• এএফসি কাপ
  • " />

     

    মাজিয়ায় 'অপরিচিত' বল, সমস্যা নেই আবাহনীর

    ঘরোয়া লিগে কস্কো, এএফসি কাপে মলটেন বল দিয়ে খেলেই অভ্যস্ত বাংলাদেশের ফুটবলাররা। এএফসি কাপের বাছাইপর্বেও কিছুদিন আগে মাজিয়ার বিপক্ষে আবাহনী খেলেছে মল্টেন বলে। মাজিয়ার বিপক্ষে বাছাইপর্বের প্রথম ধাপ পেরুতেই আবাহনীর জন্য অপেক্ষা করছে কঠিন পরীক্ষা। সেই পরীক্ষায় 'পরিচিত' বলও পাচ্ছে না আবাহনী খেলোয়াড়রা। তবে সেটা নিয়ে খুব বেশি চিন্তিতও নন আবাহনীর পর্তুগিজ কোচ মারিও লেমোস।

    এএফসি কাপের নিয়ম অনুযায়ী টুর্নামেন্টের বাছাইপর্বে বল সরাবরহ করার নিয়ম ওই দেশের ফেডারেশনের। সে নিয়মেই আবাহনী মালদ্বীপে পৌঁছে প্রথমদিন অনুশীলন করেছে অ্যাডিডাস টেলেস্টার এইটিন বল দিয়ে। ঘরের মাঠের প্রথম লেগে আবাহনী খেলেছে মলটেন বল দিয়ে। এএফসি কাপের মূল পর্বেও নিয়মিত খেলা হয় এই বলে। বাংলাদেশ বিশ্বকাপ বাছাই বা ঘরোয়া লিগেও সাম্প্রতিক সময়ে ব্যবহৃত হয়নি অ্যাডিডাস বল। অপরিচিত বলে ভড়কে যাবে না তো আবাহনী? 
     


    বল নতুন হলেও লেমোস অবশ্য প্যাভিলিয়নকে জানিয়েছেন সেটা বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়াবে না দলের জন্য। বরং এই বল পেয়ে খেলোয়াড়রা নাকি খুশিই হয়েছেন, “এখানে অ্যাডিডাস দিয়ে অনুশীলন করেছি আমরা। যদিও আমরা মল্টেন দিয়ে প্রথম লেগ খেলেছি। তবে মানের দিক দিয়ে অ্যাডিডাস আরও ভালো। আমার মনে হয় না এটা কোনো সমস্যা সৃষ্টি করবে। খেলোয়াড়রা বরং এই বল পেয়ে খুশিই হয়েছে।”

    ১২ তারিখ বাংলাদেশ সময় বিকাল ৫টায় মাজিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামবে আবাহনী। পর্তুগিজ কোচ জানিয়েছেন মালদ্বীপে বেশ গরম, সেখানের আবহাওয়ার সঙ্গে আপাতত মানিয়ে নেওয়ার কাজ সারছেন তারা। আবাহনী মালদ্বীপে প্রথমদিন অনুশীলন করেছে আর্টিফিসিয়াল টার্ফে। তবে মালদ্বীপ জাতীয় স্টেডিয়ামে মাজিয়ার বিপক্ষে ঘাসের মাঠেই খেলবে আবাহনী। ম্যাচের আগেরদিন সেখানে অনুশীলন করবে লেমোসের দল।

    এএফসি কাপ বাছাইপর্বে দ্বিতীয় লেগের ম্যাচে খেলতে আবাহনী মালদ্বীপ পৌঁছেছে রবিবার। দ্বিতীয় প্লে-অফে খেলতে হলে ঘরের মাঠে মালেতে জিততেই হবে আবাহনীকে, নইলে ড্র করতে হবে অন্তত ৩-৩ গোলে। প্রথম লেগে ম্যাচ ড্র হয়েছিল ২-২ গোলে।