• চ্যাম্পিয়নস লিগ
  • " />

     

    কিক অফের আগে: সুয়ারেজদের সামনে তুখেলের চেলসি, লাৎসিওর সঙ্গে প্রথম দেখা বায়ার্নের

    কিক অফের আগে: সুয়ারেজদের সামনে তুখেলের চেলসি, লাৎসিওর সঙ্গে প্রথম দেখা বায়ার্নের    

    কবে কখন

    চ্যাম্পিয়নস লিগ শেষ ১৬, অ্যাটলেটিকো-চেলসি

    ২৪ ফেব্রুয়ারি, রাত দুইটা

    বুখারেস্ট

     

    মাসখানেক আগে হলেও এই ম্যাচের পাল্লা একদিকে অনেক বেশি হেলে থাকত। এই তো, কিছুদিন আগেও চেলসি একের পর এক এক হারে ড্যবছিল, ওদিকে অ্যাটলেটিকো চলে যাচ্ছিল ধরাছোঁয়ার বাইরে। এরপর ফ্রাংক ল্যাম্পার্ড চলে গেলেন, এলেন টমাস তুখেল। চেলসির ভাগ্য বদলে গেল জাদুমন্ত্রের মতো, তুখেলের অধীনে সাত ম্যাচ খেলে এখনো অপরাজিত চেলসি। এর মধ্যে উঠে এসেছে লিগে পয়েন্ট তালিকার পাঁচেও। অন্যদিকে অ্যাটলেটিকোর যেন হঠাৎ করে ছন্দপতন হয়েছে। এই ম্যাচের আগে প্রস্তুতিটা একদমই ভালো হয়নি, লিগে হেরে এসেছে লেভান্তের কাছে। সব মিলে আজ একটা জমজমাট লড়াই হওয়ার কথাই।

    করোনা ভাইরাস আর চোট এই মৌসুমে সব দলের জন্যই সমস্যা হয়ে এসেছে। অ্যাটলেটিকোরও সেই সমস্যা আছে। চোটের জন্য যেমন সিমি ব্রাসালকো, ইয়ানিক কারাসকো, হোসে হিমেনেজদের পাচ্ছেন না সিমিওনে, তেমনি করোনা পজিটিভ হওয়ার জন্য নেই হেক্টর হেরেরা। ওদিকে বেটিং-কেলেংকারির জন্য এখনো নিষিদ্ধ কিরেন ট্রিপিয়ের।

    সিমিওনের জন্য এর চেয়েও বেশি চিন্তার নাম ভেন্যু। করোনা সংক্রান্ত বিধিনিষেধের কারণে এই ম্যাচটা হচ্ছে বুখারেস্টে, নিজেদের মাঠে খেলার সুবিধা পাচ্ছে না অ্যাটলেটিকো। আগের সপ্তাহেই এই হোম অ্যাডভান্টেজ থেকে বঞ্চিত লাইপজিগ লিভারপুলের কাছে হেরেছিল, সিমিওনের জন্য তা একটু অস্বস্তির হতে পারে। তার ওপর নিজেদের মাঠে অ্যাটলেটিকোর রেকর্ডও দুর্দান্ত, চ্যাম্পিয়নস লিগ নকআউতে ১১টি হোম ম্যাচের মাত্র একটিতে গোল খেয়েছে তারা।

    তুখেলের জন্যও কিছুটা দুশ্চিন্তা হয়ে আছে চোট। থিয়াগো সিলভাকে পাচ্ছেন না আজ, তবে কাই হ্যাভার্টজ ও ক্রিশ্চিয়ান পুলিসিচকে ফিট পাচ্ছেন এই জার্মান। চেলসি সেই ২০১৩ সালে সর্বশেষ ১৬ পার হয়েছিল। আরেকবার সেই কাজটা করার জন্য মুখিয়ে থাকবেন তুখেল।

    সম্ভাব্য একাদশ

    অ্যাটলেটিকো

    অবলাক, হারমোসো, সাভিচ,  ফেলিপ, লোদি, ইয়োরেন্তে, সল, কনদগবিয়া, কোকে, ফেলিক্স, সুয়ারেজ

     

    চেলসি

    মেন্ডি, আজপিলিকুয়েতা, রুদিগের, ক্রিশ্চিয়ানসেন, আলোন্সো, জেমস, জর্জিনহো, কান্তে, ভের্নার, মাউন্ট, আব্রাহাম।

     

    কবে কখন

    চ্যাম্পিয়নস লিগ শেষ ১৬, লাৎসিও-বায়ার্ন

    ২৪ ফেব্রুয়ারি, রাত ২টা

    রোম

    এই মুহূর্তে ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন তারা। বায়ার্ন মিউনিখ তাই লাৎসিওর বিপক্ষে নিরংকুশভাবেই ফেবারিট। তবে একটা কারণে বায়ার্ন কোচ হান্সি ফ্লিক একটু অস্বস্তিতে থাকতে পারেন। এই ম্যাচের আগে তাদের প্রস্তুতিটা ভালো হয়নি একদমই, হেরে এসেছে ফ্রাংকফুর্টের কাছে। তার আগের ম্যাচটাও ড্র করায় বায়ার্ন তাই শীর্ষে অতটা নিশ্চিন্তে নেই।

    এই মৌসুমে বায়ার্ন এখন পর্যন্ত আগের মতো অজেয় নয়। তার ওপর এই ম্যাচের আগে আছে চোট আর কোভিড সমস্যাও। কোরেন্তিন তোলিস নেই চোটের জন্য, আর টমাস মুলার কোভিড-পজিটিভ হয়ে এখন আইসোলেশনে আছেন। ফ্লিক অবশ্য এসব অজুহাত হিসেবে দাঁড় করাতে চান না। জানেন, লাৎসিওর সঙ্গে তার দলের না জেতার কারণ নেই।

    লাৎসিওর জন্য এই ম্যাচটা নতুন অভিজ্ঞতাই। সর্বশেষ চ্যাম্পিয়নস লিগের নকআউটে তারা উঠেছে ২১ বছর আগে,  যখন সিরি আ তে তারা ছিল বড় শক্তি। এরপর এবার নকআউট পর্ব পার হয়ে পড়ল বায়ার্নের সামনে। ইতালিয়ান দলের বিপক্ষে বায়ার্নের রেকর্ড অবশ্য দুর্দান্ত, সর্বশেষ পাঁচ ম্যাচেই তারা আছে অপরাজিত।

    সম্ভাব্য একাদশ

    বায়ার্ন

    নয়্যার, সুলে, বোয়াটেং, আলাবা, ডেভিস, মার্টিনেজ, কিমিখ, গোরেতকা, কোমান, সানে, লেভানডফস্কি

    লাৎসিও

    রেইনা, প্যাট্রিক, আসারবি, মুসাচ্চিও, লাজ্জারি, মিলিনকোভিচ-সাভিচ, লুকাস, আলবার্তো, মারুসিচ, কোরেয়া, ইম্মোবিলে।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন