• বিসিএল ২০২০
  • " />

     

    রাব্বির সেঞ্চুরির পর শফিউলের এক ওভারে চার উইকেট

    ১ম দিন শেষে

    সাউথ জোন ২৬২ অলআউট 

    নর্থ জোন ১২ ওভারে ৪৬/৫


    দিনটা অনায়াসেই হতে পারত ফজলে মাহমুদ রাব্বির। সতীর্থদের সবাই যখন আসা যাওয়া করছেন, বিরুদ্ধ স্রোতে দাঁড়িয়ে দারুণ একটা সেঞ্চুরি করেছেন সাউথ জোনের এই ব্যাটসম্যান। কিন্তু নর্থ জোনের শফিউল ইসলাম শেষ বিকেলে এমনই তোপ ছুঁড়লেন, তাতে আড়াল হয়ে গেল সবকিছু। নিজের প্রথম ওভারেই চার উইকেট নিয়ে এলোমেলো করে দিয়েছেন সাউথ জোনকে। ৫ উইকেট নিয়ে শেষ করেছেন দিন।

    চট্টগ্রামে মেঘলা টসে জিতে বল করার সিদ্ধান্ত নেন নর্থ জোনের অধিনায়ক নাইম ইসলাম। সবুজাভ পিচে পেসারদের কিছু সাহায্য ছিল, শুরু থেকে সেটার ফায়দা নেওয়ার চেষ্টা করেছেন তাসকিন আহমেদ ও এবাদত হোসেন। তাসকিন উইকেট পেয়ে গেছেন দিনের প্রথম বলেই। শাহরিয়ার নাফীসকে করা বলটা ছিল অফ স্টাম্পের বাইরের পারফেক্ট লেংথে। ডিফেন্স করতে গিয়ে খোঁচা দিয়ে উইকেটকিপার লিটনকে ক্যাচ দিয়েছেন নাফীস, ফিরেছেন কোনো রান না করেই। তবে তাসকিনের চেয়েও এবাদত ছিলেন বেশ আঁটোসাঁটো, নিজের প্রথম ছয় ওভারের পাঁচটিই ছিল মেডেন। সেটির পুরস্কার পেয়েছেন শেষ পর্যন্ত, ভেতরের দিকে ঢোকা দারুণ এক বলে বোল্ড করেছেন এনামুল হক বিজয়কে।

    এরপর ফজলে রাব্বি ও শামসুর রহমান ভালোই খেলছিলেন। শামসুর দেখার মতো কিছু শটও খেলেছিলেন। ২০তম ওভারে তাসকিনের প্রথম বলে গালি দিয়ে চার মারলেন। কিন্তু পরের বলটা খেলতে গিয়ে বল টেনে নিয়ে এলেন স্টাম্পে, বোল্ড। ফিরলেন ২৭ রান করে। মাহমুদউল্লাহ ছিলেন, রাব্বির সঙ্গে তার জুটিতে রানও উঠেছিল। কিন্তু এরপর আরিফুরের বলে এলবিডব্লু হয়ে ফিরে গেলেন এক ওভার পর আল মিনকেও ফিরিয়ে দিলেন আরিফুল, ১৪৯ রানে ৫ উইকেট নেই সাউথ জোনের।

    তবে রাব্বি খেলছিলেন দারুণ সব শট। তাসকিন ও এবাদতের বলে পুল আর কাট করে চার মারলেন, চোখে লেগে থারা মতো স্ট্রেইট ড্রাইভও করেছেন। ৮২ বলে পেয়েছেন ফিফটি, এরপর হয়ে উঠেছেন আরও বেশি আগ্রাসী। প্রথম শ্রেণিতে নিজের অষ্টম সেঞ্চুরি পেয়েছেন ১৩৯ বলে, যার মানে পরের ফিফটির জন্য খেলতে হয়েছে মাত্র ৫৭ বল। সোহানকে নিয়ে ৭৩ রান যোগ করেছেন ওভারপ্রতি পাঁচেরও বেশি রান রেটে। শেষ পর্যন্ত ১৬৪ বলে ১২৫ রান করে আউট হয়ে গেছেন তানভীরকে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে এবাদতের ক্যাচ হয়ে। এরপর নর্থ জোনের সুমন খানের তোপে দ্রুত গুটিয়ে গেছে সাউথ জোন। নুরুলকে প্রথমে বোল্ড করেছেন সুমন , পরে আউট করেছেন কামরুল রাব্বি ও শফিউল ইসলামকে। আর তাতেই ২৬২ রানে অলআউট হয়েছে সাউথ জোন।

    তবে নর্থ জোনের শুরুটা হয়েছে দুঃস্বপ্নের মতো। শফিউলের প্রথম বলটা ছিল ভেতরের দিকে, লাইন মিস করে এলবিডব্লু লিটন। পরের বলে পুল করে দুই রান নিলেন জুনবাইদ সিদ্দিক। কিন্তু এর পরের বলেই লাইন মিস করে বোল্ড জুনাইদ। স্ট্রাইকে মিজানুর, এবার শফিউলের সুইং বুঝতে না পেরে তিনিও হয়ে গেলেন বোল্ড। নাঈম ইসলাম পরের বলে নিলেন ২ রান, হ্যাটট্রিক ঠেকালেন। কিন্তু শেষ বলে সুইং আর পেসে পরাস্ত হয়ে তিনিও বোল্ড। তিনটি বোল্ডেই শফিউলের বলে ডিগবাজি খেয়েছে স্টাম্প, একজন বোলারের জন্য যা সবচেয়ে প্রার্থিত। ৪ রানে ৪ উইকেট হারানোর পর সানজামুল ও রনি তালুকদার বিপর্যয় সামাল দিয়েছেন, পঞ্চম উইকেটে যোগ করেছেন ৪২ রান। এরপর সানজামুলকে আউট করে পেয়েছেন আরেকটি উইকেট, এবারও বোল্ড। ৪৬ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে দিন শেষ করেছে নর্থ জোন।