• ক্রিকেটে করোনাভাইরাস
  • " />

     

    বাংলাদেশ, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের চেয়ে ক্রিকেটের ফেরার দিকেই মনযোগ দিতে বলছেন ফিঞ্চ

    আপাতত পূর্বনির্ধারিত সিরিজ বাতিল হওয়া নিয়ে চিন্তা না করে সামগ্রিক দিক দিয়ে ক্রিকেট ফেরানোর দিকে মনযোগ দেওয়া উচিৎ বলে মনে করেন অস্ট্রেলিয়ার সীমিত ওভারের অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। বাংলাদেশ, জিম্বাবুয়ের মতো দলগুলির সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার সিরিজ পরবর্তী দশকে ‘পুষিয়ে দেওয়া যাবে’, তিনি বলেছেন এমনও। 

    কভিড-১৯ মহামারিতে বাংলাদেশের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট সিরিজ স্থগিত হয়েছে আগেই। এবার আগস্টে জিম্বাবুয়েকে আতিথেয়তা দেওয়ার কথা থাকলেও স্থগিত হয়ে গেছে সেটিও। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ বর্তমান পরিস্থিতিতে বাস্তবিক নয়, এমন কারণে আপাতত এ সিরিজ খেলবে না অস্ট্রেলিয়া। সেপ্টেম্বরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সীমিত ওভার সিরিজ দিয়েই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে চান তারা। ভারতের বিপক্ষে তাদের ঘরোয়া গ্রীষ্ম মৌসুমে টেস্ট সিরিজের দিকেও তাকিয়ে আছে অস্ট্রেলিয়া। 

    বাংলাদেশ, জিম্বাবুয়ের মতো দলগুলির সঙ্গে সিরিজের ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ার দায়সারা মনোভাবের সমালোচনা হয়েছে এর আগেও। তবে ফিঞ্চ বলছেন, কভিড-১৯ মহামারির পর কে কার সঙ্গে খেললো, এসব চিন্তা না করে ক্রিকেট ফেরানোর ওপর জোর দেওয়া উচিৎ। 

    “এখন আসলে সবকিছুর জন্যই নিজেদের প্রস্তুত রাখার ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। বৈশ্বিক ক্রিকেটকে চালিয়ে নেওয়ার জন্য যা কিছু দরকার, সেসব কাজে লাগিয়ে সফল হওয়ার ব্যাপার এখন। আমার মনে হয়, আপনি যদি ‘একটা নির্দিষ্ট প্রতিপক্ষর সঙ্গে খেলতেই হবে’ অথবা নিজের ভালর জন্য এমন কিছু করতে হবে, এমন ভেবে থাকেন, তাহলেই সবকিছু পিছিয়ে যাবে”, বলেছেন ফিঞ্চ। 

    এফটিপিতে বাংলাদেশ সফরের টেস্টগুলি ছিল আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অন্তর্ভুক্ত। ওয়ানডে সিরিজগুলিকেও ৪ বছরের সাইকেলে ওয়ানডে লিগের মধ্যে এনে পরের বিশ্বকাপের দল বাছাইয়ের পরিকল্পনা ছিল আইসিসির। তবে ফিঞ্চ বলছেন, আপাতত এসব চিন্তা না করতে, “আপাতত ক্রিকেটকে ফেরাতেই আমাদের মনযোগ দেওয়া উচিৎ। যত সম্ভব ক্রিকেট চালিয়ে যাওয়া উচিৎ, যেসব দেশ প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার মতো অবস্থায় আছে। আমার মনে হয় না বিশ্বকাপের জন্য আপনি র‍্যাঙ্কিংয়ের কোথায় থাকলে বা এমন কিছু নিয়ে চিন্তা করার দরকার আছে এখন। বিশ্ব ক্রিকেটের সামগ্রিক অবস্থাটা গুরুত্বপূর্ণ এখন। এবং এসব বদলাতে থাকবে দ্রুত, কিছু কিছু দলকে বেশ ভাল রকমের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখিও হতে হবে।” 

    বাংলাদেশ, জিম্বাবুয়ের মতো দলগুলির ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে সিরিজের সুযোগ আসে কালেভদ্রে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ বাতিলকে তিনি বলেছেন দুর্ভাগ্যজনক, “অবশ্যই দুর্ভাগ্যজনক যে জিম্বাবুয়ে আসছে না, এই সফর স্থগিত হয়ে গেছে। কোথায় বা কার সঙ্গে খেলছি, এসব না ভেবে আমরা সবসময়ই খেলতে চেয়েছি। ক্রিকেটের জন্য এটা গুরুত্বপূর্ণ যে সবাই খেলছে।” 

    তবে যেসব সিরিজ হয়নি, সেসব পরবর্তী ১০ বছরে পুষিয়ে যাবে বলেও মনে করেন তিনি, “আমার মনে হয়, ধরেন ১০ বছরের মাঝে এগুলো সব পুষিয়ে নেওয়া যাবে, এসব বড় কোনও ব্যাপার নয়। আমাদের শুধু খেলার মাঝে ফিরতে হবে। অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার, ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া, অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন-- সবাই মিলে আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করছি ক্রিকেটকে ফিরিয়ে আনতে। আমি জানি অনেক মানুষ অনেক বেশি পরিশ্রম করছেন এ ব্যাপারে।” 

    খুব সংক্ষিপ্ত সময়ের নোটিশেও এখন সিরিজ খেলার জন্য সবাইকে প্রস্তুত থাকতে হবে বলে ধারণা করছেন ফিঞ্চ, “আমার মনে হয় সবাইকেই এদিকে তাকাতে হবে। অস্ট্রেলিয়া, ভারত, ইংল্যান্ড বা দক্ষিণ আফ্রিকা, যে দেশই হোক না কেন, ক্রিকেটকে ফেরানোয় মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত। ক্রিকেটের জন্য সবচেয়ে ভাল যেটা, সেরকম অবস্থানেই যাওয়ার চেষ্টা করতে হবে।” 


     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন