• চ্যাম্পিয়নস লিগ
  • " />

     

    অন্তিম মুহূর্তের গোলে লোকোমোটিভকে হারিয়ে নকআউট পর্বে জুভেন্টাস

    তুরিনে আগের ম্যাচে লোকোমোটিভ মস্কোকে হারাতে রীতিমত কাঠখড় পোড়াতে হয়েছিল জুভেন্টাসকে। শেষ পর্যন্ত  পাউলো দিবালার জোড়া গোলে জয় পেয়েছিল তারা। তুরিনের মত মস্কোতেও মরিজিও সারির দলকে সমানে সমান টেক্কা দিয়েছে লোকোমোটিভ। কিন্তু শেষ মুহুর্তের গোলে কপাল পুড়েছে লোকোমোটিভের, এবার জুভেন্টাসের নায়ক ডগলাস কস্তা। যোগ করা সময়ে ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডের গোলে লোকোমোটিভকে ২-১ গোলে হারিয়ে শেষ ষোলর টিকেট নিশ্চিত করেছে জুভেন্টাস।

    দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে বাঁ-প্রান্ত থেকে দুর্দান্ত এক দৌড়ে লোকোমোটিভের দুই ডিফেন্ডারকে ছিটকে ফেলেন কস্তা। গঞ্জালো হিগুয়াইনের সাথে দুর্দান্ত এক ওয়ান-টু করে ডিবক্সে ঢুকেই বাঁ-পায়ের আলতো টোকায় গোল করে জয় নিশ্চিত করেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড। কস্তার গোলে হিগুয়াইনের ব্যাকহিল অ্যাসিস্টও ছিল দুর্দান্ত। শেষদিকে গোলে জয় পেলেও দ্বিতীয়ার্ধে আরেকটু হলেই পিছিয়েও পড়তে পারত জুভেন্টাস।

     

     

    শেষদিকের গোলে জয় পেলেও দ্বিতীয়ার্ধে আরেকটু হলেই পিছিয়েও পড়তে পারত জুভেন্টাস। ম্যাচের মিনিট দশেক বাকি থাকতে হোয়াও মারিওর শট লাইন থেকে দুর্দান্তভাবে ফিরিয়ে দেন লিওনার্দো বনুচ্চি। দ্বিতীয়ার্ধে জয়ের জন্য ছুটলেও কিছুটা বিস্ময়করভাবে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে উঠিয়ে নেন সারি, নামিয়ে দেন আগের ম্যাচের নায়ক পাউলো দিবালাকে। ম্যানেজারের সিদ্ধান্তে মাঠ ছাড়ার সময়ই নিজের অসন্তোষ প্রকাশ করেন রোনালদো। গত বিশ্বকাপের পর রোনালদোর রাশিয়ায় ফেরাটা তাই হয়েছে অম্লমধুর। ম্যাচের শুরুতেই তার ফ্রি-কিক নিয়ন্ত্রণে আনতে ভুল করেন লোকোমোটিভ গোলরক্ষক গিলের্মে। গোল লাইনের একেবারে সামনে থেকে আলতো টোকায় বল জালে পাঠান অ্যারন রামসি।

    অবশ্য সাবেক আর্সেনাল মিডফিল্ডার পা না ছোঁয়ালেও হয়তো বল জড়াতো জালে, উদযাপনের সময় ইঙ্গিতে তাকে সেটাই বলছিলেন রোনালদো। লিড নেওয়ার উল্লাস অবশ্য একেবারেই দীর্ঘস্থায়ী হয়নি জুভেন্টাসের। মিনিট দশেক পরই সমতায় ফেরে মস্কোর দলটি। বাঁ-প্রান্ত থেকে রিবাসের ক্রসে অ্যালেক্সি মিরানচুকের হেড প্রতিহত হয় জুভেন্টাস গোলের বারপোস্টে; কিন্তু ফিরতি বল জালে পাঠান তিনিই।

     

     

    তুরিনের পর এবার নিজেদের মাঠেও ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে গোল পেলেন মিরানচুক। সমতায় ফেরার পর জুভেন্টাসকে আরও চেপে ধরে লোকোমোটিভ। প্রথমার্ধের মাঝামাঝি সময়ে দলকে লিডও এনে দিতে পারতেন মিরানচুক, কিন্তু গোলের মাত্র গজ ছয়েক দূর থেকে হেড গোলে রাখতে পারেননি রাশিয়ান ফরোয়ার্ড। লিড হারানো জুভেন্টাস প্রতিপক্ষের প্রেসিংয়ে খেই হারিয়ে ফেলে একেবারেই। প্রথমার্ধে জুভেন্টাস রক্ষণভাগকে আরও কয়েকবার কাঁপিয়ে দিয়েছিল লোকোমোটিভ, কিন্তু দূর্বল ফিনিশিংয়ে লিড নেওয়া হয়নি তাদের।

    জুভেন্টাসের বিপক্ষে দুর্দান্ত এক প্রথমার্ধের পর সমর্থকদের জোর হর্ষধ্বনিতেই মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা। তবে দ্বিতীয়ার্ধে লোকোমোটিভকে চেপে ধরেছিল জুভেন্টাসই। রামসি-খেদিরা মাঝমাঠের দখল নিজেদের করে নেন, দুই ফুলব্যাক দানিলো এবং অ্যালেক্স সান্দ্রোও আক্রমণে কাঁপিয়ে দিচ্ছিলেন লোকোটিভকে। দ্বিতীয়ার্ধে মারিওর প্রচেষ্টা ছাড়া বাকিটা সময় আক্রমণে এগিয়ে ছিল জুভেন্টাসই। 

    কিন্তু প্রথমার্ধের ভুলের শাপমোচনটা দারুণভাবেই করেছেন গিলের্মে, দুর্দান্ত কিছু সেভে ফিরিয়ে দিয়েছেন হিগুয়াইন-রোনালদোদের। তবে শেষ পর্যন্ত তুরিনের মতই খালি হাতে ফিরতে হয়েছে তাদের। ৪ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে শেষ ষোলতে চলে গেল সারির দল।