• ক্রিকেটে ফেরা
  • " />

     

    ঘরোয়া ক্রিকেট ফেরানোর ব্যাপারে আশাবাদী বিসিবি

    শ্রীলঙ্কা সফর কার্যত স্থগিত হয়ে যাওয়ার পর আবারও ঘরোয়া ক্রিকেট শুরু করে দেবে বিসিবি, এমনটা বলেছেন বোর্ড প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন। সামর্থ্য অনুযায়ী যতজন সম্ভব, ততজন ক্রিকেটারকে নিয়ে মাঠে ক্রিকেট ফেরানো হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

    সোমবার সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় পাপন বলেছেন, শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট যেসব শর্ত দিচ্ছে, সেসব মেনে আপাতত সফরে যাচ্ছে না বাংলাদেশ। ফলে মাঠে ফেরা পিছিয়ে যাচ্ছে আরও। অনিশ্চয়তা বাড়লেও ঘরোয়া ক্রিকেটকে একটা সুখবরই দিয়েছেন তিনি। 

    অবশ্য এর আগে তিনি বলেছিলেন, দেশে কোভিড-১৯ পরিস্থিতির উন্নতি না হলে অথবা এর প্রতিষেধক ভ্যাকসিন না এলে দেশে ক্রিকেট শুরু করার ‘ঝুঁকি নেবে না বিসিবি’। আপাতত তার কথায় ভিন্ন সুর, “আমরা জানি আমরা ক্রিকেট ফিরিয়ে নিয়ে আসবো। বাইরের কারো সাথে হবে কিনা জানি না, আমরা ঘরোয়া ক্রিকেট শুরু করে দিবো এখনই। কী করবো সেটা আপনাদেরকে বলছি না, কিন্তু কিছু তো একটা করবোই। ক্রিকেট আমরা মাঠে ফেরাবোই।”

    মার্চে করোনাভাইরাস মহামারির আগে এক রাউন্ড পর স্থগিত হয়ে গিয়েছিল দেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় ঘরোয়া টুর্নামেন্ট ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ। এরপর কক্সবাজার ও বিকেএসপিতে আলাদা করে লিগ শুরু করার ভাবনার কথা জানানো হলেও পাপনের কথার পর কার্যত সেটি আর সামনে এগোয়নি। 

    “একদম ওরকম করতে পারবো না, যেমন সবগুলা ক্লাবকে আমি ম্যানেজ করতে পারবো না। যেটুকু আমি ম্যানেজ করতে পারবো, ততজনকে নিয়েই করবো। এটা আপনার ৪০টা খেলোয়াড় হতে পারে, ১৬০টা খেলোয়াড় হতে পারে। আমরা যতটুক ম্যানেজ করতে পারবো নিজেরা ততটুকুই করবো”, বলেছেন পাপন।

    “করোনাকালীন সময় তাদের স্বাস্থ্যগত সুরক্ষা তো আমাদের খেয়াল রাখতেই হবে। আমরা যতটুকু নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো, ততটুকুই খেলাটা চালাবো। তবে খেলা মাঠে গড়াবে ইনশাআল্লাহ।”

    শ্রীলঙ্কা সফর সামনে রেখে বাংলাদেশে এসেছেন হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গোসহ জাতীয় দলের কোচিং স্টাফের কয়েকজন। তারাও থেকে যাবেন বলে জানিয়েছেন পাপন।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন