• বাংলাদেশের আয়ারল্যান্ড সফর
  • " />

     

    করোনা-আতঙ্কে দর্শকশূন্য মাঠে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের ওয়ানডে

    স্টিফেন হ্যারল্ড গ্যাসকোইন সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডের বিখ্যাত দর্শক, ১৯২০ থেকে ১৯৩০-এর দিকে। ডাকনাম ছিল ‘ইয়াব্বা’। স্কোরকার্ডের সামনে এক সিটে বসে খেলা দেখতেন, মজার সব মন্তব্য করতেন ক্রিকেটারদের উদ্দেশ্যে। ২০০৮ সালে তার একটা মূর্তি স্থাপিত হয় এসসিজিতে। 

    শুক্রবার অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের দর্শকসারিতে গ্যাসকোইন ‘ইয়াব্বা’ই একমাত্র দর্শক। 

    করোনা ভাইরাস আতঙ্কে দর্শকশূন্য অবস্থায় হচ্ছে সিডনিতে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের প্রথম ওয়ানডে। বিশ্বজুড়ে ক্রীড়াঙ্গনে পড়েছে করোনার প্রভাব, বাদ পড়েনি ক্রিকেটও। করোনা ভাইরাসে বেশ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে অস্ট্রেলিয়াও। 

    পরের সপ্তাহ থেকে অস্ট্রেলিয়ায় গণজমায়েত নিষিদ্ধ করতে যাচ্ছে সে দেশের সরকার। হ্যান্ডশেকের সঙ্গে মুখের লালা দিয়ে বল শাইন করার ব্যাপারটিও পর্যবেক্ষণে রাখা হচ্ছে এ সিরিজে। 


    এ ম্যাচের আগে অসুস্থ বোধ করায় আলাদা করে রাখা হয়েছে অস্ট্রেলিয়ান পেসার কেন রিচার্ডসনকে। অবশ্য তিনি কভিড-১৯ এ আক্রান্ত কিনা, সেটি নিশ্চিত হয়নি এখনও। 

    “আমাদের মেডিকেল স্টাফ এটিকে গলার সাধারণ ইনফেকশন হিসেবেই বিবেচনা করছেন, তবে আমরা অস্ট্রেলিয়ান সরকারের প্রোটোকল অনুযায়ী কেনকে স্কোয়াডের অন্য সদস্যের থেকে দূরে রাখছি, এবং প্রয়োজনীয় পরীক্ষা করছি, যেহেতু শেষ ১৪ দিনের মাঝে সে আন্তর্জাতিক ভ্রমণ করে এসেছে”, ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার এক মুখপাত্র বলেছেন। 

    এদিকে অস্ট্রেলিয়ায় হওয়া উইমেনস টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে এমসিজিতে হাজির হওয়া প্রায় ৮৬ হাজার দর্শকের একজন করোনা ভাইরাসে পজিটিভ প্রমাণিত হয়েছেন। 


     
     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন