• বাংলাদেশ-আফগানিস্তান
  • " />

     

    ‘মুশফিককে নিয়ে কোনো “সমস্যা” নেই’

    বাংলাদেশের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান, টেস্ট দলের অধিনায়ক, সব ফরম্যাটেই উইকেটকিপার। মুশফিকুর রহিমকে নিয়ে কথা বলতে গেলে আসে আরেকটা বিষয়, ‘অনুশীলন’। বাধ্যতামূলক বা ঐচ্ছিক, মুশফিক অনুশীলনে থাকেন সমান ‘সিরিয়াস’। সেই মুশফিককেই গতকালের ঐচ্ছিক অনুশীলনে দেখা গেল না মিরপুরের শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে। ছিলেন দলে ডাক পাওয়া মোশাররফ হোসেন, শফিউল ইসলাম, ইমরুল কায়েস আর নাসির হোসেন। গতকাল নয়, মুশফিককে নিয়ে নতুন করে আলোচনা শুরু হয়েছে আসলে গত পরশু দিনের দ্বিতীয় ওয়ানডের শেষ থেকেই। ম্যাচ শেষের সংবাদ সম্মেলনে বেশীরভাগ প্রশ্ন যেমন ছিল তাঁকে নিয়েই। মুশফিক এদিন অনুশীলনে এলেন, কিন্তু সেই ‘ধারা’ বজায় থাকলো আজকের ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনেও। সেদিনের মতো আজও মাশরাফি বিন মুর্তজা বলে গেলেন, মুশফিককে নিয়ে দলের ভেতরে আসলে কোনোই ‘চিন্তা’ নেই।

     

    মুশফিককে নিয়ে এতো কথার মূলে একটা স্ট্যাম্পড এর সুযোগ হাতছাড়া হওয়া। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে আফগানিস্তানের তখন প্রয়োজন ২০ বলে ১৩ রান, হাতে ৩ উইকেট। অভিষিক্ত মোসাদ্দকের বলে সহজ একটা সুযোগ মিস করে বসলেন বাংলাদেশী উইকেটকিপার। প্রথম ম্যাচের মতো দ্বিতীয় ম্যাচেও শেষমুহুর্তে ঘুরে দাঁড়ানোর আশাও শেষ ওখানেই। মাশরাফি সেদিনও বলেছিলেন, মুশফিকের কিপিং বা ব্যাটিং নিয়ে কোনো ধরনের ‘মানসিক’ ব্যাপার নেই। শুধু ওই একটা স্ট্যাম্পড হয়নি বলেই যে বাংলাদেশ হেরেছে, মানতে নারাজ সেটাও।

     

    শেষ ওয়ানডে, যা কিনা এখন সিরিজ নির্ধারণী, সেই ম্যাচের আগেও বাংলাদেশ অধিনায়ক বললেন একই কথাই। টুইট-রিটুইট, কিংবা সংবাদমাধ্যমের সাথে কথা না বলা, মুশফিককে নিয়ে আলোচনার শেষ নেই। তবে সবকিছুকে পেশাদার মনোভাবের সাথে দেখতে চান মাশরাফি, ‘দেখেন, একেকজন মানুষের চিন্তা ভাবনা চলাফেরা একেকরকম। সংবাদমাধ্যমের সাথে কথা বলে না, সেটা তাঁর ব্যক্তিগত বিষয়। এসব নিয়ে আসলে কথা বলাই ঠিক হবে না। পেশাদারিত্বের দিক দিয়ে সে আমাদের চেয়ে একধাপ এগিয়ে। আমরা সবাই পেশাদার আচরণ করবো, এটাই স্বাভাবিক। সেদিক থেকে মুশফিককে একশই একশ দেয়া ছাড়া উপায় নাই।’

     

     

    মাশরাফি আবার মুশফিকের জায়গায় নিজেকে বসিয়েও ব্যাপারটা দেখতে চান, ‘আজ মুশফিকের সাথে যেটা হচ্ছে, সেটা পরের ম্যাচে আমার সাথেও হতে পারে। একটা ম্যাচ কখনও একজনের জন্য হারা সম্ভব না। আমরা যদি আরও ২০টা রান বেশী করতাম, তাহলে হয়তো এসব আসতোই না।’

     

    মুশফিককে নিয়ে দলের ভেতরে কোনো সমস্যাও নেই, মাশরাফি বলেছেন এমনও, ‘আমরা তাঁকে নিয়ে একেবারেই চিন্তিত না। খেলোয়াড় হিসেবে দলের ভেতরে তাঁকে নিয়ে কোনো সমস্যা নাই। মুশফিককে নিয়ে আমরা “মোর দ্যান হ্যাপি”।’

     

    সেই ‘সুখী’ বাংলাদেশ আফগানিস্তানের সঙ্গে সিরিজ জিতে নিজেদের ১০০তম ওয়ানডে জয়টা আগামীকালই আনতে পারেন কিনা, অপেক্ষা এখন সেটারই।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন