• ক্রিকেটে ফেরা
  • " />

     

    'আইপিএলের কারণে' অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত দ. আফ্রিকার ও. ইন্ডিজ ও শ্রীলঙ্কা সফর

    আইপিএলের কারণে সময় বের করা যাচ্ছে না বলে অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর। কোভিড-১৯ এর কারণে জুনে শ্রীলঙ্কা ও জুলাই-আগস্টের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর আগেই স্থগিত হয়েছিল। এবার তা অনির্দিষ্টিকালের জন্য পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিএসএ-র ডিরেক্টর অফ ক্রিকেট গ্রায়েম স্মিথ।

    ক্যারিবিয়ান সফরে দুটি টেস্টের সঙ্গে ৫টি টি-টোয়েন্টি খেলার কথা ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার। সম্প্রতি ইংল্যান্ড সফর থেকে আসা ওয়েস্ট ইন্ডিজ সেপ্টেম্বরে ৫টি টি-টোয়েন্টি অথবা ২টি টেস্টের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকাকে আতিথেয়তা দিতে চায়, এমন বলা হয়েছিল ক্রিকেট ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষ থেকে। শ্রীলঙ্কা সফরে তিনটি করে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি খেলার কথা ছিল তাদের। অন্যান্য দেশগুলির তুলনায় শ্রীলঙ্কা ও ক্যারিবিয় দেশগুলিতে কোভিড-১৯ এর পরিস্থিতিও বেশ ভাল।

    তবে ১০ সেপ্টেম্বর ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ, সিপিএল শেষ হওয়ার পর ১৯ সেপ্টেম্বর ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ, আইপিএল শুরু হবে। ফলে এই উইন্ডোতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যেতে পারছে না দক্ষিণ আফ্রিকা। স্মিথ বলেছেন, তাদের ক্রিকেটারদের ‘আইপিএলে প্রয়োজন পড়বে’। 

    এ বছর আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ স্থগিত করার পর আরব আমিরাতে আইপিএল আয়োজনের ঘোষণা দিয়েছে বিসিসিআই। ১৯ সেপ্টেম্বর শুরু হয়ে ৮ নভেম্বর পর্যন্ত হবে ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক এই টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট, কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে যেটি স্থগিত করা হয়েছিল আগে। ক্রিকেটারদের এই টুর্নামেন্টে খেলতে অনাপত্তিপত্র দেওয়ার সঙ্গে এ সময়ে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ আয়োজনের কথাও ভাবছে না দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেট বোর্ড। 

    আইপিএলের দলগুলির সঙ্গে ১০ জন দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটার চুক্তিবদ্ধ আছেন। তবে ক্রিকেট বোর্ড অনাপত্তিপত্র দিলেও এ সময়ে দেশ ছাড়ার জন্য সরকারের অনুমতি প্রয়োজন হতে পারে তাদের। একই অবস্থা সেপ্টেম্বরে মেয়েদের ইংল্যান্ড সফরের ক্ষেত্রেও। 

    স্মিথ বলেছেন, “ওয়েস্ট ইন্ডিজ (সফর) অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। আইপিএল আসার কারণে আমরা সময় বের করতে হিমশিম খাচ্ছি। মনে হচ্ছে আমাদের ক্রিকেটারদের আইপিএলে প্রয়োজন হবে সেপ্টেম্বরের শুরু থেকেই, যদি ভ্রমণের অনুমতির সঙ্গে সরকারের অনুমতি পাওয়া যায়। শ্রীলঙ্কাও (সফর) স্থগিত করা হয়েছে।” 

    তাদের দেশে আন্তর্তজাতিক ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা থাকায় আগস্টের ১৮ তারিখ থেকে শুরু হতে যাওয়া সিপিএলে যেতে পারছেন না ৫ জন দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটার। একমাত্র দক্ষিণ আফ্রিকান হিসেবে এ লিগ খেলতে যাবেন ইমরান তাহির, তবে পিএসএল খেলতে গিয়ে কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে পাকিস্তানেই আটকা পড়েছিলেন তিনি। এবার শুধু ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোব্যাগোতে হচ্ছে সিপিএলের আসর। 

    “আশা করি একবার কার্যক্রম শুরু হলে আমাদের ছেলেদের দলের ক্ষেত্রে, ধরেন, নভেম্বর থেকে সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেটের বেশ ঠাসা সূচি যাবে। এমন সময়ে সম্ভবত আমরা আগে খেলিনি, তবে এবার অনেক খেলতে হবে, যেগুলো মিস হয়ে গেছে”, বলেছেন স্মিথ।  


     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন