• ইংল্যান্ডের ভারত সফর
  • " />

     

    আহমেদাবাদের পিচ কিউরেটরকে অস্ট্রেলিয়ায় নিয়ে আসতে চান লায়ন

    আহমেদাবাদের পিচ কিউরেটরকে অস্ট্রেলিয়ায় নিয়ে আসতে চান লায়ন    

    আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামের পিচ নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। এবার তাতে যোগ দিলেন অজি স্পিনার ন্যাথান লায়ন। মোতেরার পিচ তার এতটাই মনে ধরেছে যে কিউরেটর আশিষ ভৌমিককে তিনি এসসিজির পিচের দায়িত্ব দিতেও রাজি।

    সদ্য শেষ হওয়া ভারত-ইংল্যান্ড টেস্টের পিচ নিয়ে চটেছেন সাবেক ইংল্যান্ড খেলোয়াড়েরা। অ্যান্ড্রু স্ট্রাউস, মাইকেল ভন, অ্যালেস্টার কুক কেউই ছেড়ে কথা বলেননি। এমনকি ইংলিশ ম্যানেজমেন্টও আইসিসির কাছে পিচ নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগ করার কথা ভাবছে। মাত্র ৮৪২ বলে শেষ হওয়া এই টেস্ট দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে সবচেয়ে ক্ষণস্থায়ী টেস্ট হিসেবে রেকর্ডবুকে জায়গা করে নিয়েছে।

    তবে পিচ নিয়ে কথা প্রসঙ্গে লায়ন বরং দোষ দেখছেন ইংল্যান্ডের টিম সিলেকশনেই, “এই টেস্টের সবচেয়ে চোখে পড়ার মত বিষয় ছিল ইংল্যান্ডের ৪ পেসার নিয়ে খেলতে নামা। এর বেশি মনে হয় না আমাকে আর কিছু বলতে হবে।“

    সম্প্রতি ১০০-টেস্ট খেলা নাথান লায়নের ক্রিকেটে হাতেখড়ি হয়েছিলো কিউরেটর হিসেবেই। পিচ প্রসঙ্গে প্রশ্ন উঠতেই তাই তিনি বলেছেন, “আমি সারারাত জেগে খেলাটা দেখেছি, অসাধারণ ছিল এক কথায়। আমি তো ভাবছি এই কিউরেটরকে এসসিজিতে আনবো।“

    “সিমিং উইকেটে খেলতে গিয়ে আমরা যখন ৪৭,৬০ রানে গুটিয়ে যাই, তখন কেউ টুঁ শব্দও করে না(পিচ নিয়ে)। কিন্তু যখনই উইকেটে স্পিন ধরে তখনই সবাই সেটা নিয়ে হই হই রব তোলে। এই বিষয়টা কখনই ঠিক বুঝে উঠতে পারিনি। বরং আমাকে জিজ্ঞাসা করলে বলব, এই ম্যাচ দেখে বেশ আনন্দ পেয়েছি আমি। আমি এরকম পিচ করারই পক্ষে। “

    ভারতের এই জয়ে অবশ্য ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে খেলার সম্ভাবনা একেবারেই ক্ষীণ হয়ে এসেছে অস্ট্রেলিয়ার জন্য। ভারত বন্দনায় মেতে উঠলেও লর্ডসের ফাইনালে খেলতে তাই ইংলিশদের দিকেই তাকিয়ে থাকতে হবে লায়নদেরকে। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন