• চ্যাম্পিয়নস লিগ
  • " />

     

    লিসবনে 'মিনি টুর্নামেন্ট' দিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ শেষ করতে চায় ইউয়েফা

    চ্যাম্পিয়নস লিগ শেষ করতে এবার টুর্নামেন্টের ফরম্যাট বদলাতে পারে ইউয়েফা। নিরপেক্ষ ভেন্যু হিসেবে পর্তুগাল ও জার্মানির নামও প্রস্তাব করা হয়েছে। তবে জার্মান পত্রিকা বিল্ড বলছে, চ্যাম্পিয়নস লিগের ২০১৯-২০ মৌসুম শেষ করার জন্য পর্তুগালের লিসবনই এগিয়ে আছে আপাতত। এক শহরে আয়োজন সম্পন্ন করার জন্য প্রস্তাব করা হয়েছে 'মিনি টুর্নামেন্ট'। সেক্ষেত্রে কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বাকি সব নকআউট পর্বের ম্যাচ এক লেগেই নির্ধারণ হবে। এই ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসতে পারে জুনের শেষে ইউয়েফার বৈঠক থেকে। 

    মার্চের ১২ তারিখ দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলা পুরোপুরি শেষ না করেই স্থগিত ঘোষণা করা হয় চ্যাম্পিয়নস লিগ। ইউরোপে এরই মধ্যে ঘরোয়া লিগ শুরু হয়েছে বেশ কিছু দেশে, আরও অনেকেই খেলা শুরুর ক্ষণ গুণছে। তবে করোনাভাইরাসের পরস্থিতিতে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে এবার আর চ্যাম্পিয়নস লিগ আয়োজন সম্ভব কি না তা নিয়ে সংশয় আছে।

    এসব কারণেই নিরপেক্ষে ভেন্যু হিসেবে এগিয়ে আছে লিসবন। চ্যাম্পিয়নস লিগের এই পর্যায়ে পর্তুগালের কোনো দলও প্রতিনিধিত্ব করছে না। আর লিসবনে ৫ কিলোমিটার দূরত্বে দুইটি বিশ্বমানের স্টেডিয়াম থাকায় ইউয়েফাও পর্তুগালের কাছ থেকে পাওয়া প্রস্তাব বিবেচনা করে দেখছে।

    এ  বছর চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল হওয়ার কথা ছিল ইস্তাম্বুলে। বিল্ড বলছে, শুরুতে তুরস্ককে নিরপেক্ষ ভেন্যু হিসেবে বিবেচনা করা হলেও দেশটির কাছ থেকে সাড়া মেলেনি ইউয়েফার। তুরস্কের অর্থনৈতিক অবস্থা আর স্বাস্থ্য ঝুঁকির কথা মাথায় রেখে চ্যাম্পিয়নস লিগ আয়োজনে শেষ পর্যন্ত তাই দৌড়ে টিকে আছে জার্মানি ও পর্তুগাল।

    জার্মানিতে বিবেচনা করা হচ্ছে ফ্রাঙ্কফুর্টকে শহরকে। বিমানবন্দর থেকে স্টেডিয়াম কাছে এবং স্টেডিয়ামে সব ধরনের সুযোগ সুবিধা থাকায় সেখানেও হতে পারে চ্যাম্পিয়নস লিগের বাকি ম্যাচগুলো।

    অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ, আটালান্টা, পিএসজি ও লাইপজিগ চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে আগেই। এখনও বাকি আছে দ্বিতীয় লেগের বার্সেলোনা-নাপোলি, ম্যানচেস্টার সিটি-রিয়াল মাদ্রিদ, জুভেন্টাস-লিঁও, বায়ার্ন মিউনিখ-চেলসির ম্যাচ। 
     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন