• ফেডারেশন কাপ
  • " />

     

    কিক অফের আগে : বসুন্ধরার সামনে উজ্জীবিত পুলিশ এফসি

    কবে, কখন 
    ফেডারেশন কাপ সেমিফাইনাল 
    বাংলাদেশ পুলিশ এফসি-বসুন্ধরা কিংস 
    বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম 
    বিকাল ৪.০০ 


    ফেডারেশন কাপে এখন পর্যন্ত নিজেদের স্বভাবসুলভ ফুটবলটা খেলতে পারেনি বসুন্ধরা কিংস। খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে সেমিফাইনালে উঠেছে প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়নরা। বড়দলগুলোর ভেতর একমাত্র দল হিসেবে এখনও টিকে আছে তারা।  এখান থেকে শিরোপা জিততে না পারা বসুন্ধরার জন্য ব্যর্থতাই।

    গ্রুপ পর্বে ব্রাদার্স ১-০ ব্যবধানে হারিয়ে দ্বিতীয় ম্যাচেই চট্টগ্রাম আবাহনীর কাছে হেরে গিয়েছিল বসুন্ধরা কিংস। কোয়ার্টার ফাইনালে বসুন্ধরা মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়েছে টাইব্রেকারে। এবার তাদের প্রতিপক্ষ প্রথমবারের মতো প্রিমিয়ার লিগ খেলতে আসা বাংলাদেশ পুলিশ এফসি।

    পুলিশ এফসি প্রথমবার ফেডারেশন কাপ খেলতে এসে উঠে গেছে সেমিফাইনালে। অথচ প্রথম ম্যাচেই ঢাকা আবাহনীর কাছে ৪-০ গোলে উড়ে গিয়েছিল তারা। এর পর নিজেদের চেহারাই বদলে ফেলেছে পুলিশ এফসি। আরামবাগকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে টুর্নামেন্ট ফেভারিট সাইফ স্পোর্টিংকে বিদায় করে দিয়েছে তারা। এই দুই ম্যাচে মোট ৬ গোল করেছে পুলিশ এফসি। পুলিশ এফসির কোচ নিকোলা ভিট্রোভিচকে ভরসা যুগিয়েছিলেন সিডনি রিভেরা। যুক্তরাষ্ট্র স্ট্রাইকার এরই ভেতর করে ফেলেছেন ৪ গোল। টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ গোলদাতাও তিনি। এই দলের তাই আত্মবিশ্বাস বা উজ্জীবনী শক্তি- কোনোটিরই অভাব নেই। 

    পুলিশ এফসির সঙ্গে বসুন্ধরার দলের মানে যোজন পার্থক্য থাকলেও তাই সেইফাইনালে পরিস্কার ফেভারিট খুঁজে বের করা কঠিনই। বিশেষ করে বসুন্ধরার এলোমেলো আর অধারাবাহিক পারফরম্যান্স তো দুশ্চিন্তার কারণও হয়ে দাঁড়িয়েছে সমর্থকদের জন্য। তবে বসুন্ধরা কোচ অস্কার ব্রুজোন যা বলছেন  সেটা ফলে গেলে ফাইনাল নিয়ে কোনো সংশয় থাকার কথা নয় কিংসদের, "আমাদের দলটি পরিকল্পিত ফুটবল খেলবে। এমনিতে আমরা আগের ম্যাচগুলোতে আক্রমণে এগিয়ে ছিলাম। এখন ট্যাকটিস অনুযায়ী খেলতে পারলে আমরা ফাইনালে যেতে পারবো।"

    এই টুর্নামেন্টে তো সেই অনুযায়ীই খেলাটা ঠিক ছন্দে উঠছে না বসুন্ধরার! 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন