• চ্যাম্পিয়নস লিগ
  • " />
    X

     

    শেষ ষোলতে যেতে কী করতে হবে লিভারপুল, ইন্টার, অ্যাটলেটিকো, ডর্টমুন্ডকে?

    ১০ এবং ১১ ডিসেম্বর মাঠে গড়াবে এই মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগে গ্রুপপর্বের শেষ ম্যাচডে। এরই আগে শেষ ষোলতে জায়গা নিশ্চিত করেছে রিয়াল মাদ্রিদ, প্যারিস সেইন্ট জার্মেই, জুভেন্টাস, ম্যানচেস্টার সিটি, অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। কিন্তু এখনও পরের রাউন্ডের টিকেট নিশ্চিত করতে পারেনি লিভারপুল, নাপোলির মত দলগুলো। শেষ ষোলর টিকেট পেতে ম্যাচডে ৬-এ কোন দলের সম্ভাবনা এবং সমীকরণ কেমন?


    গ্রুপ ‘এ’

    শেষ ষোলতে যারা: পিএসজি (গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন), রিয়াল মাদ্রিদ (রানার্স আপ)


    গ্রুপ ‘বি’

    শেষ ষোলতে যারা: বায়ার্ন মিউনিখ (গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন), টটেনহাম হটস্পার (রানার্স আপ)


    গ্রুপ ‘সি’

    শেষ ষোলতে যারা: ম্যানচেস্টার সিটি (গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন)

    টেবিল: (ম্যান সিটি ১১, শাখতার ৬, ডিনামো ৫, আটালান্টা ৪)

    ফিক্সচার

    ডিনামো-ম্যান সিটি

    শাখতার-আটালান্টা

    শাখতার দনেৎস্ক: নিজেদের মাঠে আটালান্টাকে হারালেই পরের রাউন্ড নিশ্চিত। ড্র করলেও সুযোগ থাকছে তাদের; যদি ম্যান সিটি, ডিনামো জাগ্রেবকে হারিয়ে দেয়।

    ডিনামো জাগ্রেব: ম্যান সিটির বিপক্ষে নিজেদের মাঠে জয়ের বিকল্প নেই তাদের। 

    আটালান্টা: শাখতারের মাঠে জয় পেলে এবং ডিনামো, সিটিকে হারাতে না পারলে পরের রাউন্ড নিশ্চিত।


    গ্রুপ ’ডি’

    শেষ ষোলতে যারা: জুভেন্টাস  (গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন)

    টেবিল: (জুভেন্টাস ১৩, অ্যাটলেটিকো ৭, লেভারকুসেন ৬)

    ফিক্সচার

    অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ-লোকোমোটিভ মস্কো

    বেয়ার লেভারকুসেন-জুভেন্টাস

    অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ: নিজেদের মাঠে লোকোমোটিভ মস্কোকে হারালেই পরের রাউন্ডে যাবে ডিয়েগো সিমিওনের দল।

    বেয়ার লেভারকুসেন: জুভেন্টাসকে বেয়ার অ্যারেনাতে হারাতেই হবে তাদের এবং লোকোমোটিভের সাথে অ্যাটলেটিকোর পয়েন্ট হারাতে হবে।


    গ্রুপ ‘ই’

    ফিক্সচার

    রেডবুল সালজবুর্গ-লিভারপুল

    নাপোলি-গেঙ্ক

    টেবিল: (লিভারপুল ১০, নাপোলি ৯, রেডবুল ৭)

    ১০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থাকলেও পরের রাউন্ডে যাওয়া নিশ্চিত নয় লিভারপুলের। রেডবুল সালজবুর্গের মাঠে হার এড়ালেই নিশ্চিত শেষ ষলর টিকেট। অবশ্য হেরেও পরের রাউন্ডে যেতে পারে লিভারপুল, সেক্ষেত্রে নিজেদের মাঠে গেঙ্কের কাছে হারতে হবে নাপোলির। নাপোলি জিতলেও সুযোগ থাকছে পরের রাউন্ডের সুযোগ থাকছে লিভারপুলের। নাপোলি, গেঙ্ককে হারালে এবং রেডবুলের মাঠে ‘অল রেড’রা ১-০, ২-১, ৩-২ ব্যবধানে হারলেও পরের রাউন্ডে যাবে লিভারপুল।

    গেঙ্কের সাথে ড্র করলে বা হারলেও পরের রাউন্ডে যাওয়ার সুযোগ থাকছে নাপোলির। সেক্ষেত্রে রেডবুলের মাঠে হার এড়াতে হবে লিভারপুলকে।

    তবে এর চেয়েও চমকপ্রদ ঘটনা ঘটতে পারে এই গ্রুপে। সালজবুর্গ, লিভারপুলকে হারিয়ে দিলে এবং গেঙ্ক, নাপোলির সাথে ড্র করলে শীর্ষ তিন দলেরই পয়েন্ট হবে ১০। সেক্ষেত্রে হেড টু হেড রেকর্ডে গ্রুপচ্যাম্পিয়ন হবে নাপোলি। রানার্স আপ হয়ে পরের রাউন্ডে যাবে রেডবুল। কারণ মিনি-লিগ গোল ব্যবধানে (নাপোলির সাথে দুই দলের) এগিয়ে আছে রেডবুল।

    টাই হলে অনুসরণ করা হবে যে নিয়ম

    ১. টাই হওয়া দলগুলোর মধ্যে হেড টু হেডে পয়েন্ট 

    ২. টাই হওয়া দলগুলোর মধ্যে হেড টু হেডে গোল ব্যবধান

    ৩. টাই হওয়া দলগুলোর হেড টু হেড ম্যাচে কোন দল কতো গোল দিয়েছে

    ৪. টাই হওয়া দলগুলোর মাঝে হেড টু হেড ম্যাচে অ্যাওয়ে গোল

    (ক্রমানুসারে)

    *এক্ষেত্রে গেঙ্ক থাকবে সমীকরণের বাইরে।


    গ্রুপ ‘এফ’

    শেষ ষোলতে যারা: বার্সেলোনা (গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন)

    ফিক্সচার

    বরুশিয়া ডর্টমুন্ড-স্লাভিয়া প্রাগ

    ইন্টার মিলান-বার্সেলোনা

    টেবিল: (বার্সেলোনা ১১, ইন্টার মিলান ৭, বরুশিয়া ডর্টমুন্ড ৭)

    ৭ পয়েন্ট আছে ইন্টার মিলান এবং বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের। পরের রাউন্ডে যেতে হলে শেষ ম্যাচে ডর্টমুন্ডের ফলাফল যা হবে, সেটাই রাখতে হবে ইন্টারকে। নিজেদের মাঠে স্লাভিয়া প্রাগকে ডর্টমুন্ড হারালে সান সিরোতে বার্সেলোনাকে হারাতে হবে ইন্টারের। 

    তবে ইন্টারের ফলাফল যেমনই হোক, শুধুমাত্র শেষ ম্যাচ থেকে ইন্টারের চেয়ে বেশি পয়েন্ট পেতে হবে ডর্টমুন্ডকে। সেক্ষেত্রে বার্সার সাথে ড্র বা হারতে হবে ইন্টারকে, এবং স্লাভিয়ার বিপক্ষে জিততেই হবে লুসিয়ান ফাভ্রের দলকে।


    গ্রুপ ‘জি’

    শেষ ষোল নিশ্চিত: আরবি লাইপজিগ (এখনও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়া নিশ্চিত নয় তাদের)

    ফিক্সচার

    বেনফিকা-জেনিট

    লিওঁ-লাইপজিগ

    টেবিল: (লাইপজিগ ১০, জেনিট ৭, লিঁও ৭, বেনফিকা ৪)

    লিঁওর মাঠ থেকে শেষ ম্যাচে ড্র নিয়ে ফিরলেই গ্রুপের শীর্ষস্থান নিশ্চিত হবে জার্মান ক্লাবের।

    লিঁও নিজেদের মাঠে লাইপজিগকে হারাতে না পারলে বেনফিকার মাঠে জয় বা ড্র করলেই পরের রাউন্ড নিশ্চিত জেনিট সেইন্ট পিটার্সবুর্গের। বেনফিকার মাঠে হারলেও পরের রাউন্ডের সম্ভাবনা আছে জেনিটের। সেক্ষেত্রে লাইপজিগের কাছে হারতে হবে লিঁওকে।

    লাইপজিগকে হারালেই পরের রাউন্ড নিশ্চিত লিঁওর। জেনিট বেনফিকার মাঠে হারলে লাইপজিগের সাথে ড্র করলেও হবে ফ্রেঞ্চ ক্লাবটির। জেনিট এবং লিঁও নিজেদের ম্যাচ জিতলে শীর্ষ তিন দলেরই পয়েন্ট হবে ১০। লিভারপুলের গ্রুপের মত একই নিয়মে তখন শেষ ষোলতে হবে লিঁও এবং লাপইজিগ। 


    গ্রুপ ‘এইচ’

    ফিক্সচার

    আয়াক্স-ভ্যালেন্সিয়া

    চেলসি-লিলে

    টেবিল: (আয়াক্স ১০, ভ্যালেন্সিয়া ৮, চেলসি ৮)

    নিজেদের মাঠে ড্র করলেই পরের রাউন্ড নিশ্চিত আয়াক্সের। অবশ্য ভ্যালেন্সিয়ার কাছে হারলেও শেষ ষোলতে যেতে পারে ডাচ চ্যাম্পিয়নরা। সেক্ষেত্রে লিলের কাছে পয়েন্ট হারাতে হবে চেলসির। 

    আয়াক্সের মাঠে জয়ের বিকল্প নেই ভ্যালেন্সিয়ার। ড্র করলেও শেষ ষোলতে যেতে পারে ‘লস চে’রা, যদি লিলের কাছে পয়েন্ট হারায় চেলসি।

    নিজেদের মাঠে লিলেকে হারাতেই হবে চেলসির। তবে ভ্যালেন্সিয়া, আয়াক্সের কাছে হেরে গেলে লিলের সাথে ড্র করলেও হবে চেলসির।