• ফেডারেশন কাপ
  • " />

     

    ফেয়ার প্লে-তে বাদ শেখ রাসেল, মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গী মোহামেডান

    তিন দলের পয়েন্ট সমান, গোলব্যবধানও সমান। শেষ পর্যন্ত তাই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন নির্ধারণ হলো প্রতিপক্ষকে দেওয়া গোলের হিসাবে, আর গ্রুপ রানার্স আপ নির্ধারণ হয়েছে ফেয়ার প্লেতে। ফেডারেশন কাপে গ্রুপ 'ডি'-তে সে হিসাবে সবার সবার ওপরে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, আর বেশি হলুদ কার্ড দেখায় শেখ রাসেলকে বিদায় করে দিয়ে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে গ্রুপ রানার্স আপ হয়ে।  

    বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে মুক্তিযোদ্ধা ও শেখ রাসেল নিজেদের শেষ ম্যাচ ড্র করেছে ১-১ গোলে। উজবেক ডিফেন্ডার আজিজোভ আলিশেভ প্রথমার্ধে গোল করে এগিয়ে নিয়েছিলেন দলকে। পরে ইসমাইল বাঙ্গুরার দ্বিতীয়ার্ধের গোলে সমতায় ফেরে মুক্তিযোদ্ধা। রাসেলের বিদায়ঘন্টা বেজেছে আসলে শেষ ১০ মিনিটে। দুই হলুদ কার্ড দেখে টুর্নামেন্টে তাদের মোট হলুদ কার্ডের সংখ্যা হয়েছে ৪। আর দিনের প্রথম খেলায় উত্তরা বারিধারা এফসিকে ১-০ ব্যবধানে হারানোর মোহামেডান হলুদ কার্ড দেখেছিল ৩ বার।  

    গ্রুপের সবগুলো ম্যাচ শেষে মুক্তিযোদ্ধা, মোহামেডান ও শেখ রাসেলের পয়েন্ট দাঁড়িয়েছিল ৫। উত্তরা বারিধারা আগেই সমীকরণের বাইরে ছিল। তিন দলের হেড টু হেড আর গোলব্যবধান সমান হওয়ার পর দেখা হয়েছে কার বেশি গোল। সে হিসাবে ৪ গোল করে মুক্তিযোদ্ধা হয়েছে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন। আর মোহামেডান ও শেখ রাসেল দুইদলই গোল করেছিল দুইটি করে। তাই এই টাই নির্ধারণ হয়েছে ফেয়ার প্লেতে। কোয়ার্টার ফাইনালে মুক্তিযোদ্ধার প্রতিপক্ষ বসুন্ধরা কিংস আর দশ বারের ফেডারেশন কাপ চ্যাম্পিয়ন মোহামেডান খেলবে চট্টগ্রাম আবাহনীর বিপক্ষে। 

    ফেডারেশন কাপে একদিন বিরতির পর কোয়ার্টার ফাইনালের খেলা শুরু হবে ৩০ তারিখ থেকে। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন