• ভারতের ইংল্যাড সফর
  • " />

     

    গাঙ্গুলীর দুইরকম সুর: ভারত-ইংল্যান্ডের স্থগিত টেস্টের ভাগ্যে কী আছে?

    গাঙ্গুলীর দুইরকম সুর: ভারত-ইংল্যান্ডের স্থগিত টেস্টের ভাগ্যে কী আছে?    

    ইংল্যান্ড ও ভারতের মধ্যকার ৫ম টেস্ট বাতিল হলেও সিরিজের ফলাফল এখনও ঝুলন্ত। ম্যাচ কি বাতিল হয়েছে না স্থগিত সেটা নিয়েও এখনো সবাই সন্দিহান। এরই মধ্যে সাবেক ভারতীয় অধিনায়ক ও বর্তমান বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি দুই দিনে দুই রকম কথা বলে সেই তর্ক আরও উশকে দিয়েছেন।

    ভারত শিবিরে কোভিড হানা দিয়েছিল চতুর্থ টেস্টের আগেই। তখন বিতর্কিত বিবৃতি দিয়েছিলেন গাঙ্গুলি। লন্ডনে নিজের বইয়ের প্রকাশনী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছিলেন ভারতীয় কোচ রবি শাস্ত্রি। ধারণা করা হছে সেখান থেকেই শাস্ত্রি সহ আরও সহযোগী কোচদের কোভিড সংক্রমিত হয়েছে। তবে তখন গাঙ্গুলি বলে বসেন,” আপনি একটা হোটেল রুমে বদ্ধ হয়ে কত সময় কাটাতে পারবেন? আপনি কি সারাদিন চার দেয়ালের মাঝে বন্দী হয়ে জীবন কাটাতে পারবেন? আপনি তো সারাজীবন বায়ো-বলয়ে কাটাতে পারবেন না। এই খেলোয়াড় ও কোচরা প্রায় এক বছর ধরে বলয়ের মধ্যেই আছে। কোনও মানুষের পক্ষে তো এভাবে সুস্থ থাকা সম্ভব না, শারীরিকভাবেও না মানসিকভাবেও না।”

     

    শাস্ত্রিরা চতুর্থ টেস্টে ড্রেসিং রুমেও থাকতে পারেননি। তবে সেবার চতুর্থ টেস্ট মাঠে গড়াল, ভারতও সেই টেস্ট জিতে সিরিজে এগিয়ে গেল ২-১ ব্যবধানে। ম্যানচেস্টার মহারণের মাত্র দুই দিন আগে কোভিড পজিটিভ হলেন দলের ফিজিও ইয়োগেশ পারমার। তবে ম্যাচ শুরুর আগের দিনে ভারতের সব খেলোয়াড় নেগেটিভ আসায় ম্যাচ হতে কোনও বাধা নেই সেই ঘোষণাও এলো। শুক্রবার ওভালে ইংল্যান্ড খেলোয়াড়েরা অনুশীলনও শুরু করে দিয়েছিল। এরই মধ্যে ম্যাচ শুরু মাত্র দুই ঘণ্টা আগে ভারতীয় দল জানায়, তাদের পক্ষে কোনোভাবেই ম্যাচ খেলা সম্ভব নয়। কারণ কোভিডের ঝুঁকি অনেক বেশি। ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড সেই সিদ্ধান্ত মেনে নেয়। মাচটা পরের বছরের কোনও এক সময়ে আয়োজনের বিষয়েও একমত হন তারা। তবে দুই পক্ষের কেউই সিরিজের ফলাফল নিয়ে কোনও সিদ্ধান্তে উপনীত হননি। 

    ঠিক তার পরের দিনই গাঙ্গুলি বললেন,”দায়িত্ব এড়িয়ে চলা বোর্ড বিসিসিআই না। আমরা অন্যান্য বোর্ডদেরও সমানভাবেই দেখি। পরের বছর যখনই এই ম্যাচ অনুষ্ঠিত হোক না কেন সেটা শুধুই একটা টেস্ট হবে, এই সিরিজের অংশ নয়। এই সিরিজ আর চলতে পারে না।” 

    কিন্তু এক দিন পরেই সুর পালটে সেই গাঙ্গুলিই প্রেস ট্রাস্ট অফ ইন্ডিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন,”আমরা চাই এই সিরিজটা শেষ হোক। ২০০৭ সালের পর তাহলে ইংল্যান্ডের মাটিতে আমরা টেস্ট সিরিজ জয়ের স্বাদ পাবো। সেজন্য যদি এর সাথে আমাদের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিও খেলতে হয় আমরা রাজি। কিন্তু আমরা চাই টেস্ট যেটা হবে সেটা এই সিরিজের পঞ্চম ম্যাচ হিসেবে গণ্য হোক।” 

    টেস্ট বাতিল হওয়ার সাথে সাথেই অনেকে আইপিএলের দিকে আঙুল তুলেছিলেন। সাবেক ইংল্যান্ড অধিনায়ক মাইকেল ভনও সেদিকেই ইঙ্গিত দিয়ে নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন। তবে সেসব নাকচ করে দিয়েছেন গাঙ্গুলি। একই সাথে বাতিল হওয়ার কারণ নিয়ে আরও খোলামেলা কথা বলেছেন তিনি,”ইয়োগেশ খেলোয়াড়দের খুবই ঘনিষ্ঠ ছিল। সে সবসময় ওদের মধ্যেই থাকত। এমনকি খেলোয়াড়দের কোভিড পরীক্ষাও সেই করত। সে প্রতিদিন খেলোয়াড়দের মাসাজ দিত। খেলোয়াড়দের নিত্যদিনের সঙ্গীই ছিল সে। তার এই খবর শুনে খেলোয়াড়েরাও একদম ভেঙে পড়েছিল। নিজেদের কোভিড সংক্রমণ নিয়েই তারা তখন ভীতসন্ত্রস্ত ছিল।”

    ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি টম হ্যারিসনও ভনদের এই গুঞ্জন পুরোপুরি নাকব করে গোল মিলিয়েছেন গাঙ্গুলির সাথেই,” এই বিষয়ে আমি একদম সোজাসাপটা কথা বলতে চাই। ম্যাচ বাতিল হওয়ায় আইপিএলের বিন্দুমাত্র ভূমিকা নেই।” 

    তবে ম্যাচ আইপিএলের জন্য বাতিল হোক বা নাই হোক দুই দিনে গাঙ্গুলির দুই রকম মন্তব্য যেমন সিরিজ নিয়ে বিতর্কের আগুনে ঘি ঢেলেছে তেমনই সিরিজের ফলাফল নিয়ে তৈরি করেছে আরও ধোঁয়াশা। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন