• চ্যাম্পিয়নস লিগ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    রাউন্ড আপ : স্ট্রাইকারের অভাব ঘোচাতে গার্দিওলার নতুন টোটকা, জয়ের পরও স্বস্তি পেল না লিভারপুল

    চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচ ডে তিনে ম্যাচ হয়েছে মোট ৮টি। এই ৮ ম্যাচের ভেতর অবশ্য এক তরফা ম্যাচ হয়েছে কমই। লিভারপুল, বায়ার্ন মিউনিখকে জয় পেতে কষ্ট করতে হয়েছে। রিয়াল মাদ্রিদ আর ইন্টার মিলান আরও একবার পয়েন্ট হারিয়েছে।


    স্ট্রাইকারবিহীন পেপ গার্দিওলা নতুন টোটটায় সফল
    মার্শেইকে ৩-০ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের দ্বিতীয় ম্যাচেও জয় পেয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। স্কোরলাইন দেখে অবশ্য পুরো ম্যাচে সিটির একচেটিয়া আধিপত্য আঁচ করার উপায় নেই। 

    ১৮ মিনিটে ফেরান তোরেসের গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর দ্বিতীয় গোলের দেখা পেতে সিটিকে অপেক্ষা করতে হয়েছে ৭৬ মিনিট পর্যন্ত। ইলকে গুন্দোয়ানের দ্বিতীয় গোলের মিনিট পাঁচেক পর রাহিম স্টার্লিং যোগ করেছেন আরেক গোল।

    মার্শেইয়ের বিপক্ষেও সার্জিও আগুয়েরো বা গ্যাব্রিয়েল জেসুস কেউ ছিলেন না দলে। গার্দিওলা তাই দল সাজিয়েছিএলন কোনো স্ট্রাইকার ছাড়াই। এই মৌসুমে মোট ৯ ম্যাচের কোনোটিতেই গার্দিওলা দলের মূল দুই স্ট্রাইকারকে পাননি। আর মাত্র ৪ ম্যাচে সার্জিও আগুয়েরো স্কোয়াডে ছিলেন। তিনিও টানা দুই ম্যাচ মাঠে নামার পর নতুন করে চোটে পড়েছেন।

    গার্দিওলা মার্শেইর বিপক্ষে ফেরান তোরেসকেই মূল ফরোয়ার্ডের দায়িত্ব দিয়েছিলেন। ফিল ফোডেন আর স্টার্লিং ছিলেন তার দুই পাশে। সিটির এই ত্রয়ী আক্রমণে বেশ ধারালোই ছিলেন পুরো ম্যাচে। নিজেদের ভেতর দ্রুত বল দেওয়া নেওয়া করে সিটির আক্রমণে গতিও বাড়িয়েছিলেন তারা।

    ১৮ মিনিটে কেভিন ডি ব্রুইনের পাস থেকে গোল করেন তোরেস। চ্যাম্পিয়নস লিগে সিটির হয়ে প্রথম দুই চ্যাম্পিয়নস লিগ ম্যাচে গোল ক্রয়ার কীর্তি এর আগে ছিল মারিও বালোতেল্লির। ৯ বছর পর তোরেসও বালোতেল্লির পাশে বসেছেন। পোর্তোর পর তিনি গোল পেয়েছেন মার্শেইয়ের বিপক্ষেও।

    প্রথমার্ধেই ব্যবধান বাড়াতে পারত সিটি। কিন্তু জিনচেঙ্কোর শট বারপোস্টে লেগে ফেরত আসায় আর এগিয়ে যাওয়া হয়নি তাদের। মার্শেই ৫ জনের রক্ষণ নিয়ে নিজেদের অর্ধেই ব্যস্ত ছিল বিরতির আগ পর্যন্ত। সিটিকে একবারের জন্যও এই সময়ে ঝামেলায় ফেলতে পারেনি তারা।

    বিরতির পর অবশ্য এডারসনকে দুই-একবার রুটিন সেভ করতে হয়েছে। এর ভেতর একবার ফ্লোরিয়ান থোভান বল লাগিয়েছেন বারপোস্টে। তবে এডারসন তখন প্রস্তুতই ছিলেন। মার্শেইর ম্যাচে ফেরার চেষ্টা শেষ হয়ে যায় গুন্দোয়ানের গোলে। ৮১ মিনিটে কেভিন ডি ব্রুইনের দ্বিতীয় অ্যাসিস্ট থেকে সহজ ট্যাপ ইনে গোল করে জয় নিশ্চিত করেন স্টার্লিং


    জয়ের পরও নতুন দুশ্চিন্তায় লিভারপুল
    ডেনমার্ক চ্যাম্পিয়ন মিদজিল্যান্ড চ্যাম্পিয়নস লিগের প্রথম ম্যাচে আটালান্টার কাছে ৪-০ গোলে উড়ে গিয়েছিল। অ্যানফিল্ডে অবশ্য লিভারপুলকে তারাই দিয়ে গেল কঠিন সময়। ইউর্গেন ক্লপের দল অবশ্য দ্বিতীয়ার্ধের দুই গোলে জয় নিয়ে ফিরেছে। তবে জয়ের স্বস্তি ছাপিয়ে গেছে ফাবিনহোর চোটে।

    ভার্জিল ভ্যান ডাইক চোটে পড়ার পর থেকেই জো গোমেজের সঙ্গে সেন্টারব্যাক পজিশনে খেলছিলেন ফাবিনহো। প্রথমার্ধে হ্যামস্ট্রিং-এ টান খেয়ে মাঠ ছাড়তে হয় ব্রাজিলিয়ানকে। ওই অর্ধটা মোটেই ভালো যায়নি লিভারপুলের। মিদজিল্যান্ডের গোলে একবারও শট নিতে পারেনি তারা।

    ব্যস্ত ফিক্সচারে খেলোয়াড়দের বিশ্রাম দিতে মোহামেদ সালাহ, রবার্তো ফিরমিনো আর সাদিও মানে- আক্রমণের ত্রয়ীদের বেঞ্চে রেখে একাদশ সাজিয়েছিলেন ইউর্গেন ক্লপ। জের্দান শাকিরি, ডিভক পিরগি, তাকুমি মিনামিনোদের কেউই সেভাবে প্রভাব রাখতে পারেননি ম্যাচে।

    লিভারপুল প্রথম গোলে শট করতে পেরেছিল ৫১ মিনিটে। এর ৪ মিনিট পর শাকিরি আর অ্যালেক্সান্ডার আর্নল্ডের ওয়ান টু থেকে বল পেয়ে গোল করেন দিয়াগো জোতা। সব প্রতিযোগিতায় এটি ছিল লিভারপুলের ১২৮ বছরের ইতিহাসে দশ হাজারতম গোল।

    এক গোলে এগিয়ে থাকা ম্যাচে স্বস্তি মিলছিল না লিভারপুলের। ব্রাজিলিয়ান বদলি এভান্ডারের একটি প্রচেষ্টা ঠেকিয়ে দেন অ্যালিসন। পরে ক্লপ সালাহ-মানে-ফিরমিনো তিনজনকেই মাঠে নামাতে একরকম বাধ্যই হয়েছে। যোগ করা সময়ে বক্সের ভেতর মিদজিল্যান্ডের পলিনহো সালাহকে ফেলে দিলে পেনাল্টি পায় লিভারপুল। সালাহই গোল করে জয় নিশ্চিত করেছেন দলের।

    গ্রুপের অন্য ম্যাচে আটালান্টার বিপক্ষে ২-০ গোলে এগিয়ে থেকেও পরে ২-২ গোলে ড্র করেছে আয়াক্স। ৬ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের শীর্ষে আছে লিভারপুল, ৪ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে অবস্থান আটালান্টার। 

    কিমিখের গোলে জয় পেল বায়ার্ন, ড্রয়ের বৃত্তেই থাকল ইন্টার


    লোকোমোটিভ মস্কো ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নদের কঠিন পরীক্ষাতেই ফেলে দিয়েছিল। ঘরের মাঠের কয়েক হাজার সমর্থকের সমর্থন কাজে লাগিয়ে বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে হার এড়ানোর স্বপ্নও দেখছিল তারা। কিন্তু ম্যাচের ৭৯ মিনিটে জশুয়া কিমিখের দারুণ এক গোলে লোকোমোটিভকেও বাকিদের মতো হারই বরণ করতে হয়েছে বায়ার্নের বিপক্ষে। 

    ২-১ এ গোলে জেতা ম্যাচে শুরুতেই কিছুটা চাপে পড়ে গিয়েছিল বায়ার্ন। রাশিয়ান স্ট্রাইকার ফিদর স্ললভ সিক্স ইয়ার্ড বক্স থেকে ভালো একটি সুযোগ পেয়েও বল মেরেছিলেন ম্যানুয়েল নয়্যার বরাবর। ১৮ মিনিটে লিওন গোরেতস্কার শক্তিশালী হেডে লিড নেয় বায়ার্ন।  এরপর কিংসলে কোমানের শট বারপোস্টে না লাগলে বিরতির আগে লিড বাড়াতে পারত বায়ার্ন। দ্বিতীয়ার্ধে রবার্ট লেভানডস্কি একটি পেনাল্টি আদায় করে নিলেও অফসাইডের কারণে ভিএআর চেকে বাতিল হয় রেফারির সেই সিদ্ধান্ত।

    ৭০ মিনিটে আন্টন মিরানচুকের গোল করে লোকোমোটিভকে সমতায় ফেরান। যেভাবে লোকোমোটিভ লড়াই করছিল তাতে সমতায় ফেরাটা বোধ হয় প্রাপ্যও ছিল তাদের। কিন্তু ৭৯ মিনিটে বক্সের ভেতর লেট রান নিয়ে নিচু ভলিতে করা কিমিখের গোলে লোকোমোটিভকে শেষ পর্যন্ত খালি হাতেই ফিরতে হয়েছে।

    গ্রুপের অন্য ম্যাচে হোয়াও ফেলিক্সের জোড়া গোলে সালজবুর্গকে ২-১  ব্যবধানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগে প্রথম জয় পেয়েছে অ্যাটলেটিকো। মার্কাস ইয়োরেন্তের ২৯ মিনিটে গোলে লিড নিয়েছিল অ্যাটলেটিকো। পরে ৪০ আর ৪৭ মিনিটে দুই গোল দিয়ে এগিয়ে যায় সালজবুর্গ। ৫২ আর ৮৫ মিনিটে দুই গোল ফেলিক্স ঘরের মাঠে জয় এনে দিয়েছেন প্রথম ম্যাচে বায়ার্নের কাছে ৪-০ গোলে হারা অ্যাটলেটিকোকে।

    'বি'- গ্রুপের ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদের মতো দশা হয়েছে ইন্টারেরও। শাখতারের সঙ্গে গোলশুন্য ড্র করে পয়েন্ট হারিয়েছে তারাও। পুরো ম্যাচে দারুণ সব সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি ইন্টার। রোমেলু লুকাকু আর নিকোলাস বারেলার শটও লেগেছে বারপোস্টে। লাউতারো মার্টিনেজ ভালো একটি সুযোগ হাতছাড়া করেছেন। আর লুকাকুর দুর্দান্ত একটি ফ্রি-কিকও গোলে পরিণত হতে দেননি শাখতার গোলরক্ষক। পুরো ম্যাচে ইন্টারের গোলে মাত্র একবার শট নেওয়া শাখতার একের পর এক ইন্টারের আক্রমণের স্রোত সামাল দিয়ে হার এড়িয়েছে ইউক্রেনে। এরপর দুই ম্যাচ শেষে গ্রুপের শীর্ষেও রয়েছে তারা। দুইয়ে আছে বরুশিয়া মনশেনগ্লাডবাখ। ইন্টার প্রথম দুই ম্যাচ ড্র করে ২ পয়েন্ট নিয়ে আছে রিয়ালের ওপরে।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন