাকলেও ৩০ মিনিটের মাথায় আবার নতুন করে চোট পান। সেই চোট নিয়ে প্রথমার্ধ পর্যন্ত খেলে গেছেন তিনি। বার্সার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, কুঁচকিতে বেশ ভালোই টান লেগেছে মেসির, ‘মেসির বাম থাইয়ের কুঁচকিতে টান লেগেছে, মাংসপেশিও খানিকটা বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি কবে মাঠে ফিরতে পারবেন সেটা নির্ভর করবে এটা কমে আসার ওপরে।’ 

    অস্বস্তিতে মেসি, অস্বস্তিতে বার্সাও 

     

    স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমগুলো ধারণা করছে, মেসির সুস্থ হয়ে ফিরতে সপ্তাহখানেকের মতো সময় লাগতে পারে, সেটা বেড়ে হতে পারে দশদিনও। আগামী শনিবার গেটাফের বিপক্ষে হয়তো তাই নিশ্চিতভাবেই খেলতে পারবেন না মেসি। সামনের সপ্তাহের বুধবার ইন্টার মিলানের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচেও অনিশ্চিত বার্সা অধিনায়কের মাঠে নামা। 

     

     

    এই মৌসুমে প্রায় দুই মাসের মতো খেলতে পারেননি মেসি, সময়টা আরও বাড়ছে সামনের দিনগুলোতে। ২০০৬-০৭ মৌসুমে ইনজুরির কারণে ৮৭ দিন মাঠের বাইরে ছিলেন মেসি। ২০০৫-০৬, ২০১৩-১৪ ও ২০১৫-১৬ মৌসুমে ৫০ দিনেরও বেশি সময় বেঞ্চে বসেই কাটিয়ে দিতে হয়েছে তাকে।