• বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্কুল ক্রিকেট
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    সাইদুলের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে বিধ্বস্ত যশোরের উপশহর হাই স্কুল

    লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৬১ রানের। ক্রিকেটীয় বিচারে যা মাঝারি মানের লক্ষ্যমাত্রা বলেই বিবেচিত। তবে এবারের প্রাইম ব্যাংক প্রেজেন্টস বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্কুল টুর্নামেন্টের হিসাবে বেশ বড়ই, কোন জেলাতেই যে বড় স্কোর হচ্ছে না! আজ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে যশোর পর্যায়ের খেলায় বাদশাহ ফয়সাল নিউ টাউন স্কুলের ২৬১ রান তাড়া করতে নেমে যশোরের উপশহর হাইস্কুলের ইনিংস থুবড়ে পড়লো মাত্র ৫৩ রানে। ব্যাট হাতে সাইদুলের ফিফটির (৬৮) পাশাপাশি বল হাতে তার ৫ উইকেটের বদৌলতে ২০৭ রানের বড় জয় পেয়েছে বাদশাহ ফয়সাল নিউ টাউন স্কুল।

    সাইদুল বাদে ফিফটি পাননি কেউই। তারপরেও বাদশাহ ফয়সাল নিউ টাউন স্কুলের এত বড় স্কোর গড়ায় দায় আছে উপশহর হাইস্কুলের বোলারদের। ৬৪টি ওয়াইড সহ ৮০ রান অতিরিক্ত দিয়েছে তারা! রানতাড়া করতে নেমে শোয়েব আহমেদ (২৫) বাদে দুই অংকের দেখা পাননি কেউই। ১০ ওভার বল করে মাত্র ২০ রানে সাইদুল তুলে নেন উপশহরের ৫ জনকে, রাইসুল নেন ২টি উইকেট। বাকি তিনটি উইকেট ভাগাভাগি করে নেন আবেদ, আবরার ও তানজিদ।

    যশোরের প্রতিচ্ছবিই যেন হবিগঞ্জ। প্রায় একই রকম দৃশ্যপটে নামগুলিই শুধু ভিন্ন। পার্থক্য শুধু আনাম মিয়ার (১০১) অনবদ্য শতক। তিনি ছাড়া বড় রান পাননি আর কেউই, কিন্তু হবিগঞ্জ হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজের বোলাররাও অতিরিক্ত দিয়েছেন ৭৩টি! প্রথম ইনিংস শেষে আবু জহির হাইস্কুলের সংগ্রহ তাই ২৯৪ রানের পর্বতসম স্কোর। যা তাড়া করতে নেমে ৭৮ রানেই অলআউট হবিগঞ্জ হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজের ব্যাটসম্যানরা। মুহনের বোলিংয়ের উত্তর জানা ছিল না তাদের কারোরই, মাত্র ২৩ রানের বিনিময়ে মুহনের ঝুলিতে তাই ৬ উইকেট। আবু জহির হাইস্কুলের জয় ২১৬ রানের। সাতে নামা স্বপন (১৭) ও আটে নামা অয়ন (১১) দুই অংক না পেরোলে আরো বড় লজ্জাই অপেক্ষা করছিলো হবিগঞ্জ হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজের জন্য। 

    টাঙ্গাইলে আজ ৪ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়েছে টুর্নামেন্ট। উদ্বোধনী ম্যাচে জয় পেয়েছে সৃষ্টি একাডেমী স্কুল। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে কৌশিকের (৫৯) ব্যাটে ভর করে ৩৬.৪ ওভারে সব কয়টি উইকেট হারিয়ে তারা সংগ্রহ করে ১৯৪ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে বি.বি গভমেন্ট বয়েজ হাই স্কুল। শেষ পর্যন্ত ১৩০ রান করতেই সবকটি উইকেটের পতন হয় তাদের। ব্যাট হাঁতে ফিফটির পর বল হাঁতে ২ উইকেট নিয়ে ম্যান অফ দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন কৌশিক।

     

    উদ্বোধন হয়েছে টাংগাইল জেলার প্রতিযোগিতা

    মৌলভীবাজারে আবারও হয়েছে একপেশে ম্যাচ। এবারের জয়ী দল ভিক্টোরিয়া হাইস্কুল, ৯ উইকেটের বড় জয় তাদের। টসটাই শুধু জিতেছে মৌলভীবাজার আইডিয়াল কেজি অ্যান্ড হাইস্কুল। টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত বুমেরাং হয়ে যায় রাসেলের বোলিং তোপের মুখে। ২১.৩ ওভারে সব কয়টি উইকেট হারিয়ে মাত্র ৬৩ রানেই অলআউট হয় তারা। ৫ উইকেট পেয়েছে রাসেল, দু'টি উইকেট রাব্বির। রানিং বিটউইন দ্য উইকেটে বোঝাপড়াতেও সমস্যা আছে আইডিয়াল স্কুলের ব্যাটসম্যানদের, তিনটি রানআউট সেই কথাই বলে। ৬৪ রানের লক্ষ্যমাত্রা পেরোতে এক উইকেট হারালেও ৯.৩ ওভারের বেশি প্রয়োজন হয়নি ভিক্টোরিয়া হাইস্কুলের।

     

    ৫ উইকেট পেয়েছে ভিক্টোরিয়া হাইস্কুলের রাসেল

    লালমনিরহাটেও লালমনিরহাট গভমেন্ট হাইস্কুল জিতেছে ৯ উইকেটে। প্রথমে ব্যাট করে বর্ডার গার্ড পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ সব কয়টি উইকেট হারিয়ে করতে পারে মাত্র ১০৭ রান। আটে নামা শহীদুলের ৩৮ রানের ইনিংসটি না হলে বড় লজ্জাতেই পড়তে হতো তাদের। তবে ইনিংস সর্বোচ্চ ৩৯ রান এসেছে অতিরিক্তের খাত থেকে। জবাবে ফজলে রাব্বির অপরাজিত ফিফটির (৬৭*) সৌজন্যে এক উইকেট হারিয়ে ১৭.৩ ওভারে জয় তুলে নেয় লালমনিরহাট গভমেন্ট হাইস্কুল।

    মাদারীপুরে আলহাজ্ব আমিন উদ্দিন হাইস্কুলের জয় ৭ উইকেটের। প্রথমে ব্যাট করে আল জাবির হাইস্কুল সংগ্রহ করে মাত্র ৮৯ রান। ৩টি করে উইকেট নিয়েছেন রব্বানী ও ফয়সাল। ৯০ রানের ছোট লক্ষ্যমাত্রা টপকে যেতে ৩ উইকেট হারিয়ে ১৩.১ ওভারের বেশি প্রয়োজন হয়নি আমিন উদ্দিন হাইস্কুলের ছেলেদের। 

    পিরোজপুরেও বড় জয় পেয়েছে হুলারহাট হাইস্কুল। আশরাফুলের ৭১ রানের সুবাদে ডিআরএস স্কুলের ১৭৬ রানের লক্ষ্যমাত্রা মাত্র ৪ উইকেট হারিয়ে ৩১ ওভারেই পেরিয়ে যায় তারা।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন