• " />

     

    মেসিকে যে কারণে নেতা বলতে চান না ম্যারাডোনা

    আর্জেন্টিনাকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিতে না পারার অপবাদটা আজীবনের। এজন্যই আর্জেন্টিনায় ম্যারাডোনার চেয়ে জনপ্রিয়তায় আজীবন পিছিয়ে থাকবেন- এমনটাও বলেন অনেকে। ২০১০ সালে মেসি এবং আর্জেন্টিনার কোচও ছিলেন ম্যারাডোনা। সে হিসেবেই মেসিকে ম্যারাডোনা দেখেছেন একেবারে কাছ থেকেই। মেসি কোনদিনই ফুটবল মাঠে একজন নেতা হতে পারবে না বলে মনে করেন ম্যারাডোনার। ম্যারাডোনার দাবির পেছনে কারণটাও চমকপ্রদ। ম্যাচের আগে মানসিক চাপে বারবার টয়লেট ব্যবহার করেন মেসি, এমন কেউ নাকি নেতা হতে পারবেন না- দাবি ম্যারাডোনার।

    ডিয়েগো ম্যারাডোনার পর তার হাত ধরেই পুনরায় বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্ন দেখছে ‘আলবিসেলেস্তে’রা। আর্জেন্টিনার হয়ে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ডটা করে নিয়েছেন নিজের, কিন্তু তিনটি ফাইনাল হারের পর এখনও নিজের দেশেই নিন্দুকের অভাব নেই মেসির। ম্যারাডোনার ভাষ্যমতে, প্রায় প্রতি ম্যাচের আগে অন্তত ২০ বার টয়লেট ব্যবহার করাই লাগে মেসির, “মাঠে মেসি ঠিকই নেতৃত্ব দেখাতে চায়, কিন্তু মাঠের বাইরে; বিশেষ করে ম্যাচের আগে সতীর্থদের কাছে কথাবার্তার বলার চেয়ে প্লেস্টেশনে খেলাই তার কাছে বেশি উপভোগ্য। আর ম্যাচের আগে যার ২০ বার টয়লেটে যাওয়া লাগে এমন লোকের কাছ থেকে নেতৃত্ব আশা করার কোনো মানে হয় না।" 

     

     

    মেসির সেরাটা বের করে আনতে হলে তার থেকে নেতৃত্বের চাপটা সরিয়ে নেওয়ার পরামর্শ ম্যারাডোনার, “সে বার্সার হয়েও মেসি, আর্জেন্টিনার হয়েও তা-ই। কিন্তু আমার মনে হয় তার থেকে নেতৃত্বের চাপটা সরিয়ে আনলেই আমরা আসল মেসিকে দেখতে পাব, যা আর্জেন্টিনার এবং বার্সেলোনা সমর্থকদের প্রথম প্রত্যাশা।”

    মেসিকে ঈশ্বরতুল্য সম্মান না দিয়ে আর দশটা ফুটবলারের মত করেই দেখতে সমর্থকদের আহবান জানিয়েছেন ম্যারাডোনা, “মেসি একজন ফুটবলার। এটাই তার মূল পরিচয়। সে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর সাথে যৌথভাবে বিশ্বের সেরা ফুটবলার। তাকে একজন ঈশ্বরের মত সম্মান না দিয়ে সাধারণ একজন ফুটবলার হিসেবেই দেখা উচিত সমর্থকদের।”

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন