• ভারত-বাংলাদেশ সিরিজ
  • " />

     

    'দিনের শুরুটা ভালো করতে হবে'

    ভারতের মাটিতে নিজেদের প্রথম টেস্টটা বাঁচাতে শেষ দিনে বেশ দুর্গম পথই পাড়ি দিতে হবে বাংলাদেশকে। অশ্বিন-জাদেজারা যেভাবে টার্ন পাচ্ছেন বলে, ৭ উইকেট হাতে নিয়ে পুরো দিন কাটানোটা যে একরকম দুঃসাধ্যই হবে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে বাংলাদেশের ব্যাটিং কোচ থিলান সামারাবিরা এখনই আশা ছাড়ছেন না। বরং দিনের শুরুটা টিকে থাকতে পারলে ইতিবাচক কিছুই হবে বলে মনে করছেন তিনি।

     

    চতুর্থ দিন তৃতীয় সেশনে ব্যাট করতে নেমে একটা সময় পর্যন্ত ম্যাচটা বাঁচানোর উজ্জ্বল সম্ভাবনাই দেখছিল সফরকারীরা। কিন্তু তামিম শুরুতে ফিরে যাওয়ার পর থিতু হয়ে জাদেজা-অশ্বিনের শিকার হয়ে ফিরেছেন সৌম্য-মমিনুল। তবে কৃতিত্বটা ভারতের বোলারদেরই দিচ্ছেন সামারাবিরা, “তিনটা উইকেটই ছিল ভালো বলে। এই কন্ডিশনে (ভারতের) স্পিনাররা কতোটা ভয়ংকর সেটা তো বুঝতে হবে।”

     

    আগামীকাল বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে সামারাবিরা মনে করছেন শুরুর সময়টাকে, “শুরুর আধা ঘণ্টা খুব গুরুত্বপূর্ণ হবে। ওই সময়টা রিয়াদ আর সাকিবকে উইকেটে কাটাতে হবে। আজকেও সকালে উমেশ যাদবের স্পেলটা ছিল আমার দেখা সেরা রিভার্স সুইং স্পেলগুলোর একটি। কিন্তু আমাদের ব্যাটসম্যানদের এটা মাথায় রাখতে হবে যে, রিভার্স সুইং পুরো দিনজুড়েই হবে না। বলের কন্ডিশনের জন্যই এটা এক ঘন্টার বেশী সম্ভব না, ওই একটা ঘন্টা আমাদের নিরাপদে কাটাতে হবে।”

     

    তবে কারও একার ওপর দায়িত্ব না চাপিয়ে মুশফিকদের ব্যাটিং কোচ চাইছেন সবার সম্মিলিত অবদান, “প্রথম সাত ব্যাটসম্যানের যে কেউই সামনে থেকে নেতৃত্বটা দেয়ার সামর্থ্য রাখেন। আমাদের আরও চার-পাঁচজন ব্যাটসম্যান বাকি আছে। কোনো একজনের জ্বলে ওঠার চেয়ে আমাদের বেশী দরকার সবাই মিলে ৬০-৭০ রান করে পার্টনারশিপ।”

     

    নিউজিল্যান্ডে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং ধ্বসের বিষয়টি মাথায় থাকলেও সামারাবিরা আশা করছেন, বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা এমন পরিস্থিতি থেকে শিক্ষা নিচ্ছেন।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন