• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    লো সেলসোকে কারও সঙ্গে অদল-বদল করবেন না মরিনহো

    জিওভানি লো সেলসোর বদলে অন্য কোনো খেলোয়াড় চান না হোসে মরিনহো। টটেনহাম হটস্পার ম্যানেজার বলেছেন কারও সঙ্গেই আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডারের 'সোয়াপ ডিলে' আগ্রহী নন তিনি।

    ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগ দেওয়ার আগে গত গ্রীষ্মে ব্রুনো ফার্নান্দেজকে দলে আনার ব্যাপারে এগিয়ে ছিল টটেনহাম। সেই চুক্তি আর আলোর মুখ দেখেনি। পরে লো সেলসোকে দলে ভিড়িয়েছিল টটেনহাম। স্কাই স্পোর্টসের এক সাক্ষাৎকারে প্রশ্ন করা হয়েছিল, লো সেলসোর বদলে স্বদেশী ফার্নান্দেজকে দলে পেলে মরিনহো খুশি হতেন কি না।

    "আমি জানিনা এটা সত্যি কি না (ফার্নান্দেজের টটেনহামে যোগ দেওয়ার ব্যাপারে)। তবে সত্যি যদি হয় আর ফার্নান্দেজের বদলে যদি লো সেলসো এখানে এসে থাকে তাহলে আমি বলব লো সেলসোর বদলে আমি কাউকেই চাই না।"



    ফার্নান্দেজ শীতকালিন দলবদলে যোগ দেওয়ার পর ইউনাইটেড টানা ১৫ ম্যাচ অপরাজিত। প্রিমিয়ার লিগে ৮ ম্যাচে ৫ গোলের পাশাপাশি ৩ অ্যাসিস্টও আছে তার। ইউনাইটেডের রূপ বদলে বড় প্রভাব রেখছেন ২৪ বছর বয়সী পর্তুগজি। মরিনহোর অবশ্য সেদিকে নজর নেই। নিজের খেলোয়াড় নিয়ে সন্তুষ্ট তিনি।

    "এমন না যে জিওভানির বদলে বদলে ব্রুনোকে চাই না। ওকে কারও সঙ্গেই বদলি করতে চাই না। আমি যখন টটেনহামে এসেছিলাম তখন অন্যভাবে শুরু করেছিলাম। এরপর ও যা করেছে সেটাই আমি একজন খেলোয়াড়ের কাছ থেকে আশা করি। নিজেকে আমার সামনে প্রমাণ করে দিয়েছে।"

    টটেনহাম ক্যারিয়ারের শুরুটা ধীর গতির হলেও মৌসুমের দ্বিতীয় অর্ধে এসে দারুণ ছন্দে রয়েছেন লো সেলসো। টটেনহামের হয়ে মাত্র দুই গোল করেছেন ২৪ বছর আর্জেন্টাইন, তবে দলে তার ভূমিকাটা আরও বড়। ধীরে ধীরে টটেনহামের মিডফিল্ডের প্রাণ হয়ে উঠছেন তিনি। মরিনহো এর পুরো কৃতিত্বটাই দিচ্ছেন লো সেলসোকে।

    "স্পয়েলড কিডদের মতো আচরণ করেনি সে। দলে সুযোগ না পেয়ে হা হুতাশ করে, কান্নকাটি জুড়ে দেয়নি, এজেন্ট আর পরিবার দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া আর প্রেসে  হৈ চৈ তোলারও চেষ্টা করেনি। পুরোটাই ছিল আমার আর ওর মধ্যে। ওর মনে হয়েছে, 'তোমাকে দেখিয়ে দেব'। ও ধাপে ধাপে আমাকে দেখিয়ে দিয়েছে।"

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন