• বুন্দেসলিগা
  • " />

     

    বুন্দেসলিগা : কবে, কখন, কোথায় দেখবেন?

    ইউরোপের শীর্ষ লিগগুলোর মাঝে সবার আগে ফিরছে বুন্দেসলিগা। করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় ২ মাস বিরতির পর আবারও পর্দা উঠছে ইউরোপিয়ান ফুটবলের।

    কবে শুরু হচ্ছে খেলা?

    আগামীকাল শনিবার, ১৬ মে থেকে মাঠে ফিরছে বুন্দেসলিগা। ইউরোপের অন্য সব লিগকে অনুসরণ করে গত ১৩ মার্চ থেকে স্থগিত হয়েছিল বুন্দেসলিগা। তবে ডিএফএল এবং জার্মান সরকারের অনুমতি সাপেক্ষে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার সব বিধান মেনে ৬ এপ্রিল থেকে ছোট পরিসরে অনুশীলন শুরু করে ক্লাবগুলো, যা পর্যায়ক্রমে পূর্ণাঙ্গ অনুশীলনে রুপ নেয়। চলতি মৌসুমে ফ্রাঙ্কফুর্ট এবং ওয়ের্ডার ব্রেমেন বাদে অন্য ক্লাবগুলোকে আরও ৯ টি ম্যাচ খেলতে হবে। আর ওই দুই ক্লাব খেলবে একটি করে বেশি ম্যাচ।

    বুন্দেসলিগার লক্ষ্য জুনের ভেতরই লিগ শেষ করে ফেলা।


    কোথায় হবে খেলা?

    ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে খেলোয়াড়দের ভ্রমণ জটিলতা এবং সমর্থকদের চাপ এড়াতে নিরপেক্ষ ভেন্যুতে খেলা আয়োজনের বিষয়ে প্রস্তাব করা হয়েছে। তবে বুন্দেসলিগা সেই পথে হাঁটছে না। প্রতিটি দল পূর্বের মতো নিজ নিজ হোম ভেন্যুতে খেলার সুযোগ পাচ্ছে। তবে সব ম্যাচই দর্শকবিহীন ফাঁকা মাঠে হবে।

    বাংলাদেশ থেকে যেভাবে দেখবেন খেলা?
    স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট টু/এইচডি তে দেখা যাবে বুন্দেসলিগার সব খেলা।


    ফিক্সচার


    ১৬ মে
    বরুশিয়া ডর্টমুন্ড-শালকে
    সন্ধ্যা ৭.৩০

    অসবার্গ-ভলফসবার্গ
    সন্ধ্যা ৭.৩০

    ডুসেলডর্ফ -পেডেরবর্ন
    সন্ধ্যা  ৭.৩০  

    হোফেনহাইম-হার্থা বার্লিন
    সন্ধ্যা ৭.৩০

    লাইপজিগ-ফ্রেইবুর্গ
    সন্ধ্যা ৭.৩০

    আইট্রাখট ফ্রাঙ্কফুর্ট-মনশেনগ্লাডবাখ
    রাত ১০.`৩০

    ১৭ মে
    কোলন-মাইঞ্জ
    সন্ধ্যা ৭.৩০

    ইউনিয়ন বার্লিন-বায়ার্ন মিউনিখ
    রাত ১০.০০

    ১৯ মে
    ভের্ডার ব্রেমেন-লেভারকুসেন
    রাত ১২.৩০


    বৈশ্বিক মহামারীতে কীভাবে খেলা শুরু করছে বুন্দেসলিগা?

    ইউরোপের শীর্ষ লিগগুলোর মাঝে সামাজিক দূরত্বের বিধি-নিষেধ মেনে সবার আগে অনুশীলন শুরু হয়েছিল বুন্দেসলিগায়। তবে দীর্ঘ সময় স্বাস্থ্য সুরক্ষা সম্পর্কিত সব নির্দেশনা মেনে চলার পরও গত সপ্তাহে সব ক্লাবে করোনা পরীক্ষার পর এফসি কোলনের ৩ খেলোয়াড়ের শরীরে করোনার অস্তিত্ব পাওয়া যায়। তবে এরপরও অনুশীলন বন্ধ করেনি লিগ কর্তৃপক্ষ। এখন থেকে লিগে কোনও খেলোয়াড় করোনায় আক্রান্ত হলে সেটিকে আর দশটি চোট সমস্যার মতোই দেখা হবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা। এতে করে কোনও খেলোয়াড় বা স্টাফ করোনায় আক্রান্ত হলে শুধু তাদেরই শুশ্রূষার জন্য সেলফ-আইসোলেশনে পাঠানো হবে।

    এখন থেকে খেলোয়াড় এবং স্টাফদের সপ্তাহে দুবার করোনা পরীক্ষা করা হবে। প্রতিটি ক্লাবের খেলোয়াড় এবং স্টাফদের ভেন্যুতে যাতায়াতের জন্য তিনটি বাস ব্যবহৃত হবে, যাতে সামাজিক দূরত্বের বিধান ঠিকঠাক মেনে চলা যায়। এছাড়া খেলোয়াড়রা পূর্বের মতো একসাথে মাঠে প্রবেশ করতে পারবেন না বরং পৃথকভাবে মাঠে প্রবেশ করতে হবে তাদের। আর খেলার আগে বা খেলা চলাকালে করমর্দনও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। জার্মান ফুটবল লিগ কর্তৃপক্ষের (ডিএফএল) ঘোষণা অনুযায়ী গত সোমবার পর্যন্ত বুন্দেসলিগায় খেলোয়াড় এবং স্টাফদের মোট ১৭২৪ টি করোনা পরীক্ষা করানো হয়েছে। এর মাঝে ১০ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

    চলতি মৌসুমের বাকি অংশের কী সমীকরণ?

    স্থগিত হওয়ার আগে বুন্দেসলিগায় এবারের মৌসুমটি বেশ প্রতিযোগিতামূলকভাবে এগুচ্ছিল। পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে ফেবারিট বায়ার্ন মিউনিখ ৪ পয়েন্টের লিড নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে আছে। তবে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড, লাইপজিগ, বরুশিয়া মনশেনগ্লাডবাখ এবং বায়ার লেভারকুজেনও খুব বেশি পিছিয়ে নেই। লিগে প্রথম তিনটি অবস্থান দখল করে থাকা বায়ার্ন, ডর্টমুন্ড এবং লাইপজিগের স্ট্রাইকাররা এবার রীতিমত গোলের পসরা সাজিয়েছেন বুন্দেসলিগায়। তিনটি দলই ২৫ ম্যাচ খেলে ৬০ টির বেশি গোল করেছে এখন পর্যন্ত। আর তাই মৌসুমের শেষভাগে বুন্দেসলিগায় বিনোদনের অভাব হয়ত হবে না।

    ১৮ দলের বুন্দেসলিগায় পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে থাকা দুই দল বুন্দেসলিগা টু-তে অবনমিত হয়। পয়েন্ট টেবিলের বর্তমান অবস্থা অনুযায়ী ওয়ের্ডার ব্রেমেন ২৪ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট এবং প্যাডারবর্ন ২৫ ম্যাচ ১৬ পয়েন্ট নিয়ে যথাক্রমে টেবিলের ১৭ এবং ১৮ তম অবস্থানে রয়েছে।