• ভারত-ইংল্যান্ড
  • " />

     

    টি-টোয়েন্টিতে ইংল্যান্ডের জয় দিয়েই শুরু

    সংক্ষিপ্ত স্কোর

    ভারত ২০ ওভারে ১৪৭ (ধোনি ৩৬*, রায়না ৩৪, কোহলি ২৯; মঈন ২/২১)

    ইংল্যান্ড ১৮.১ ওভারে ১৪৮ (মরগান ৫১, রুট ৪৬; চাহাল ২/২৭)

    ফলঃ ইংল্যান্ড ৭ উইকেটে জয়ী


    টেস্ট সিরিজের পর ওয়ানডে সিরিজও হয়েছে একতরফা। তবে টি-টোয়েন্টি সিরিজের শুরুটা ইংল্যান্ডের জন্য বোধ হয় এর চেয়ে ভালো হতে পারত না। ১১ বল বাকি থাকতেই ভারতকে ৭ উইকেটে হারিয়ে তিন ম্যাচের সিরিজের শুরুটা হয়েছে জয় দিয়েই।

    ব্যাটিংয়েই আসলে ম্যাচটা হেরে গেছে ভারত। শুরু থেকেই ইংল্যান্ডের বোলাররা চেপে ধরেছিলেন আষ্টেপৃষ্ঠে, বড় স্কোর গড়ার আগেই সবাই ফিরে গেছেন প্যাভিলিয়নে। রয়্যাল চ্যালেঞ্জারস বেঙ্গালুরুর দুই সতীর্থ বিরাট কোহলি ও লোকেশ রাহুল শুরুটা খারাপ করেননি। কিন্তু ৩৫ রানে রাহুল ফিরে যাওয়ার পর উইকেট পড়েছে নিয়মিত বিরতিতেই। তারপরও ১০ ওভার শেষে রাবন যখন ১৭৫, স্কোরটা অন্তত ১৫০ রানের বেশিই হওয়া উচিত ছিল। কিন্তু শেষদিকে উইকেট হারাতে থাকায় ভারত ১৪৭ রানের বেশি করতে পারেনি। শেষ ১০ ওভারে মাত্র চারটি চার ও একটি ছয় এসেছে, শেষ ৫ ওভারে এসেছে মাত্র ৪১ রান। এক মহেন্দ্র সিং ধোনিই যা একটু চেষ্টা করেছিলেন, মাত্রই সাবেক হয়ে যাওয়া অধিনায়ক অপরাজিত ছিলেন ২৭ বলে ৩৬ রান করে। কিন্তু বিরাট কোহলি ও সুরেশ রায়নার পর অন্যরা কেউই তাঁকে সঙ্গ দিতে পারেননি।

    টি-টোয়েন্টির জন্য রানটা এমনিতেই খুব বেশি নয়। তার ওপর ১৫০র নিচে রান করে মাত্র দুবার এর আগে জিততে পেরেছিল ভারত। ইতিহাসও বলছিল, ভারতের কাজটা সহজ হবে না। ইংল্যান্ডের দুই ওপেনার মিলে সেটি আরও কঠিন করে তুলেছেন। প্রথম ২০ বলেই ৪২ রান তুলে ফেলেছেন দুই ওপেনার স্যাম বিলিংস ও জেসন রয়। যুয়ভেন্দ্রা চাহালের এক ওভারে দুইজন ফিরে যাওয়ার পর রানের গতিটা অবশ্য একটু কমেছিল। কিন্তু জো রুটের সঙ্গে অধিনায়ক এউইন মরগানের ৮৩ রানের জুটিটাই ভারতের সব আশা শেষ করে দিয়েছে। আরও একটি ফিফটি করেছেন মরগান, টি-টোয়েন্টিতে প্রথম ইংলিশ হিসেবে ১৫০০ রানের মাইলফলকও হয়ে গেছে। ৫১ রানে মরগান আউট হয়ে গেলেও জো রুট ও বেন স্টোকস পরে আর কোনো বিপদ হতে দেননি।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন