• বাংলাদেশের পাকিস্তান সফর
  • " />

     

    নেট সেশন : পাকিস্তানকে কীভাবে 'হ্যালো' বলবে বাংলাদেশ?

    ১ম টি-টোয়েন্টি
    পাকিস্তান-বাংলাদেশ

    কবে, কখন
    ২৪ জানুয়ারি, ২০২০
    বাংলাদেশ সময় ৩.০০ (১৫০০)


    ডলার মাহমুদ প্যাভিলিয়নের ছবিটা শেয়ার করেছেন নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডির টাইমলাইনে, ‘সেইসব স্মৃতি’ ক্যাপশন দিয়ে। শেষ যেবার পাকিস্তানে গিয়েছিল বাংলাদেশ, সেই ২০০৮ সালের এশিয়া কাপের স্কোয়াডের ছবি ছিল সেটি। ৭ ওয়ানডের শেষটি ডলার খেলেছিলেন ২০০৯ সালের অক্টোবরে। সে বছরই পাকিস্তান থেকে নির্বাসনে গিয়েছিল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট, লাহোরে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটার ও ম্যাচ অফিশিয়ালদের বাসে সন্ত্রাসী হামলার পর থেকে।  

    আবার ফিরতে শুরু করেছে পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। শ্রীলঙ্কা দুই দফায় টি-টোয়েন্টি ও টেস্ট খেলে আসার পর বাংলাদেশের পালা এবার। প্রায় মাসখানেক ধরে চলা অনিশ্চয়তা শেষে তিন দফায় এ সফরের সূচি চূড়ান্ত করা হয়েছে, যার প্রথম দফায় তিনটি টি-টোয়েন্টি। ২০০৮ সালের সেই পাকিস্তান সফরে সাকিব আল হাসান ছিলেন না, ব্যক্তিগত কারণে। এবারও তিনি নেই- নিষেধাজ্ঞার কারণে। 

    সেই স্কোয়াড থেকে এবার আছেন শুধু মাহমুদউল্লাহ- যিনি অধিনায়ক, সঙ্গে তামিম ইকবাল। সেবার মুশফিক ছিলেন, এবার তিনি নেই নিজেকে নিরাপত্তার কারণে সরিয়ে নিয়েছেন বলে। পাকিস্তান সফরে ঘুরেফিরে তাই আসছে নিরাপত্তার ব্যাপার। অবশ্য বিসিবি বলে এসেছে বরাবরই, নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে সন্তুষ্ট তারা। বাংলাদেশ ক্রিকেটারদের জন্য শুধু কড়া নয়, খুব কড়া নিরাপত্তার মাঝেই রাখছে পিসিবি। 
     


    নিরাপত্তার বলয় পেরিয়ে লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে ক্রিকেট হাজির হচ্ছে তাড়াতাড়িই। আইসিসি টি-টোয়েন্টি র‍্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বরে বলে খাতা-কলমে শীর্ষে পাকিস্তান। তবে সেই শীর্ষস্থানটা ঠিক যুতসই অবস্থায় নেই তাদের, ঘরের মাঠেই শ্রীলঙ্কার কাছে টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়াসহ শেষ ৪টি সিরিজই হেরেছে তারা, ২০১৯ সালে ৯টি টি-টোয়েন্টি খেলে জিতেছে একটিতে। ২০১৯ বাংলাদেশের জন্য অবশ্য ছিল মিশ্র। ৭ ম্যাচে ৩টি জয় ছিল তাদের, ভারতের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয়টা হাইলাইটস। 

    ভারত সিরিজ দিয়েই সাকিব ছাড়া খেলার ট্রায়াল হয়ে গেছে বাংলাদেশের, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বছরে এ সিরিজটা তাই ইঙ্গিত দিতে পারে। ওপেনিংয়ে তামিম ইকবাল ফিরছেন, এ পজিশনে বাংলাদেশের হাতে আছে বেশ কিছু অপশন। বোলিংয়ে বাংলাদেশ পেসনির্ভর এবার- আছেন পাঁচজন স্পেশালিস্ট। 

    পাকিস্তান স্কোয়াডে আছে বেশ কিছু নতুন মুখ। বিগব্যাশে আলো ছড়ানো হারিস রউফের সঙ্গে উসমান কাদির বা এমাদ বাট, এহসান আলির মতো ক্রিকেটাররা। আবার দলে ফেরানো হয়েছে শোয়েব মালিক, মোহাম্মদ হাফিজদের মতো অভিজ্ঞদেরও। অবশ্য তাদের অধিনায়ক মোটামুটি নতুন, বাবর আজমের নেতৃত্বে এখনও জেতেনি পাকিস্তান। 

    পাকিস্তানের কাছে সিরিজ যখন জয়খরা কাটানোর, বাংলাদেশের কাছে তখন এই ফরম্যাটটা আরেকটু নিজেদের করে নিয়ে বিশ্বকাপের দিকে এগিয়ে যাওয়ার। সিরিজ নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটিয়ে নিরাপত্তা বলয় পেরিয়ে কেমন হবে মাঠের ক্রিকেট?


    রঙ্গমঞ্চ
    গাদ্দাফি স্টেডিয়াম, লাহোর

    এ ভেন্যুতে বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি খেলেনি কখনও, ২০১৫ সালের আগে এ ফরম্যাট হয়নি এখানে। অবশ্য পাঁচটি ওয়ানডে খেলার অভিজ্ঞতা আছে বাংলাদেশের। টি-টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চ স্কোর ১৯৭, ২০১৭ সালে বিশ্ব একাদশের বিপক্ষে তুলেছিল পাকিস্তান। এমনিতে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বাতাসের প্রাধান্য বেশি, তবে সন্ধ্যার দিকে আছে বৃষ্টির পূর্বাভাস।  

    যাদের ওপর চোখ

    তামিম ইকবাল

    শুধু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নয়, তামিম ইকবাল ফিরছেন টি-টোয়েন্টিতেও। ২০১৮ সালের শেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচের পর আর এ ফরম্যাটে খেলেননি তিনি। বিপিএলে রান পেয়েছেন, তবে স্ট্রাইক রেট নিয়ে ছিল আলোচনা। সাকিবের পর মুশফিকও নেই বলে মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে ‘বাড়তি’ দায়িত্ব নিতে হবে তামিমকে, নিজের ফেরার দিনটা রঙিন করে রেখে সেটি করতে পারবেন তামিম? 


    হারিস রউফ

    বিগব্যাশ একটুও ফলো করলে তার নামটা জানেন আপনি। গতি দিয়ে মাতিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার টি-টোয়েন্টি লিগ, করেছেন হ্যাটট্রিকও। পাকিস্তান তাকে দলে ডাক দিতে দেরি করেনি খুব একটা, সুযোগ পেলে অভিষেকে লাহোরের মঞ্চটাও নিজের করে নিতে পারবেন তিনি? 

    সম্ভাব্য একাদশ

    মুশফিক নেই, তামিমের ফেরাও প্রায় নিশ্চিত বলে অন্তত দুটি পরিবর্তন ভারতের বিপক্ষে শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ থেকে আসবে বাংলাদেশের। 

    বাংলাদেশ
    তামিম ইকবাল, নাঈম শেখ, আফিফ হোসেন, লিটন দাস, মাহেদি হাসান, মাহমুদউল্লাহ, সৌম্য সরকার, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, মোস্তাফিজুর রহমান, আল-আমিন হোসেন, রুবেল হোসেন

    পাকিস্তান
    এহসান আলি, বাবর আজম, মোহাম্মদ হাফিজ, শোয়েব মালিক, ইফতিখার আহমেদ, ইমাদ ওয়াসিম, মোহাম্মদ রিজওয়ান, শাদাব খান, হারিস রউস, শাহিন আফ্রিদি, মোহাম্মদ হাসনাইন 


    সংখ্যার খেলা 

    • ২০১৬ সালে ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টির পর প্রথম এই ফরম্যাটে মুখোমুখি হচ্ছে দুই দল
    • ১০ ম্যাচে ২ বার পাকিস্তানকে হারিয়েছে বাংলাদেশ

    তারা বলেন 

    যদি আপনি র‍্যাংকিং, রেটিং নিয়ে ভাবেন সেটা আপনার খেলাকে প্রভাবিত করতে পারে। আমরা এটা নিয়ে ভাবছি না। আমরা জানি পাকিস্তান খুবই ভালো দল এবং টি-টোয়েন্টিতে তারা খুবই ধারাবাহিক একটি দল। সেটাই র‍্যাংকিংয়ে প্রতিফলিত হয়েছে। আপনি যদি আমাদের টি-টোয়েন্টি পারফরম্যান্সের গ্রাফ দেখেন তাহলে দেখবে এটা উর্ধ্বমূখী। সাম্প্রতিক সিরিজে আমরা যেমন ভালো করেছি সেটার ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চাই। ছেলেরা কঠোর পরিশ্রম করছে, আশা করছি ভালো পারফরম্যান্স দেখাতে পারবো।

    মাহমুদউল্লাহ, বাংলাদেশ অধিনায়ক