• চ্যাম্পিয়নস লিগ
  • " />

     

    কিক অফের আগে: রামোস-টনিকে উজ্জীবিত রিয়ালের সামনে চেলসি বাধা

    কিক অফের আগে: রামোস-টনিকে উজ্জীবিত রিয়ালের সামনে চেলসি বাধা    

    চ্যাম্পিয়নস লিগ সেমিফাইনাল ২য় লেগ

    চেলসি-রিয়াল মাদ্রিদ

    স্টামফোর্ড ব্রিজ, রাত ১টা


    এই তো সপ্তাহ তিনেক আগেও জিনেদিন জিদানের উদ্বেগে রাতে ঘুম না হওয়ার মতো দশা ছিল। একের পর এক খেলোয়াড় ছিটকে যাচ্ছেন চোটে, একটা সময় স্কোয়াডে ১৫ জনের নাম ঘোষণা করাও একটা চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াচ্ছিল। চ্যাম্পিয়নস লিগের প্রথম সেমিতেও প্রথম পছন্দের অনেককে পাননি। অবশেষে জিনেদিন জিদান ফিরে পেয়েছেন অধিনায়ক রামোসকে, সেই সঙ্গে ভালভের্দে, মেন্ডি, হ্যাজার্ডদেরও।  প্রথম লেগে খানিকটা এগিয়ে থাকার পরও তাই আজ চেলসি স্বস্তিতে থাকবে সেটা বলার কোনোভাবেই উপায় নেই।

    ঘরের বাইরে ১-১ গোলে ড্র করে আসাটা সাফল্যই বলতে হবে চ্যাম্পিয়নস লিগে। ঘরের মাঠে আগের লেগে ফল উলটে দেওয়ার অনেক রেকর্ড আছে, সেখানে বার্সেলোনা, রোমা বা লিভারপুলের মতো মিরাকলও আছে। চেলসিকে তো দূরেও যেতে হচ্ছে না, আজ গোলশূন্য ড্র করলেই তাদের জন্য যথেষ্ট। কিন্তু দর্শকবিহীন মাঠে হোম অ্যাডভান্টেজের যে খুব ফায়দা নেই, সেটা থমাস তুখেল জানেন। সেজন্যই চেলসি কোচ জোর দিয়ে বলছেন, 'এই প্রতিযোগিতায় জয় ছাড়া অন্য কিছু ভাবার উপায় নেই। চেলসি মানেও আমরা জয়ই বুঝি। আগের লেগে কী হয়েছে, তাতে আজ কিছু আসে যায় না। সেটা ভুলে গিয়েই আমরা মাঠে নামব।'

    তুখেল জানেন, রিয়ালের চেয়ে বড় মঞ্চে নিজেদের মেলে ধরার মতো ক্লাব ইউরোপে আর নেই। জিদানের হ্যাটট্রিক চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপার গল্পও বেশিদিনের হয়নি। এই দলটা হয়তো ধারে ততটা এগিয়ে নেই, তবে আজকের ম্যাচের জন্য রামোস-টনিকটা খুব করেই চাওয়া ছিল তার। সেই মার্চের পর থেকে আর মাঠে নামতে পারেননি রামোস। তবে রিয়ালের প্রায় সব ম্যাচেই তাকে দেখা গেছে গ্যালারিতে। জিদান নিশ্চিত করেছেন, রামোস ফিট ও খেলার মতো অবস্থায় আছেন। রামোস কতটা গুরুত্বপূর্ণ, সেটাও বোঝা যায় তুখেলের কথা থেকে, 'রামোস ওদের অধিনায়ক,  ইউরোপের সবচেয়ে সফল দলটির নেতা সে। ওর থাকা মানে অনেক কিছু।'

    তুখেল অবশ্য আত্মবিশ্বাসী থাকতে পারেন, ফাইনালে ওঠার রাস্তাটা জানা আছে তার। গত মৌসুমে পিএসজিকে নিয়ে গিয়েছিলেন ফাইনালে, এবার চেলসির দায়িত্ব নিয়ে বদলে দিয়েছেন ক্লাবটাকে। চেলসি তাই তার সঙ্গে চুক্তি বাড়ানোর কথা ভাবছে। ইতিহাস চেলসির পক্ষে আছে, চ্যাম্পিয়নস লিগে প্রথম লেগে অপরাজিত থাকার পর সাতবারের মধ্যে পাঁচবার তারা উঠেছে পরের পর্বে। রিয়ালের সাথেও এখন পর্যন্ত তারা অপরাজিত। আজ সেটা ধরে রাখতে চাইবে তারা। ও হ্যাঁ, আরেকজনের জন্য আজকের ম্যাচটা অন্যরকম। এডেন হ্যাজার্ড চেলসি ছাড়ার পর চোট পিছু লেগেই ছিল রিয়ালে। আজকের ম্যাচে চোট কাটিয়ে উঠে খেলার কথা, স্টামফোর্ড ব্রিজে এই প্রথমবার খেলতে যাচ্ছেন ছাড়ার পর। হ্যাজার্ড আজ নিশ্চিতভাবেই স্মৃতিকাতর হবেন। 

    দলের খবর 

    রামোসের ফেরাটা তো বড় খবর বটেই, শেষ মুহূর্তে করোনা-নেগেটিভ হয়ে ভালভের্দে ও চোট কাটিয়ে মেন্ডির ফেরাও অনেক বড় স্বস্তি জিদানের জন্য। চেলসির জন্য বড় কোনো চোটের সমস্যা নেই, শুধু হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটের জন্য থাকতে পারবেন না মাতেও কোভাচিচ। 

    সম্ভাব্য একাদশ 

    রিয়াল মাদ্রিদ 

    কোর্তোয়া, মেন্ডি, নাচো, রামোস, মিলিতাও, কাসেমিরো, মদ্রিচ, ক্রুস, হ্যাজার্ড, আসেন্সিও, বেনজেমা 

    চেলসি

    মেন্ডি, রুদিগার, আজপিলিকুয়েতা, ক্রিশ্চিয়েনসেন,  থিয়াগো সিলভা,  চিলওয়েল, মাউন্ট, জর্জিনহো, কান্তে, পুলিসিচ, ভের্নার 

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন