• ক্রিকেট, অন্যান্য
  • " />

     

    দ্য হান্ড্রেড-এর ড্রাফটে দল পেলেন না সাকিব আল হাসান

    ইংল্যান্ডের নতুন টুর্নামেন্ট 'দ্য হান্ড্রেড'-এর ড্রাফটে দল পাননি ওয়ানডের এক নম্বর ও টি-টোয়েন্টির দুই নম্বর অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ১ লক্ষ পাউন্ড রিজার্ভ প্রাইস ছিল তার, সেখানে তাকে নেয়নি কোনও দল। দল পাননি এ ক্যাটাগরিতে থাকা বাংলাদেশ ওপেনার তামিম ইকবালও। অবশ্য ২০২০ সালের ইংলিশ গ্রীষ্মে এ টুর্নামেন্টের সময় বাংলাদেশ জাতীয় দলের সিরিজ আছে, জুলাই-আগস্টে শ্রীলঙ্কা ও নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে। দল পেলেও অনিশ্চিত ছিল তাদের অংশগ্রহণ।

    ইংল্যান্ডের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো কোনও খেলায় হচ্ছে এমন প্লেয়ারস ড্রাফট। আটটি দলের এই টুর্নামেন্টে আগে থেকেই তিনজন করে ইংলিশ ক্রিকেটার প্রাথমিক ড্রাফটে বাছাই করেছিল প্রতিটি দল। প্রতিটি দল তাদের ১৫ জনের স্কোয়াডে নিতে পারবে ৩ জন করে বিদেশী ক্রিকেটার, প্রতি একাদশেও খেলাতে পারবে তিনজন করে বিদেশী ক্রিকেটার। ক্রিকেটারদের নির্ধারিত রিজার্ভ প্রাইসের বা সংরক্ষিত মূল্যের নিচে তাদেরকে নিতে পারবে না কোনও দল।

    ১ লক্ষ পাউন্ডের এ ক্যাটাগরিতে বিদেশী ক্রিকেটার হিসেবে দল পেয়েছেন- অস্ট্রেলিয়ার ক্রিস লিন, আফগানিস্তানের মোহাম্মদ নবি, পাকিস্তানের মোহাম্মদ আমির, নিউজিল্যান্ডের কেন উইলিয়ামসন ও নেপালের সন্দিপ লামিচানে। 

    এর আগে ১ লক্ষ ২৫ হাজার রিজার্ভ প্রাইসের ক্যাটাগরিতে দল পাওয়া বিদেশী ক্রিকেটাররা হলেন- রশিদ খান, ডিআরসি শর্ট, আন্দ্রে রাসেল, ডেভিড ওয়ার্নার, অ্যারন ফিঞ্চ, মুজিব উর রহমান, মিচেল স্টার্ক, স্টিভেন স্মিথ, সুনীল নারাইন, ইমরান তাহির, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। এর মাঝে তাহিরের 'রিজার্ভ প্রাইস' ছিল ৬০ হাজার পাউন্ড। দল পাননি ক্রিস গেইল, লাসিথ মালিঙ্গা বা কাগিসো রাবাদার মতো ক্রিকেটাররা। 

    দ্য হান্ড্রেডের ড্রাফটে সাকিব-তামিম ছাড়াও ছিলেন আরও ৯ বাংলাদেশী। দল পাননি কেউই।