• ভারতের অস্ট্রেলিয়া সফর
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    ব্রিসবেনে যেতে অস্বীকৃতি ভারতের, চতুর্থ টেস্ট অনিশ্চিত

    কোয়ারেন্টিন্টের নিয়ম আরও কঠিন করা হলে ব্রিসবেনে চতুর্থ টেস্ট খেলতে না যাওয়ার ‘হুমকি’ দিয়েছে ভারত। কুইন্সল্যান্ডে গিয়ে আবারও কঠোর লকডাউনের মাঝে থেকে তাদের চলাচল সীমাবদ্ধ করা হবে, এমন খবরের পর নিজেদের এই মনোভাব জানিয়েছে তারা। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ৭ তারিখ শুরু হতে যাওয়া তৃতীয় টেস্টের পর কুইন্সল্যান্ড যাওয়ার কথা তাদের। 

    সিডনি-- যেটি নিউ সাউথ ওয়েলসের অংশ-- আয়োজন করছে তৃতীয় টেস্ট। তবে এই রাজ্যের দক্ষিণ অংশে আবারও কোভিড-১৯ এর কমিউনিটি ট্রান্সমিশন ছড়িয়ে পড়ায় তাদের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ রেখেছে কুইন্সল্যান্ড। তবে ব্রডকাস্টিংয়ের একটা দলের সঙ্গে বিশেষে অনুমতি নিয়ে চার্টার্ড ফ্লাইটে সেখানে যাওয়ার কথা ভারতের। কিন্তু সেখানে গিয়ে লম্বা সফরের শেষে এসে আবারও কঠোর লকডাউনের মাঝে পড়তে চায় না তারা। 

    “যদি দেখেন, আমরা সিডনিতে আসার আগে দুবাইয়ে ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে ছিলাম, এখানে এসে আবারও তাই। মানে আমরা বাইরে বেরুনোর আগে প্রায় এক মাস কঠোর একটা বলয়ে ছিলাম। সফরের শেষে আবারও একটা কঠোর কোয়ারেন্টিনের ভেতর দিয়ে যেতে চাই না”, ক্রিকবাজকে বলেছে ভারত দলের একটি সূত্র। 

    অস্ট্রেলিয়া গিয়ে কোয়ারেন্টিন শেষের পর কিছু নিয়ম থাকলেও মোটামুটি সে দেশের নাগরিকদের মতোই সুবিধা পেয়েছে ভারতীয় দল। যদিও সম্প্রতি রোহিত শর্মাসহ ৫ জন ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে প্রটোকল ভাঙার অভিযোগ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। নিয়ম অনুযায়ী, আউটডোর রেস্তোঁরায় খেতে যাওয়ার অনুমতি থাকলেও মেলবোর্নে তারা একটি ইনডোর রেস্তোঁরায় খেতে গেছেন, এমন একটা ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। 

    সিডনিতে তৃতীয় টেস্ট হওয়া নিয়েও সংশয় ছিল। তবে এসসিজিতে শেষ পর্যন্ত ২০ হাজার দর্শক প্রবেশাধিকার পাবেন বলেই জানানো হয়েছে। 

    ভারত দলের ওই সূত্রমতে, কঠোর কোয়ারেন্টিনের বদলে তারা অন্য যে কোনো শহরে শেষ টেস্ট খেলতে রাজি, “যদি হোটেলে আবারও আটকে থাকতে হয়, তাহলে আমরা ব্রিসবেনে যেতে আগ্রহী নয়। এর বদলে অন্য কোনো শহরে খেলতে আপত্তি নেই। এখানেই আমরা সিরিজ শেষ করে ঘরে ফিরতে পারি”, বলেছে ওই সূত্র। 


     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন