• বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    কিক অফের আগে : বুরুন্ডি বাধার আগে সতর্ক বাংলাদেশ

    কবে, কখন 
    বুরুন্ডি-বাংলাদেশ 
    বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ২০২০,  দ্বিতীয় সেমিফাইনাল
    ২৩ জানুয়ারি, বিকেল ৫.০০ 
    বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম 


    গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচের আগেই বড় সড় একটি ধাক্কা খেয়েছিল বাংলাদেশ। জামাল ভুঁইয়ার ইনজুরি, ইয়াসিন খানের জ্বর- এই দুইজনকে ছাড়াও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয় পেতে অবশ্য খুব বেশি কষ্ট করতে হয়নি বাংলাদেশকে। সেমিফাইনালে বুরন্ডির বিপক্ষে ম্যাচের আগে বাংলাদেশ জন্য সুসংবাদ হলো জামাল ভুঁইয়া দলে ফিরছেন। তবে ইয়াসিন খানকে পাচ্ছে না বাংলাদেশ। তপু বর্মনও শ্রীলঙ্কা বিপক্ষে লাল কার্ড দেখায় থাকবেন না সেমিফাইনালে। রক্ষণে অভিজ্ঞ ডিফেন্ডারদের অনুপস্থিতি  তাই এবারও ভাবাচ্ছে বাংলাদেশকে। 

    ভাবনাটা দুশ্চিন্তাই, কারণ এই বুরুন্ডির টুর্নামেন্টের সবচেয়ে বেশি গোল করা দল। দুই ম্যাচেই তারা দিয়েছে মোট ৭টি গোল। বুরুন্ডি যখন প্রতিপক্ষ তখন রক্ষণ নিয়ে বাংলাদেশের দুশ্চিন্তায় পড়াই স্বাভাবিক। বাংলাদেশ কোচ জেমি ডে অবশ্য ম্যাচের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে দলে বড় কোনো পরিবর্তনের ইঙ্গিত দেননি। “জামাল অধিনায়ক, ও ফিট থাকলেই একাদশে থাকবে। সে ফিটই আছে” - জামাল  যে ফিরছেন সেটা একরকম বলেই দিয়েছেন জেমি ডে। তবে রক্ষণে তপুর জায়গায় কে খেলবেন সেটা নিয়ে ধোঁয়াশা পরিষ্কার করেননি বাংলাদেশ কোচ। 

    অবশ্য ঝামেলা যতই থাক জেমি ডে সেটাকে অজুহাত হিসেবে দাঁড় করাচ্ছেন না। বলছেন দলে যে আসুক তাদেরকে সেরাটাই দিতে হবে। ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে বুরুন্ডি এগিয়ে থাকলেও নিজের দল সেরাটা দিতে পারলে ফাইনালে বাংলাদেশ খেলবে বলেই বিশ্বাস ডের। 

    বুরুন্ডি অবশ্য বাংলাদেশে এসেছে দ্বিতীয় সারির দল নিয়ে। গত বছর আফ্রিকান কাপ অফ নেশনসে খেলা দলটির কেউ নেই এই স্কোয়াডে। বেশির ভাগ খেলোয়াড়ই দেশটির অলিম্পিক দলের সদস্য। বুরুন্ডির ভবিষ্যৎ দলও এটি। জেমি ডে তাই জানেন কাজটা তার দলের জন্য কঠিনই। 

    অধিনায়ক জামাল ভুঁইয়া অবশ্য আশাবাদী। দেশের মানুষের কাছ থেকে সমর্থনও চাইছেন তাই তিনি। ঘরের মাঠের পুরো সমর্থন কাজে লাগিয়েই ফাইনালে উঠতে চান জামাল। তবে শ্রীলঙ্কাকে হারানোর পর সেমিফাইনালের আগে সতর্ক বাংলাদেশ অধিনায়ক, “শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জিতে আমাদের আত্মবিশ্বাস বেড়েছে। কিন্তু শ্রীলঙ্কার তুলনায় বুরুন্ডি ম্যাচ পুরোপুরি ভিন্ন। আমরা জানি, তাদের আক্রমণভাগ খুবই শক্তিশালী। তাই আগামীকাল আমাদের ম্যাচে মনোযোগ ধরে রাখতে হবে। কঠিন একটা ম্যাচ হবে কিন্তু জয়ের ব্যাপারে আমি আশাবাদী।”

    এসএ গেমসে হতাশার পর বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে ভালো করার একটা প্রছন্ন চাপ আছে বাংলাদেশের ওপর। জেমি ডে অবশ্য সেমিফাইনালে ওঠাকেই প্রাথমিক সাফল্য হিসেবে ধরতে চেয়েছিলেন। জামালের জন্য চাপ আলাদা কোনো প্রভাবক হয়ে দাঁড়াচ্ছেন না বলেই জানাচ্ছেন তিনি, “সবসময় চাপ থাকে এবং চাপ খেলারই অংশ। যদি আমরা ভালো খেলতে পারি, তাহলে জিতব। তাহলে আমরা আরও বড় কিছু অর্জন করতে পারব। র‍্যাঙ্কিংয়ে বুরুন্ডি আমাদের চেয়ে এগিয়ে, কিন্তু আমি মনে করি না, আগামীকালের ম্যাচে র‍্যাঙ্কিং কোনো বড় বিষয় হবে।”

    “তাদের পাসিং আটকাতে হবে আমাদেরকে। তা না হলে তারা গোল করবে। মিডফিল্ডারদের ভূমিকা রাখতে হবে। দলের বাকিদেরও নিজেদের কাজটুকু করতে হবে।”


    বুরুন্ডির দুই ফরোয়ার্ড নিশিমিরিমানা জসপিন তাম্বুই আমিসি মিলেই বুরুন্ডির হয়ে সাত গোলের ৫টি করেছেন বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে। কোচ বিপফুবসা জসলিনের জন্য সেটা ভরসা যোগানোরই কথা। তবে বুরুন্ডি কোচ আলাদা দুইজন খেলোয়াড়ের ওপর নির্ভর না করে দলীয় পারফরম্যান্সের ওপর জোর দিচ্ছেন। গ্রুপ পর্বের দুই ম্যাচে তার দল খেলেছে ৪-২-৩-১ ও ৩-৫-২ ফর্মেশনে। বাংলাদেশের বিপক্ষে বুরুন্ডি কোচ ইঙ্গিত দিয়েছেন নতুন কোনো ট্যাকটিকস অনুসরণের, “দুই ম্যাচে আমরা দুইরকম ফর্মেশনে খেলেছি। বাংলাদেশ কেমন খেলে সেটা আমরা জানি। তাদের বিপক্ষে কীভাবে খেলতে হবে সেটাও আমরা নির্ধারণ করেছি।” 

    সেমিফাইনালের উত্তেজনা অবশ্য আরেক প্রস্থ রঙ চড়ছে হুলিও সিজারের আগমনে। সাবেক ব্রাজিল ও ইন্টার মিলান গোলরক্ষক এই ম্যাচটি দেখতেই ঢাকায় এসেছেন এরই মধ্যে। 

    হেড টু হেড
    এর আগে কখনোই বুরুন্ডি আর বাংলাদেশ মুখোমুখি হয়নি। প্রথমবারের মতো একে অপরের বিপক্ষে খেলছে তারা। 

    বাংলাদেশ সম্ভাব্য একাদশ
    আশরাফুল ইসলাম রানা, বিশ্বনাথ ঘোষ, রিয়াদুল হাসান রাফি, সুশান্ত ত্রিপুরা, রহমত মিয়া, মানিক হোসেন মোল্লা, জামাল ভুঁইয়া, সোহেল রানা, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, সাদ উদ্দিন, মতিন মিয়া 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন