• শ্রীলঙ্কা-জিম্বাবুয়ে
  • " />

     

    'নির্বাচকেরা শ্রীলংকার ভবিষ্যৎ নষ্ট করছেন'

    কুমার সাঙ্গাকারা , মাহেলা জয়াবর্ধনের মতো অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের অবসরের পর ক্রান্তিকাল পার করছে শ্রীলংকা ক্রিকেট দল। তরুণদের নিয়ে গড়া দলের অন্যতম ভরসা মানা হতো দীনেশ চান্দিমালকে। তবে সেই চান্দিমালকেই দলে সুযোগ না দেওয়ায় নির্বাচক দলের প্রধান সদস্য সনাৎ জয়সুরিয়ার ওপর ভীষণ চটেছেন বিশ্বকাপজয়ী লংকান অধিনায়ক অর্জুনা রানাতুঙ্গা। তিনি বলছেন, নির্বাচকরা দলের ভবিষ্যৎ নষ্ট করছেন।

    জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম দুই ম্যাচে দলে নেওয়া হয়নি চান্দিমালকে। নির্বাচকরা আশ্বাস দিয়েছিলেন, তৃতীয় ওয়ানডেতে তাঁকে সুযোগ দেওয়া হবে। তবে শেষ পর্যন্ত সেই ম্যাচেও মাঠে নামা হয়নি। রানাতুঙ্গা নির্বাচকদের এরকম সিদ্ধান্তে হতাশ, “মাহেলা আর সাঙ্গাকারার বিদায়ের পর লাহিরু থিরিমান্নে আর চান্দিমালকেই লংকান ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ মনে হতো আমার। নির্বাচকরা তো এরই মাঝে থিরিমান্নের ক্যারিয়ার শেষ করেছেন, এখন চান্দিমালের সাথেও এমন করা হচ্ছে। আমি এরকম প্রতিভা নষ্ট না করার জন্য তাঁদের আহ্বান জানাচ্ছি। শ্রীলংকার ক্রিকেট ধুঁকছে কারণ আমরা নিজেদের প্রতিভাবে ঠিকভাবে ব্যবহার করতে পারছি না।”

    রানাতুঙ্গা মনে করেন, তরুণ ক্রিকেটারদের ওপর নির্বাচকদের আরও বেশি ভরসা রাখা উচিত, “তরুণ প্রতিভাকে আমাদের আগলে রাখতে হবে। আতাপাত্তু নিজের প্রথম ছয় ইনিংসে পাঁচবারই শূন্য রানে আউট হয়েছিল। কিন্তু আমরা জানতাম সে প্রতিভাবান, তাঁকে সুযোগ দিতে হবে। ফলাফল তো সবাই জানেন। প্রথম ৫৫ ইনিংসে জয়সুরিয়ার মাত্র একটি হাফ সেঞ্চুরি ছিল। তাঁকে দল থেকে বাদ দেওয়ার জন্য চাপ দেওয়া হচ্ছিল। তবুও আমরা তাঁকে খেলিয়েছি। পরবর্তীতে সে অনেক রেকর্ড ভেঙ্গেছে। আমার একটাই কষ্ট, সেই জয়সুরিয়াই তরুণদের ওপর ভরসা রাখছে না। চান্দিমাল ২৭ বছর বয়সে যা করেছে সেটা সাঙ্গাকারা, ডি সিলভাও করতে পারেনি। তাঁকে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে সুযোগ দেওয়া উচিত। বর্তমান নির্বাচক কমিটি ভবিষ্যতের কথা একেবারেই ভাবছে না।”

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন