• ক্রিকেট, অন্যান্য
  • " />

     

    দল থেকে বাদ দিয়ে ওয়ার্নের উপকারই করেছিলাম : স্টিভ ওয়াহ

    অস্ট্রেলিয়ার অন্যতম সফল অধিনায়ক স্টিভ ওয়াহ এবং সর্বকালের অন্যতম সেরা স্পিনার শেন ওয়ার্নের সম্পর্কটা যে ঠিক 'মধুর' নয়, তা এখন জানা কথাই। ওয়াহর অধীনে খেলে বিশ্বকাপও জিতেছেন ওয়ার্ন, তবে তাকে 'স্বার্থপর' বা 'বাজে অধিনায়ক' বলতে ছাড়েননি তিনি। ১৯৯৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ওয়াহ তাকে দল থেকে বাদ দিয়েছিলেন, ২০১৮ সালে প্রকাশিত নিজের আত্মজীবনী 'নো স্পিন'-এ ওয়ার্ন সে নিয়ে ক্ষোভ ঝেড়েছিলেন। অবশ্য ওয়াহ বলছেন, 'কঠিন সিদ্ধান্ত' হলেও সেবার বাদ দিয়ে ওয়ার্নের উপকারই করেছিলেন তিনি। 


    ইংল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক মাইকেল আথারটনের সঙ্গে স্কাই স্পোর্টস ক্রিকেটের ইউটিউব চ্যানেলে সাক্ষাৎকারে ওয়ার্নকে বাদ দেওয়ার কারণ জানিয়েছেন ওয়াহ নিজেই। অধিনায়ক হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজই প্রথম বিদেশ সফর ছিল তার। সে সময় অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটে নির্বাচকরা দল নির্বাচন করে দিলেও অ্যাওয়ে ট্যুরগুলোতে দলে তাৎক্ষণিক পরিবর্তনের ভার থাকত অধিনায়কের কাছে। আর অধিনায়কের দায়িত্ববোধ থেকেই দলের মঙ্গলের জন্য তখন সব সিদ্ধান্ত নেওয়ার চেষ্টা করেছেন ওয়াহ, “অধিনায়ক হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজে আমি প্রথম সফর করেছিলাম। অধিনায়ক হিসেবে কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়াই আমার কাজ। এজন্যই অধিনায়কের পদ দেওয়া হয়েছিল। আপনি সেই পদে থেকে কাউকে সন্তুষ্ট করার জন্য কোনও সিদ্ধান্ত নেবেন না। আমি খেলোয়াড়দের বিশ্বস্ত হওয়ার চেষ্টা করেছি, তবে আপনাকে দল এবং তাদের পারফরম্যান্সের দিকেও খেয়াল রাখতে হবে।”

    ওয়ার্নকে বাদ দেওয়ার আগে তার সঙ্গে আলোচনা করেছেন বলেও সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন ওয়াহ, “আমি ম্যাচের আগে শেনের সঙ্গে কয়েকটি বিষয় নিয়ে কথা বলেছিলাম। সে মাত্রই কাঁধের চোট থেকে ফিরেছিল। আমার কাছে মনে হয়েছে তাকে দ্রুত কামব্যাক করানো হয়েছিল। আগের টেস্টে শেন এবং স্টুয়ার্ট ম্যাকগিল দলে ছিল। তারা দুজনই একই কায়দায় বল ঘোরাচ্ছিল আর ব্রায়ান লারাসহ উইন্ডিজের সব বাঁহাতি ব্যাটসম্যানরা উইথ-দ্য-স্পিন খেলছিল। তখন আমার কাছে মনে হয়েছে, এটাই (ওয়ার্নকে শেষ টেস্টের দল থেকে বাদ দেওয়া) সঠিক সিদ্ধান্ত।”

    সেই ম্যাচে ওয়ার্নের বদলে কলিন মিলারকে একাদশে রেখেছিলেন ওয়াহ, আর ম্যাকগিল তো ছিলেনই। শেষ পর্যন্ত অ্যান্টিগা টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৭৬ রানে হারিয়ে ২-২ সমতায় সিরিজ শেষ করেছিল অস্ট্রেলিয়া।

    তার সিদ্ধান্তটি লোকের খুব একটা ভালো লাগবে না, সেটা ভালোই জানতেন ওয়াহ, “ঐ ম্যাচ হারলে আমাকেই কাঠগড়ায় তোলা হত। সৌভাগ্যক্রমে আমরা জিতেছিলাম এবং সিরিজও সমতায় নিয়ে আসতে পেরেছিলাম।”

    এছাড়া তার সিদ্ধান্তের ফলে পরোক্ষভাবে ওয়ার্নেরও তখন উপকার হয়েছিল বলেই মনে করেন ওয়াহ, “আর সিদ্ধান্তটিকে ভিন্নভাবে দেখলে বোঝা যাবে, আমি আসলে শেনকে বাঁচানোর চেষ্টাই করছিলাম। কারণ সে তখন ভালো বোলিং করছিল না। অবশ্যই ওয়ার্ন বিষয়টিকে এভাবে দেখেনি। তবে যদি আমরা সেই টেস্ট হেরে যেতাম, সেটা কিন্তু কারও জন্যই ভালো হত না।”

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন