• ইউরো বাছাইপর্ব
  • " />

     

    ইউরো ২০২০ বাছাইপর্ব: কার সমীকরণ কেমন?

    মার্চ থেকে নভেম্বর। প্রায় আট মাসের নাটকীয়তা, আটটি রোমাঞ্চকর ম্যাচ ডে শেষে আগামী সপ্তাহের ম্যাচ দিয়ে পর্দা নামছে ইউরো বাছাইপর্বের। দশ গ্রুপের শীর্ষ দুই দল সরাসরি পাবে ইউরো ২০২০ মূলপর্বের টিকেট। স্পেন, ইতালি, বেলজিয়াম জায়গা নিশ্চিত করেছে আগেই। বাছাইপর্বের ১০ গ্রুপের শীর্ষ ২ দল সরাসরি যাবে ইউরো মূলপর্বে। এরপর নেশনস লিগের পারফরম্যান্সের ওপর ভিত্তি করে ১৬ দল খেলবে প্লে-অফ, যেখান থেকে আরও ৪ দল যাবে মূলপর্বে।

    ২২ নভেম্বর সুইজারল্যান্ডের রাজধানী নিওনে ইউয়েফা সদর দপ্তরে অনুষ্ঠিত হবে ড্র। ২০২০ সালের ২৬ থেকে ৩১ মার্চে অনুষ্ঠিত হবে প্লে-অফের ম্যাচগুলো। সেখানে অবশ্য গতানুগতিক বাছাইপর্বের নিয়মে নয়, হবে নকআউট সিস্টেমে। প্রত্যেক প্লে-অফ গ্রুপের শীর্ষ দল বনাম তলানীর (৪র্থ) দল এবং ২য় বনাম ৩য় দলের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে সেমিফাইনাল। দুই সেমিফাইনাল জয়ীদের মধ্যে এরপর হবে ফাইনাল, ঐ ম্যাচের বিজয়ীরা যাবে মূলপর্বে।


    গ্রুপ 'এ': কসোভো রূপকথা নাকি ইংলিশ, চেক প্রজাতন্ত্রের নিয়মিত ঘটনা?

    ‘এ’ গ্রুপ থেকে ইউরো মূলপর্বের টিকেট নিশ্চিত করা থেকে মাত্র এক পয়েন্ট দূরে ইংল্যান্ড। ৬ ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে ‘থ্রি লায়ন্স’রা। ওয়েম্বলিতে মন্টেনেগ্রোর সাথে হার এড়ালেই হবে গ্যারেথ সাউথগেটের দলের। তবে ইংলিশদের সঙ্গী হবে কে- তা নিয়ে থাকছে রোমাঞ্চ। ৬ ম্যাচ শেষে চেক প্রজাতন্ত্রের পয়েন্ট ১২, তাদের চেয়ে ১ পয়েন্ট কম নিয়ে তিন-এ আছে খুব সম্ভবত এবারের ইউরো বাছাইপর্বের সবচেয়ে বড় চমক কসোভো। গ্রুপের শীর্ষ দুই দলের একটি হয়েই অবশ্য ইউরো মূলপর্বে যাওয়ার সুযোগ থাকছে মাত্র এক দশক আগে স্বাধীন হওয়া দেশটির। সেজন্য ১৫ নভেম্বর চেক প্রজাতন্ত্রের বিপক্ষে জয়ের বিকল্প নেই তাদের।

     

     

    গ্রুপের শেষ ম্যাচে ইংলিশদের মুখোমুখি হবে কসোভো, এবারের বাছাইপর্বে নিজেদের মাঠে হারেনি তারা। তবে শীর্ষ দুই দলের একটি হয়ে ইউরোতে যেতে না পারলেও প্লে-অফের ১৬ দলের একটি হওয়া প্রায় নিশ্চিত কসোভোর। নতুন ফরম্যাট অনুযায়ী গতবারের ইউয়েফা নেশনস লিগের পারফরম্যান্স এবং রেটিং অনুযায়ী বাছাই করা হবে প্লে-অফ দলগুলোকে। সে র‍্যাঙ্কিং অনুযায়ী কসোভোর অবস্থান ৪২তম, প্লে-অফে তাদের জায়গা হবে গ্রুপ ‘ডি’-তে। সেখানে এখন পর্যন্ত তাদের সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ জর্জিয়া, উত্তর মেসিডোনিয়া এবং বেলারুশ।

    গ্রুপ 'বি': ইউক্রেনের সঙ্গী পর্তুগালই আর বিচিত্র এক প্লে-অফ

    বাছাইপর্বের ড্রয়ের পর ‘বি’ গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়েই পর্তুগালের মূলপর্বে যাওয়ার পক্ষে বাজি ধরার লোকের সংখ্যাই ছিল বেশি। কিন্তু বর্তমান ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নদের চমকে দিয়ে সবার আগে এই গ্রুপ থেকে ইউরোর টিকেট নিশ্চিত করেছে আন্দ্রেই শেভচেঙ্কোর ইউক্রেন। ১১ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে আছে পর্তুগাল, তাদের চেয়ে ১ পয়েন্ট কম নিয়ে তিন-এ আছে সার্বিয়া। তবে সার্বিয়ানদের চেয়ে হয়তো পর্তুগালেরই গ্রুপ রানার্স-আপ হয়ে সরাসরি মূলপর্বে যাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।

    গ্রুপের নিজেদের শেষ দুই ম্যাচে তলানীর দুই দল লিথুনিয়া এবং লুক্সেমবার্গের মুখোমুখি হবেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোরা। আর সার্বিয়ার প্রতিপক্ষ লুক্সেমবার্গ এবং ইউক্রেন। প্লে-অফে নেশনস লিগের র‍্যাঙ্কিং অনুযায়ী ২৭-এ থাকা সার্বিয়া থাকবে ‘সি’ গ্রুপে। এই গ্রুপে এখন পর্যন্ত সার্বিয়ানদের সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ স্কটল্যান্ড, নরওয়ে। এর সঙ্গে বেলারুশ/রোমানিয়া/ইসরায়েলের যে কোনো একটি দল থাকবে (এই তিন দলের একটি থাকবে ‘সি’ গ্রুপে, অন্য দুই দল যাবে ‘এ’ গ্রুপে। সেটা জানা যাবে প্লে-অফের ড্রয়ের পরই)। 

    গ্রুপ 'সি': ৮ বছরের অপেক্ষার অবসানের দ্বারপ্রান্তে নেদারল্যান্ডস

    ‘সি’ গ্রুপে জার্মানি, নেদারল্যান্ডসের পয়েন্ট (১৫) সমান হলেও হেড টু হেডে এগিয়ে থাকায় গ্রুপের শীর্ষে আছে ডাচরা। ১২ পয়েন্ট নিয়ে তিন-এ আছে নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড। ১৬ নভেম্বর জার্মানদের প্রতিপক্ষ বেলারুশ, নেদারল্যান্ডসকে আতিথেয়তা দেবে নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড। নিজেদের ম্যাচ জিতলেই ইউরো মূলপর্ব নিশ্চিত হবে জার্মানি এবং নেদারল্যান্ডসের। নেশনস লিগের র‍্যাঙ্কিংয়ে ২৪-এ থাকা নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডের প্লে-অফে অবস্থান হবে ‘বি’ গ্রুপে। প্লে-অফে ‘বি’ গ্রুপকেই ধরা হচ্ছে ‘গ্রুপ অফ ডেথ’ হিসেবে। এই গ্রুপে নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডের এখন পর্যন্ত সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ ওয়েলস, বসনিয়া এবং স্লোভাকিয়া।

     

     

    গ্রুপ 'ডি': পা হড়কানোর সুযোগ নেই কারোই

    এবারের বাছাইপর্বে শেষ দুই ম্যাচডে-র আগে খুব সম্ভবত সবচেয়ে বেশি রোমাঞ্চ অপেক্ষা করছে ‘ডি’ গ্রুপে। ৭ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে আপাতত শীর্ষে আছে আয়ারল্যান্ড, এক ম্যাচ কম খেলা ডেনমার্কের পয়েন্টও একই। ডেনিশদের সমান ৬ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট নিয়ে তিন-এ আছে সুইজারল্যান্ড। ১৮ নভেম্বর নিজেদের মাঠে তাই ডেনমার্কের বিপক্ষে জয়ের বিকল্প নেই আইরিশদের। খুব সম্ভবত ফিক্সচারের দিক দিয়ে সবচেয়ে এগিয়ে আছে সুইসরা।

    নিজেদের শেষ দুই ম্যাচে গ্রুপের তলানীর দুই দল জর্জিয়া এবং জিব্রাল্টারের মুখোমুখি হবে দুই দল। পরের দুই ম্যাচে গ্রুপের অবস্থা অপরিবর্তিত থাকলে অবশ্য সরাসরি ইউরোর মূলপর্বে যাবে আয়ারল্যান্ড এবং ডেনমার্ক। সেক্ষেত্রে প্লে-অফে যাবে সুইসরা, নেশনস লিগের র‍্যাঙ্কিংয়ে ৪-এ থাকা সুইজারল্যান্ড থাকবে ‘এ’ গ্রুপে। সেখানে তাদের সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ আইসল্যান্ড এবং বেলারুশ/রোমানিয়া/ইসরায়েলের যেকোনো দুই দল।

    গ্রুপ 'ই': ক্রোয়েশিয়ার সাথে টিকে আছে ওয়েলসেরও সম্ভাবনা

    ‘ই’ গ্রুপে নিজেদের শেষ ম্যাচের আগে ইউরো মূলপর্ব প্রায় নিশ্চিত ক্রোয়েশিয়া (১৪) এবং হাঙ্গেরির (১২)। তিন-এ থাকা স্লোভাকিয়ার পয়েন্ট ১০, তাদের চেয়ে ২ পয়েন্ট কম নিয়ে চার-এ আছে গ্যারেথ বেলের ওয়েলস। গ্রুপ থেকে সরাসরি ইউরোর মূলপর্বে যাওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই ক্ষীণ হলেও এখনই সব আশা শেষ হয়ে যাচ্ছে না ওয়েলস এবং স্লোভাকদের। নেশনস লিগে ভাল পারফরম্যান্সের কারণে দু’দলই যাচ্ছে প্লে-অফের ‘বি’ গ্রুপে। সেখানে তাদের সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ বসনিয়া এবং নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড।

     

     

    গ্রুপ 'এফ': স্পেনের সঙ্গী সুইডেন, স্বপ্ন দেখছে রোমানিয়া-নরওয়েও

    ‘এফ’ গ্রুপ থেকে আগের ম্যাচডে-তে রদ্রিগো মরেনোর অন্তিম মুহূর্তের গোলে ইউরো মূলপর্ব নিশ্চিত করেছিল স্পেন। দুইয়ে থাকা সুইডিশদের পয়েন্ট ১৫। গ্রুপের তিন এবং চার-এ থাকলেও রোমানিয়া এবং নরওয়ের ইউরোর টিকেটের স্বপ্ন টিকে থাকছে এখনও, প্লে-অফে থাকার সম্ভাবনা প্রবল দু’দলেরই।

    গ্রুপ 'জি': লাটভিয়া, স্লোভেনিয়া বাদে সুযোগ আছে সবারই 

    ‘জি’ গ্রুপ থেকে গত রাউন্ডেই ইউরোর টিকেট পেয়েছে পোল্যান্ড। দুইয়ে থাকা অস্ট্রিয়া দুই ম্যাচ থেকে এক পয়েন্ট পেলেই সঙ্গী হবে পোলিশদের। লাটভিয়া ছাড়া গ্রুপের অন্য তিন দল স্লোভেনিয়া, ইসরায়েল এবং উত্তর মেসিডোনিয়া তিন দলেরই পয়েন্ট সমান (১১)। নেশনস লিগের নিজেদের গ্রুপে সবার শেষে থাকায় প্লে-অফে যেতে পারবে না স্লোভেনিয়ানরা। তবে উত্তর মেসিডোনিয়ার জায়গা হচ্ছে ‘ডি’ গ্রুপে।

    গ্রুপ 'এইচ': ফ্রান্স, তুরস্কই মূল পর্বে? 

    ‘এইচ’ গ্রুপে ৮ ম্যাচ পরও বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সকে টপকে শীর্ষে আছে তুরস্ক। দু’দলের পয়েন্ট (১৯) সমান হলেও হেড টু হেডে এগিয়ে আছে তারাই। তিন-এ থাকা আইসল্যান্ডের পয়েন্ট ১৫। নিজেদের পরের দুই ম্যাচের যেকোনোটিতে হার এড়ালেই মূলপর্ব নিশ্চিত করবে ফ্রান্স-তুরস্ক দু’দলই। ইউরোর মূলপর্বে যেতে হলে তাই হয়তো প্লে-অফই ভরসা আইসল্যান্ডের। প্লে-অফের ‘এ’ গ্রুপে থাকবে তারা। স্লোভেনিয়ার মত একই কারণে ৮ ম্যাচে শেষে ১২ পয়েন্ট নিয়েও প্লে-অফে যেতে পারছে আলবেনিয়া।

     

     

    গ্রুপ 'আই': স্কটিশদের পৌষমাস, সাইপ্রাসের সর্বনাশ

    শতভাগের জয়ের রেকর্ড নিয়ে ‘আই’ গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে মূলপর্বের টিকেট নিশ্চিত করেছে বেলজিয়াম। ১ ম্যাচ হারলেও বেলজিয়ামের সঙ্গী হয়েছে রাশিয়া। নেশনস লিগের পারফরম্যান্সে স্কটল্যান্ডের পৌষমাসের বিপরীতে সর্বনাশ হয়েছে সাইপ্রাসের। স্কটিশদের (৯) চেয়ে পয়েন্ট বেশি হলেও সিপ্রিয়টদের প্লে-অফে যাওয়ার সম্ভাবনা নেই কোনো। প্লে-অফে ‘সি’ গ্রুপে থাকবে স্কটল্যান্ড।

    গ্রুপ 'জে': ইতিহাস গড়ছে ফিনল্যান্ড, সম্ভাবনা আছে বসনিয়া, গ্রিস, আর্মেনিয়ারও

    বেলজিয়ামের মত শতভাগ জয়ের রেকর্ড আছে ইতালিরও, গ্রুপচ্যাম্পিয়ন হয়ে মূলপর্ব নিশ্চিত করেছে ‘আজ্জুরি’রা। দুইয়ে থাকা ফিনল্যান্ড বাকি দুই ম্যাচ থেকে আর এক পয়েন্ট পেলেই নিশ্চিত করবে প্রথমবারের মত ইউরোযাত্রা। এই গ্রুপ থেকে প্লে-অফে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে বসনিয়া, গ্রিস, আর্মেনিয়া প্রত্যেকেরই। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন