• " />

     

    ওয়ানডেতেও শূন্য হাত শ্রীলঙ্কার

    আগের ম্যাচেই রানে ফিরেছিলেন। এবার করলেন ৯৩। সেঞ্চুরির আফসোসটা থাকলো রুটের, তবে গত গ্রীষ্মের সঙ্গে এই গ্রীষ্মের অপূরণীয় তফাতটা তো ঘুচতে শুরু করেছে। রুটের প্রাপ্তির ম্যাচে শুন্যই থাকলো শ্রীলঙ্কা। টেস্ট সিরিজের পর ওয়ানডে সিরিজ, জয়ের মুখ এখনও দেখেনি লঙ্কানরা।

    সিরিজ ও সুপার সিরিজ, দুইটাই আগেই হেরেছে শ্রীলঙ্কা। কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনে টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়া ম্যাথিউস নিশ্চয়ই কিছু জেতার আশাই করেছিলেন। অ্যালেক্স হেলসের বদলে খেলতে নামা জেমস ভিনসের সঙ্গেই ৬৭ রানের জুটি গড়লেন জ্যাসন রয়, ম্যাথিউসকে অপেক্ষায় রেখে। এরপর রুটের ওই ইনিংস। মরগান ও বেইরস্টো তাঁকে তেমন সংগ দিতে পারেননি অবশ্য। যেটা দিয়েছেন বাটলার।

    প্রথম ২৫ বলে ২৫ রান করা বাটলারই ইনিংস শেষ করেছেন ৪৫ বলে ৭০ রান করে। সব মিলিয়ে আরও একবার তিনশর ওপারে ইংল্যান্ড, ৩২৪।

    শুরুতেই মুখ থুবড়ে পড়েছে শ্রীলঙ্কার ইনিংস, ৯ রানেই ফিরেছেন কুশল পেরেরা। গুনাঠিকালার ৪৮ ও চান্ডিমালের ৫৩ রানের ইনিংসটা আশা দিতে পারেনি তেমন। চান্ডিমালও শুধু একপ্রান্তে দাঁড়িয়ে দেখেছেন সতীর্থদের যাওয়া আসা। ৭.২ বল বাকী থাকতেই ২০২ রানে গুটিয়ে গেছে শ্রীলঙ্কা!

    মঈন আলীর বদলে খেলতে নামা ক্রিস জর্ডান ও ক্রিস ওকস উইকেটশুন্য থেকেছেন, তবে উইকেট পেয়েছেন বাকী তিন বোলারই। উইলি ৪, প্লাঙ্কেট ৩, রাশীদ ২। বাটলার হয়েছেন ম্যাচসেরা, রয় সিরিজসেরা।

    ইংল্যান্ডের বোলারদের প্রাপ্তি আছে, ব্যাটসম্যানদের প্রাপ্তি আছে, ইংল্যান্ডের প্রাপ্তি খাতা তাই ভরাই! 

    কিন্তু শ্রীলঙ্কা? টাই হওয়া ম্যাচটাকেই প্রাপ্তি মানা ছাড়া আপাতত কিছু করার নেই অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের দলের!

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন