• মাস্টার্স ক্রিকেট ২০১৭
  • " />

     

    কক্সবাজারে উজ্জ্বল হাবিবুল, হান্নান, সেজান

    আকরাম খান, আতহার আলী খান, মিনহাজুল আবেদীন নান্নুরা এলেন আজ। শুধু মিনহাজুলই খেললেন, বাকি দুজন দর্শক। কক্সবাজারে ওয়ালটন মাস্টার্স ক্রিকেট কার্নিভালে আজ হলো চারটি ম্যাচ। মূল মাঠ ও  একাডেমি মাঠে হয়েছে দুইটি করে ম্যাচ।

    খুলনা নাকি চট্টগ্রাম, সেমিফাইনালের দরজা খুললো কাদের জন্য, সেটার অপেক্ষায় কাটলো শেষ বিকেলটা। চট্টগ্রামের ড্রেসিংরুমে চললো পরাজয়ের কাঁটাছেড়া, বসুন্ধরা ঢাকা ডিভিশনের সঙ্গে ম্যাচটা তারা হেরেছে ৮ উইকেটে। মুশফিক বাবুর ৪৭ বলে ৫২ রানের ইনিংসে ১৮ ওভারে ১২৭ রান করেও রক্ষা হয়নি তাদের। হুমায়ুন কবিরের ৪৮ বলে ৬২ ও ইশতিয়াক কবিরের ১৭ বলে ৩৩ রানের ইনিংসে ২৩ বল বাকি থাকতেই ঢাকা ডিভিশন জিতে গেছে। দিনের প্রথম ম্যাচে খুলনার কাছে পরাজয়ের দুঃখটাও তাই ভুলেছেন তারা।

    প্রথম ম্যাচে হারের পর খুলনা জিতেছে হাবিবুল বাশারের ব্যাটে। যেন সেই হাবিবুল ফিরে এসেছিলেন কক্সবাজারের শেখ কামাল স্টেডিয়ামে। হুমায়ুন কবিরের ১৯ বলে ৩০ রানের ইনিংসে বসুন্ধরা ঢাকা করেছিল ৯ উইকেটে ১১৫। সে রান খুলনা পেরিয়ে গেছে এক বল বাকি থাকতে। হাবিবুল করেছেন ৩৩ বলে ৩৩, সঙ্গে হাসানুজ্জামান ১৯ বলে ২৬।

    এদিনই দুইটা ম্যাচ খেলেছে র ন্যাশন ঢাকা মেট্রো। খালেদ মাহমুদের দল হেরেছে দুইটিই। একমি রাজশাহীকে ১২৬ রানের লক্ষ্য দিয়েছিল মেট্রো, ফয়সাল হোসেন ডিকেন্স করেছিলেন ৩০ বলে ৫৯ রান। হান্নান সরকার তাকে ছাপিয়ে করেছেন ২৮ বলে ৬৫, এক ওভার বাকি থাকতেই ৮ উইকেটে জিতেছে খালেদ মাসুদের দল।

    বিকেলে মেট্রো হেরেছে এক্সপো অলস্টারসের কাছে। এহসানুল হক সেজানের ৪৩ বলে ৭৬ রানের সঙ্গে মেহরাব হোসেন অপির ৩৫ বলে ৪৮, ১৫ ওভারেই হাসিবুল হোসেন শান্তর দল তুলেছিল ১৬৪ রান! শেষদিকে ১৮ বলে ৪৮ রানের ইনিংস খেলেও মেট্রোকে অলস্টারসের ধারেকাছেও নিয়ে যেতে পারেননি, আটকে গিয়েছে ১৩৬ রানেই। জয় নিশ্চিত জেনে অপির হাতেও বল তুলে দিয়েছিলেন শান্ত।

    আগামীকাল সকালের সেমিফাইনালে টাইটানস খুলনার প্রতিপক্ষ একমি রাজশাহী। বিকেলে এক্সপো অলস্টারসের সঙ্গে খেলবে বসুন্ধরা ঢাকা ডিভিশন।

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন