• বাংলাদেশের পাকিস্তান সফর
  • " />

     

    ব্যাটিং অর্ডারের 'হ-য-ব-র-ল' অবস্থার ব্যাখ্যা দিলেন ডমিঙ্গো

    দেখে মনে হবে, ওপেনিং জুটি যেন ভাঙছেই না বাংলাদেশের। তামিম-নাঈম-লিটন-আফিফ-সৌম্য, একের পর এক আসতেই আছেন। লিটন দাস ব্যাটিং করছেন চারে, সৌম্য আসছেন অনেক পরে। মাহেদি হাসানকে আজ পাঠানো হয়েছিল তিনে। ব্যাটিং অর্ডারের এই ধারা দুই ম্যাচের একটিতেও কাজে দেয়নি বাংলাদেশের। 

    ওপেনাররা শুরু করলেও দুজনই খেলেছেন প্রায় একই ধাঁচের ব্যাটিং, আজ নাঈম শেখ শুরুতে ফিরে যাওয়ার পর তামিমকে সে অর্থে লম্বা জুটিতে সঙ্গ দিতে পারেননি কেউই। ব্যাটিং অর্ডারের এমন পরিবর্তনগুলি কিছু জিনিস পরীক্ষা-নিরীক্ষার দেখার অংশ বলে জানিয়েছেন জাতীয় দলের হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। তারা খুঁজছেন ইনিংসের শেষদিকের বিগহিটার। আর বলছেন, পাকিস্তানের সঙ্গে স্কিলে বেশ বড় একটা ঘাটতি রয়ে গেছে তাদের। 

    লাহোরে দুই ম্যাচেই ব্যাটিংয়ে ঠিক সুবিধা করতে পারেনি বাংলাদেশ। মোমেন্টাম নিজেদের পক্ষে নিতে পারেনি, উইকেটের যা চাহিদা, তার চেয়ে কিছু রান কম করার খেসারত দিতে হয়েছে। ডমিঙ্গো বলছেন, এসব তাদের স্কিলের ঘাটতির ফল, “এ উইকেটে ব্যাটিং করা সহজ নয়, (তবে) ১৫৫ গড় স্কোর। প্রথম মায়চে ১৫, আর আজ ২৫ রানের মতো কম করে ফেলেছি আমরা। তবে এ কারণেই তারা র‍্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর, আর আমরা নয় নম্বর। এই মুহুর্তে দুই দলের মাঝে অভিজ্ঞতা ও স্কিলে বেশ একটা ঘাটতি রয়ে গেছে, তাদেরকে ধরতে আমাদের লম্বা একটা পথ পাড়ি দিতে হবে।” 

    পাওয়ার হিটিংয়েও বাংলাদেশের ঘাটতি আছে উল্লেখ করে ডমিঙ্গো বলেছেন, সৌম্যকে কেন নীচের দিকে পাঠানো হয়েছে, “সৌম্য ওপরের দিকে ব্যাটিংয়ের অনেক সুযোগ পেয়েছে, আমার মনে হয় সে অসাধারণ ক্রিকেটার। আমরা খোঁজার চেষ্টা করছি, ইনিংসের শেষদিকে কে মাঠের বাইরে বল পাঠাতে পারে, বাংলাদেশের এমন ব্যাটসম্যানের ঘাটতি সবসময়ই রয়ে গেছে। আমরা তাই দুই-একটি ব্যাপার বাজিয়ে দেখার চেষ্টা করছি।” 

    দ্বিতীয় ম্যাচে সৌম্য নেমেছিলেন ১৮তম ওভারে, ৫ম ব্যাটসম্যান হিসেবে তামিম আউট হওয়ার পর। অবশ্য নামার পরপরই টান লেগেছিল তার, ডেকেছিলেন ফিজিওকেও। শেষ পর্যন্ত সমানসংখ্যক বলে ৫ রান করে অপরাজিত ছিলেন তিনি। 

    ডমিঙ্গো বলেছেন, “লিটন সাধারণত ওপেন করে, তবে এখানে সে চার নম্বরে ব্যাতিং করছে, হয়তো এটি তার পজিশন নয়। সৌম্য ওপেন করে, তবে আমাদের বেশ কিছু ওপেনিং ব্যাটসম্যান আছে। আমরা ভিন্ন ভিন্ন কিছু কম্বিনেশন দিয়ে দেখার চেষ্টা করছি, তারা এই ভূমিকায় পারে কিনা। আমরা সৌম্যর মতো অসাধারণ ব্যাটসম্যানকে দেখতে চাই, সে ইনিংসের শেষদিকে খেলতে পারে কিনা।”

    সাকিব-মুশফিকের সঙ্গে সাইফউদ্দিন মতো ক্রিকেটারকেও- যিনি চোটের কারণে বাইরে- মিস করছেন ডমিঙ্গো, "আমরা প্রথম পছন্দের তিন-চারজন ক্রিকেটারকে মিস করছি। সাইফউদ্দিনকে নতুন বলে, সে আট নম্বরে ব্যাটিং-ও করে। সাকিব নেই, আপনি হয়তো মুশফিকের কথাও ভাববেন। তবে তরুণদের জন্য এটি দারুণ সুযোগ। আপনাকে গভীরতাটা বাজিয়ে দেখতে হবে, কারণ এসব ক্রিকেটার তো আজীবন থাকবে না। নাঈম হয়তো আজ কিছু করতে পারেনি, তবে প্রথম ম্যাচে তো সামর্থ্য দেখিয়েছে, ভারতে দেখিয়েছে এর আগে। ফল হয়তো আমাদের জন্য ভাল হয়নি, তবে বাবর আজম বা মোহাম্মদ হাফিজকে দেখে তরুণরা যে দেখতে পারবে তাদেরকে কতদূর যেতে হবে- সেটি তো তারা বুঝতে পারছে। সব মিলিয়ে এটি আমাদের সবার জন্যই ভাল।" 

    এক ম্যাচ বাকি থাকতেই সিরিজ হেরে যাওয়ার পর তৃতীয় ম্যাচে স্কোয়াডে থাকা বাকিদের সুযোগ দিতে চান তিনি। ১৫ জনের স্কোয়াড থেকে এখন পর্যন্ত ম্যাচ খেলেননি ৩ জন- রুবেল হোসেন, নাজমুল হোসেন শান্ত ও হাসান মাহমুদ।