• ইংলিশ লিগ কাপ
  • " />

     

    গার্দিওলার হাসি কেড়ে নিলেন মরিনহো

    ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এতোদিন পেপ গার্দিওলার প্রিয় প্রতিপক্ষই ছিল। আজকের ম্যাচের আগে ইউনাইটেডের সঙ্গে ছয়বারের দেখায় একবারও হারেননি। হোসে মরিনহোর সঙ্গে নিজের দ্বৈরথের দ্বিতীয় অধ্যায়ে প্রথম হাসিটা গার্দিওলাই হেসেছিলেন। সেই হাসি আজ কেড়ে নিলেন মরিনহো, ম্যানচেস্টার সিটির সঙ্গে অনেক স্বস্তির এক জয়ে উঠে গেলেন লিগ কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে। 


    লিগ কাপের ম্যাচ, এমন কোনো মরণপণ ম্যাচ নয়। তবে গার্দিওলার চেয়ে মরিনহোই বেশি মরিয়া ছিলেন। ইব্রা, পগবাসহ সম্ভাব্য সেরা প্রথম একাদশটাই সাজিয়েছিলেন। গার্দিওলা আগুয়েরো, ডি ব্রুইনদের বসিয়ে রেখে মাঠে নাময়েছিলেন সানে, ইহেনাচো, অ্যালেক্স গার্সিয়াদের। শেষ পর্যন্ত অবশ্য অভিজ্ঞতার কাছে হার মেনেছে তারুণ্য, মাতার গোলেই জয় পেয়েছে ইউনাইটেড। 


    প্রথমার্ধটা অবশ্য একেবারেই ম্যাড়ম্যাড়েই ছিল। দুই দলের কেউই তেমন কোনো সুযোগ পায়নি, শুধু ম্যাচের শুরুতে ইহেনাচো সহজ একটা সুযোগ হাতছাড়া করেছেন।  ইব্রা-পগবা দুজনেই নিজেদের হারিয়ে খুঁজেছেন। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে ইউনাইটেড খোলস ছেড়ে বেরুতে থাকে। দারুণ এক আক্রমণ থেকে ইব্রার পাসে পগবা গোল প্রায় দিয়েই ফেলেছিলেন, কিন্তু কাবায়েরোর দারুণ এক সেভে বলটা পোস্টে চলে যায় বাইরে। প্রথম গোলের জন্য অবশ্য বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি, ৫৪ মিনিটে ইব্রার পাস থেকে মাতা প্লেসিং শটে গোল করে এগিয়ে দেন ইউনাইটেডকে। 


     পুরো ম্যাচে দারুণ খেলা রাশফোর্ডের ক্রসে মিনিট দশেক পর ইব্রা ব্যবধান দ্বিগুণ করার সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু সেটি কাজে লাগাতে পারেননি। এর পর ইউনাইটেড আক্রমণের চেয়ে রক্ষণেই বেশি মনযোগ দিয়েছে। শেষ পর্যন্ত জয় নিয়েই মাঠ ছাড়তে পেরেছে। আর গার্দিওলার কপালে দুশ্চিন্তার ভাজ আরেকটু চওড়া হলো। টানা ছয় ম্যাচে জয়হীন সিটি, ক্যারিয়ারে এই প্রথম এত লম্বা সময় জয়হীন থাকতে হলো গার্দিওলাকে। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন